এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > নাগরিকত্ব গোপনের অভিযোগ তৃণমূল প্রার্থীর নামে, পাল্টা অভিযোগ বিজেপি প্রার্থীর নামেও

নাগরিকত্ব গোপনের অভিযোগ তৃণমূল প্রার্থীর নামে, পাল্টা অভিযোগ বিজেপি প্রার্থীর নামেও



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একেবারে শেষ পর্যায়ে এসে গেছে এবারের বিধানসভা নির্বাচন।  আজ চলছে ষষ্ঠ দফার ভোট। এরপর হাতে মাত্র দুটি দফা থাকবে। ষষ্ঠ দফায় নির্বাচনী তালিকায় রয়েছে বনগাঁ দক্ষিণ কেন্দ্র। এই কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী হলেন আলোরানী সরকার এবং বিজেপি প্রার্থী হলেন স্বপন মজুমদার।

কিন্তু এই দুই প্রার্থীর মধ্যে অভিযোগ, প্রতি অভিযোগ নিয়ে বুধবার  দিনভর সরগরম হয়ে রইলো বনগাঁ দক্ষিণ কেন্দ্র। এদিন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আলোরানী সরকারের বিরুদ্ধে বিজেপি প্রার্থী স্বপন মজুমদার অভিযোগ করেন দ্বৈত নাগরিকত্বের যা ভারতবর্ষে নিষিদ্ধ। বিজেপি প্রার্থী স্বপন মজুমদার দাবি করেন, তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আলোরানী সরকার ভারত এবং বাংলাদেশ দু দেশেরই নাগরিক।

এ প্রসঙ্গে স্বপন মজুমদার নির্বাচন কমিশনের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ জানিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। যদিও আলোরানী সরকার অভিযোগ অস্বীকার করে পাল্টা বিজেপি প্রার্থী স্বপন মজুমদারের বিরুদ্ধে দুর্নীতি এবং সোনা পাচারের অভিযোগ এনেছেন। আলোরানী সরকার বীজপুরের বাসিন্দা বলে জানা যায়। বনগাঁ দক্ষিণের তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন তিনি। কিন্তু বিজেপির অভিযোগ, আলোরানী সরকারের আদি বাড়ি বাংলাদেশের বরিশালে। সেখানে তাঁর স্বামী হরেন্দ্রনাথ সরকার একজন চিকিৎসক। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় আলোরানী সরকার তাঁর স্বামীর সম্পর্কে কোনো তথ্য দেননি। আর এই নিয়েই বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এ প্রসঙ্গে বিজেপি প্রার্থী স্বপন মজুমদার প্রশ্ন তুলেছেন, দুই দেশের নাগরিক হয়ে কিভাবে ভোটের ময়দানে লড়ছেন আলোরানী সরকার? পাশাপাশি তিনি নির্বাচন কমিশনের কাছে আলোরানী সরকারের প্রার্থী পদ খারিজ করার আবেদন করেছেন। যদিও এই ঘটনার খবর পেয়ে বুধবার বিকেলে চাঁদপাড়ায় একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন তৃণমূল প্রার্থী এবং সেখানেই তিনি পাল্টা দাবী করেন, জন্মসূত্রে তিনি হুগলির মানুষ। পাশাপাশি তিনি অভিযোগ করেন, বিজেপি প্রার্থী স্বপন মজুমদার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় যে শিক্ষাগত যোগ্যতার শংসাপত্র জমা দিয়েছেন, সেটি পুরোপুরি নকল।

পাশাপাশি স্বপন মজুমদার বিভিন্ন দুর্নীতি এবং সোনা পাচারের সঙ্গে যুক্ত বলে অভিযোগ আনেন তৃণমূল প্রার্থী আলোরানী সরকার। খুব স্বাভাবিকভাবেই নির্বাচনের আগের দিন যেভাবে দুই বিরোধী প্রার্থী একে অপরের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ নিয়ে এসেছেন তা শোরগোল ফেলে দিয়েছে রাজনৈতিক মহলেও।  এই পরিস্থিতিতে বনগাঁর দক্ষিণের ভোটের আবহাওয়া যে উত্তপ্ত হয়ে উঠল, সেকথা বলাই বাহুল্য। আপাতত নির্বাচন কমিশন কি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে, সে দিকেই নজর সবার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!