এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > পাখির চোখ পুর নির্বাচন, ভোট টানতে জনমোহিনী পদক্ষেপ তৃণমূল পরিচালিত পৌরসভার!

পাখির চোখ পুর নির্বাচন, ভোট টানতে জনমোহিনী পদক্ষেপ তৃণমূল পরিচালিত পৌরসভার!



 

সামনেই পৌরসভা নির্বাচন। আর তার আগে এবার পৌরবাসীকে বড়সড় সুখবর দিল পুরাতন মালদা পৌরসভা। জানা গেছে, আগামী জানুয়ারি মাস থেকে পুরাতন মালদা পৌরসভা এলাকার বাসিন্দাদের জলকর কমিয়ে অর্ধেক করা হল। পাশাপাশি প্রবীণ নাগরিকদের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্ত নিতে দেখা গেল তৃণমূল পরিচালিত এই পৌরসভাকে। সাধারণ মানুষের উন্নতিকল্পে তৃণমূল পরিচালিত পৌরসভার উদ্যোগ আগামী পৌরসভা নির্বাচনের জন্য বলেই মত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য,এই পুরাতন মালদহ পৌরসভায় তৃণমূল পরিচালিত বোর্ড ক্ষমতায় আসার পরেই সেখানকার পানীয় জল সরবরাহ করার পরিষেবা শুরু করা হয়। আর এর জন্য প্রতি গ্রাহককে 100 টাকা করে জলকরের জন্য ধার্য করা হয়েছিল। তবে অনেক ক্ষেত্রেই সাধারণ মানুষদের তরফে এই পানীয় জলের পরিষেবা নিয়ে ক্ষোভ তৈরি হয়েছিল। আর এবার সাধারণ মানুষের বোঝা কমাতেই পৌরসভা কর্তৃপক্ষের তরফে জলকর কমিয়ে অর্ধেক করা হল‌।

জানা গেছে, এখন থেকে গ্রাহকদের প্রত্যেক মাসে 50 টাকা করে জলের উপর সার্ভিস ট্যাক্স দিতে হবে। আর সিনিয়রদের ক্ষেত্রে তার পরিমাণ 25 টাকা। আর পৌরসভা নির্বাচনের আগে পুরাতন মালদা পৌরসভার তরফ থেকে জলকর কমিয়ে দেওয়ার এই সিদ্ধান্তকে জনমোহিনী সিদ্ধান্ত বলেই মনে করছেন অনেকে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আবার অনেকে বলছেন, আসলে পৌরসভা নির্বাচনে জয়ের জন্য এখন এই রকম পদক্ষেপ নিয়ে মানুষের কাছে পৌঁছাতে চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন এই প্রসঙ্গে পৌরসভার জল বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি শিবাঙ্কর ভট্টাচার্য বলেন, “নতুন বছর থেকে জলের সার্ভিস ট্যাক্স 100 টাকা কমিয়ে 50 টাকা করা হয়েছে। সিনিয়র সিটিজেনরা আরও কম কর দেবেন। 25 টাকায় পরিশুদ্ধ পানীয় জলের পরিষেবা পারেন তারা। পৌরসভার বোর্ড অফ কাউন্সিলের মিটিংয়ে এই বিষয়ে আলোচনা করে উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করি, গ্রাহকরা নূন্যতম খরচে পরিস্রুত পানীয় জলের পরিষেবা পাবেন।”

একইভাবে এই ব্যাপারে পুরাতন মালদা পৌরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান তথা শহর তৃণমূল নেতা বিভূতিভূষণ ঘোষ বলেন, “জলের সার্ভিস ট্যাক্স কমিয়ে দেওয়ার ফলে নাগরিকদের সুবিধা হবে। তৃণমূল পরিচালিত পুরবোর্ডের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে।” তবে বিরোধীরা কিন্তু এই ব্যাপারে পৌরসভার শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে কটাক্ষ করতে ছাড়ছে না।

এদিন এই ব্যাপারে পৌরসভার বাম পুরবোর্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ সুকুল বলেন, “সামনেই পৌরসভা ভোট। এজন্য এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তৃনমূল বোর্ড। এটা এক কথায় ভোটের চমক।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে মালদহ নগর মন্ডল বিজেপির সভাপতি সুজিত দাস বলেন, “পৌরসভা কর্তৃপক্ষের উচিত ছিল, বিনামূল্যে পানীয় জল পরিষেবা দেওয়া। কিন্তু তা না করে কর কমিয়ে কি হবে! আগামী দিনে বিজেপি পৌরবোর্ড ক্ষমতায় আসলে শহরে কোনো জলের ট্যাক্সই থাকবে না।”

তবে বিরোধীরা যে কথাই বলুন না কেন, পৌরসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল পরিচালিত পৌরসভা জলের কর কমিয়ে যেভাবে সাধারণ মানুষকে স্বস্তি দিলেন, তাতে তারা অনেকটাই সুবিধাজনক জায়গা করে নিতে পারবে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!