এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > নবান্নের রঙ গেরুয়া করতে ভরসা সেই মুকুলেই? অবশেষে গুরুত্ব বাড়তে চলেছে বঙ্গ রাজনীতির চাণক্যের?

নবান্নের রঙ গেরুয়া করতে ভরসা সেই মুকুলেই? অবশেষে গুরুত্ব বাড়তে চলেছে বঙ্গ রাজনীতির চাণক্যের?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর বহুবার পরীক্ষা দিতে হয়েছে তাকে। প্রায় সবকটি পরীক্ষাতেই উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি। বিরোধী দল ভাঙ্গানো থেকে শুরু করে নতুন দল বিজেপিতে যোগ দিয়ে নির্বাচনে সেই দলকে সাফল্য পাওয়ানো, পঞ্চায়েত হোক বা লোকসভা – বিজেপিকে নিজের মস্তিষ্কের কৌশল দিয়ে 18 টি আসন পাইয়ে দিয়েছেন সেই মুকুল রায়।

কিন্তু তারপর আশা করা হলেও তাকে তেমন ভাবে কোনো জায়গা দেয়নি ভারতীয় জনতা পার্টি। বাস্তব পরিস্থিতি উপলব্ধি করে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি এরাজ্যে ক্ষমতায় আসবে বলে নানা নেতারা দাবি করলেও মুকুল রায় কিন্তু অন্য কথা বলেছিলেন। দিল্লিতে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সাথে বৈঠকে তিনি পরিষ্কার ভাষায় জানিয়ে দিয়েছিলেন, বুথের সংগঠন শক্তিশালী না করলে তৃণমূলকে হারানো তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই এখন থেকে আরও নতুন ভাবে শক্তিশালী হয়ে বিজেপিকে এগিয়ে যেতে হবে।

কিন্তু তার সেই কথায় অনেক বিজেপি নেতাই ভ্রু-কুঁচকেছিলেন। অনেকেই মুকুল রায়ের সেই কথাকে মানতে পারেননি। কিন্তু দেরিতে হলেও এবার মুকুল রায় যে ঠিক এবং তিনি যে বাস্তব পরিস্থিতি বুঝেই সমস্ত কথা বলেন, তা অনুভব করল বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। জানা গেছে, সম্প্রতি বিজেপির বাংলা নিয়ে আভ্যন্তরীণ রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে আগামী মার্চ থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যে যদি বিধানসভা ভোট হয়, তাহলে বিজেপির পক্ষে বাংলা দখল করা সম্ভব নয় বলে জানানো হয়েছে।

আর মুকুল রায়ের এই বক্তব্যের সঙ্গে বিজেপির এই গোপন সমীক্ষার রিপোর্ট হুবহু মিলে যাচ্ছে বলে দাবি করছেন বিজেপির ঘনিষ্ঠ মহল। যার ফলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে মুকুল রায় বুথের সংগঠনে জোর দেওয়ার কথা এতদিন বলে এসেছিলেন এবং তার কথাকে অমান্য করেছিলেন বিজেপি’র নেতারা, সেই মুকুল রায়ের কথাই আভ্যন্তরীণ রিপোর্টে কার্যত ফুটে ওঠায় এখন বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে বাংলার ক্ষমতা দখল করার জন্য একমাত্র ব্লুপ্রিন্ট সাজানোর নায়ক হতে পারেন মুকুল রায়।

একাংশ বলছেন, এবার ধীরে ধীরে বঙ্গ বিজেপিতে গুরুত্ব বাড়তে পারে মুকুল রায়ের। দলকে নানা সময় সাফল্য পাইয়ে দিলেও সেভাবে দল চাপে না পড়ার কারণে মুশকিল আসান হিসেবে গুরুত্ব পাননি বিজেপি চাণক্য। কিন্তু এবার যখন সামনে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলাকে টার্গেট করেছে এবং তাদের অভ্যন্তরীণ রিপোর্টে উঠে এসেছে বাংলা দখলে বিজেপির পিছিয়ে দেওয়ার আভাস, তখন সেই মুকুল রায়কে দিয়েই বিজেপি বাংলা দখলের ব্লুপ্রিন্ট সাজানোর জন্য তাকে গুরুত্ব দেওয়ার কথা ভাবতে পারে বলে দাবি করছে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। যার ফলে এবার বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রধান কান্ডারী হতে পারেন মুকুল রায় বলে মনে করা হচ্ছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অনেকেই বলছেন, এই মুকুল রায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসার পর গত লোকসভা নির্বাচনের আগে একের পর এক তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা, বিধায়ক, সাংসদ গেরুয়া শিবিরে যোগদান করেছেন। যার ফলে অস্বস্তি বেড়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের। কিন্তু বর্তমানে মুকুল রায় স্তব্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে সেই দলবদলের খেলা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ। তাই বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলকে চাপে ফেলতে গেলে সেই দলবদলের খেলা শুরু করা যে অত্যন্ত জরুরি, তা বুঝতে পেরেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

আর সেই দল ভাঙানোর খেলায় অত্যন্ত পাকা মুকুল রায়ের হাত ধরে এবার বিজেপিকে বঙ্গ রাজনীতিতে আরও বেশি করে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিতে হবে, তা অনুভব করেই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব মুকুল রায়কে ময়দানে নামাতে পারে বলে মনে করছেন মুকুলবাবুর অনুগামীরা। এদিকে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের মনে মুকুল রায়কে নিয়ে যদি এই সম্ভাবনা তৈরি হয় এবং সত্যি সত্যিই যদি মুকুল রায় আবার খেলা ঘোরানোর জন্য ময়দানে নামতে শুরু করেন, তাহলে তৃণমূলের অস্বস্তি দ্বিগুণ ভাবে বৃদ্ধি পাবে বলেই দাবি করছে রাজনৈতিক মহল।

কেননা মুকুল রায় খুব ভালো করেই জানেন, কিভাবে তৃণমূলের ঘর ভাঙতে হয়। সেদিক থেকে ভোট রাজনীতি বোঝা মুকুল রায় বিধানসভা নির্বাচনের আগে যদি নিজের হাতে দায়িত্ব নিয়ে বিজেপির ভোটব্যাংককে শক্তিশালী করতে শুরু করেন, তাহলে আগামী 2021 তৃণমূলের ক্ষেত্রে যে ব্যাপক চিন্তার হতে চলেছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এখন বিজেপির পক্ষ থেকে মুকুল রায়কে নিয়ে কি ভাবনাচিন্তা শুরু হয়, সত্যি সত্যিই তার হাত ধরে বিজেপি আগামী বিধানসভা নির্বাচনের জন্য ব্লু প্রিন্ট তৈরির ব্যাপারে রণনীতি শুরু করে কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!