এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ‘হিটলারের’ সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর তুলনা করে বাংলার ‘গণতন্ত্র বাঁচাতে’ সেমিনার ‘নব বঙ্গ’-এর

‘হিটলারের’ সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর তুলনা করে বাংলার ‘গণতন্ত্র বাঁচাতে’ সেমিনার ‘নব বঙ্গ’-এর



রাজ্যের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে রাজ্যের শাসকদল তথা রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে পথে নেমে প্রতিবাদ করতে চলেছে একটি অরাজনৈতিক মঞ্চ ‘নব বঙ্গ’। যদিও দাবি করা হয়েছে সংগঠনটি অরাজনৈতিক, তবুও সংগঠনের ছত্রে ছত্রে গেরুয়া-শিবিরের সংস্পর্শ রয়েছে বলে দাবি রাজনৈতিক মহলের। সংগঠনের তরফে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, পঞ্চায়েত ভোট ঘিরে রক্তাক্ত হয়েছে গোটা বাংলা। দিনেদুপুরে হত্যা করা হয়েছে গনতন্ত্রকে। মানুষকে ভোটাধিকার প্রয়োগে বাধা দেওয়া হয়েছে। বোমাবাজি, হাতে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে তালিবানি শাসন কায়েম করেছে উন্নয়নবাহিনী। পঞ্চায়েতের ভোটগ্রহণের দিন মৃত্যু হয়েছে ২১ জনের। বিরোধী জয়ী প্রার্থীরা এখনো ঘরছাড়া। পুরুলিয়ায় পুরনো মামলায় গ্রেফতার করছে পুলিস। এই চরম ফ্যাসিস্ত ও অগণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করতে চলেছে নব বঙ্গ। রবিবার কলকাতায় ‘Murder of Democracy in Bengal’ শীর্ষক একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে।

সংগঠনের আহ্বায়ক সৌমেন পুরকায়স্থ জানিয়েছেন, বাংলায় ভোটের নামে হিংসায় মদত দিয়েছে শাসক দল। গোটা দেশের কাছে মাথা হেট হয়েছে আমার সোনার বাংলার। এই অগণতান্ত্রিক ও ফ্যাসিস্ত সরকারের বিরুদ্ধে সোচ্চার প্রতিবাদ করতে চলেছে নব বঙ্গ। আমরা শহিদদের পরিবারকে বিচার পাইয়ে দিতে চাই। বাংলার প্রতিটা ঘরে পৌঁছে দেব প্রতিবাদের স্বর। সংগঠনের তরফে আরো জানা গেছে, সেদিনের সেই সেমিনারে উপস্থিত থাকবেন বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক তথা রাজ্যের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়, প্রাক্তন রেলমন্ত্রী মুকুল রায় ও চলচিত্র প্রযোজক বিবেক অগ্নিহোত্রী। তবে এই সংগঠনের যে পোস্টার চারিদিকে দেখা যাচ্ছে তা নিয়ে শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক। কেননা ওই পোস্টারে দেখা যাচ্ছে, রাজ্যের গণতন্ত্রের মুখাবয়বের চিত্র হিসেবে মুখাবয়বের একাংশ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্য অংশ অ্যাডলফ হিটলারের সমন্বয়ে তৈরী।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!