এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ২৩ শে মে বিজেপির কারণেই পিসি- ভাইপো বন্ধু থেকে শত্রু হয়ে যাবেন! দাবি নরেন্দ্র মোদির

২৩ শে মে বিজেপির কারণেই পিসি- ভাইপো বন্ধু থেকে শত্রু হয়ে যাবেন! দাবি নরেন্দ্র মোদির



এবারের লোকসভা নির্বাচনে সবথেকে চর্চিত বিষয় হল – উত্তরপ্রদেশে ‘বুয়া-ভাতিজা’ বা ‘পিসি-ভাইপোর’ জোট। লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্রের মসনদ থেকে বিজেপিকে সরানোর জন্য ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের ক্ষমতা দখলে নির্ণায়ক শক্তি হয়ে ওঠা উত্তরপ্রদেশের দুই পরস্পর বিরোধী দল সমাজবাদী পার্টি এবং বহুজন সমাজবাদী পার্টি জোট করেছে। আর এই জোটের পরই গত শুক্রবার মৈনপুরীতে এক মঞ্চে দেখা যায় সমাজবাদী পার্টির মুলায়ম সিংহ যাদব এবং বহুজন সমাজবাদী পার্টির মায়াবতীকে। আর সেই মঞ্চ থেকেই নরেন্দ্র মোদীকে ‘ফেক’ বলে আখ্যা দেন মায়াবতী। আর এবার সেই মায়াবতীকেই পাল্টা জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সূত্রের খবর, শনিবার উত্তরপ্রদেশের এটা এবং বিহারের আরারিয়ায় দুটি জনসভা করেন প্রধানমন্ত্রী। আর উত্তরপ্রদেশের এই জনসভা থেকে সপা-বসপার জোট নিয়ে কটাক্ষ করে নরেন্দ্র মোদী বলেন, “আপনাদের নিশ্চয়ই বিধানসভা ভোটে কংগ্রেস এবং সপার বন্ধুত্বের কথা মনে আছে। ফল প্রকাশের পরে তাদের আর বন্ধুত্ব টেকেনি। তারা একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী’ হয়ে গিয়েছে। তাই ২৩ শে মে লোকসভা ভোটের ফল ঘোষণার দিন মায়া- মুলায়মেরও বন্ধুত্ব ভেঙে যাবে। আবার তারা প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে যাবেন।”

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, উত্তরপ্রদেশে সমাজবাদী পার্টি এবং বহুজন সমাজবাদী পার্টির মধ্যে জোট করার পরে সেখানে বিজেপি কিছুটা হলেও চাপের মুখে পড়েছে। আর তাই তো এবার সেই উত্তরপ্রদেশের জনসভা করে মায়াবতীর বহুজন সমাজবাদী পার্টি এবং অখিলেশের সমাজবাদী পার্টির মধ্যে ভোট গণনার পড়ে আর কোনো সম্পর্ক থাকবে না বলে পাল্টা দাবি করলেন নরেন্দ্র মোদি। তবে শুধু সপা-বসপাই শুধু নয়, এদিন কংগ্রেসের গান্ধী পরিবারকেও কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন প্রধানমন্ত্রী। উত্তরপ্রদেশের পর বিহারের সভা থেকে প্রথম দু-দফার পরেই বিরোধীরা হারের ভয় পেয়ে গেছে বলে দাবি করেন নরেন্দ্র মোদি।

সেনা নিয়ে কখনোই বর্তমান সরকার রাজনীতি করে না বলে উল্লেখ করে এদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আগের সরকার 26/11 মুম্বাই হামলার পর সন্ত্রাস দমন করতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। আর বর্তমান সরকার উরি হামলার পর জবাব দিতে সার্জিকাল স্ট্রাইক করেছে। পুলওয়ামা কাণ্ডের পর পাকিস্তানে বিমান হামলা চালিয়েছে।” সব মিলিয়ে এবার উত্তরপ্রদেশ ও বিহারের জনসভা থেকে বিরোধী দলগুলোকে কড়া ভাষায় বিঁধলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সবথেকে বড় কথা অতীত উদাহরণ তুলে ধরে ‘পিসি’ মায়াবতী ও ‘ভাইপো’ অখিলেশ যাদবের মধ্যে যে বিচ্ছেদ হচ্ছেই – এ কথা তুলে ধরে উত্তরপ্রদেশের ‘মহাগঠবন্ধনকেই’ বড়সড় প্রশ্নচিহ্নের সামনে ফেলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী বলে অভিমত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!