এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ‘নজরদারির’ প্রমান হাতেনাতে দিয়ে রাজ্য সরকারের ওপর চাপ বাড়ালেন মুকুল রায়

‘নজরদারির’ প্রমান হাতেনাতে দিয়ে রাজ্য সরকারের ওপর চাপ বাড়ালেন মুকুল রায়



গতকাল দিল্লি হাইকোর্টে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের করা রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ফোন ট্যাপিং মামলার শুনানি ছিল। যদিও রাজ্য সরকার নিজেদের হলফনামায় লিখিত ভাবে জানিয়েছে যে এরকম কোনো ফোন ট্যাপিং হয় না আর তাই উপযুক্ত প্রমানের এভাবে সেই মামলা আদালত খারিজ করে দিয়েছে, কিন্তু সেই মামলা শুরু হওয়ার আগেই রাজ্য সরকারের রক্তচাপ আরো বাড়িয়ে দিলেন মুকুল রায়। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে নজরদারির নতুন বিস্ফোরক অভিযোগ নিয়ে এলেন, শুধু তাই নয়, এক্ষেত্রে তিনি হাতেনাতে ‘প্রমানও’ করে দিলেন রাজ্য সরকারের অধীনস্ত সিআইডি গোয়েন্দারা কিভাবে তাঁর উপর নজরদারি চালাচ্ছে।
আজ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে মামলা উপলক্ষে দিল্লি হাইকোর্ট চত্ত্বরে উপস্থিত ছিলেন মুকুল রায়। সেখানে তার গতিবিধির উপর নজরদারি চালাতে উঁকিঝুঁকি মারছিলেন এক সিআইডি গোয়েন্দা বলে সন্দেহ করেন মুকুল রায়। তিনি সটান সেই ব্যক্তির কাছে চলে গিয়ে প্রশ্ন করেন, ভাল আছেন? হকচকিয়ে যাওয়া সেই গোয়েন্দা সেইভাবে কোনো উত্তর দিতে পারেননি বলে রাজধানী সূত্রে জানা যাচ্ছে। আর এরপরেই মুকুল বাবু ‘আবিষ্কার’ করেন একজন নয় তাঁর উপর সেখানে নজরদারি চালাচ্ছেন তিন-তিনজন সিআইডির গোয়েন্দা, কেননা এঁদের নাকি মুকুলবাবু আগে থেকেই চিনতেন। এরপরই ওই তিন গোয়েন্দাকে মুকুলবাবু প্রশ্ন করেন, তাঁদের কোনো প্রশ্ন আছে কিনা। গোয়েন্দাদের উত্তর না হতেই, ক্ষোভে ফেটে পড়েন মুকুল রায়। তিনি জানান, তাঁদের (গোয়েন্দাদের) কোনও দোষ নেই। ওপর ওয়ালার নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করছেন তাঁরা। পশ্চিমবঙ্গে এর আগে সিদ্ধার্থশঙ্কর রায়ের শাসনকালেই ব্যক্তি বিশেষের ওপর এমন নজরদারি চলত। তৃণমূলে থেকে যে বাম শাসনের পরিবর্তন আমরা করেছিলাম, সেই শাসকরাও এই ধরনের ঘটনায় যুক্ত ছিল না। আর এরফলে প্রশ্ন উঠে যায় পশ্চিমবঙ্গের গণতন্ত্র বর্তমানে ‘সুস্থ’ কিনা। এখন দেখার মুকুল রায়ের এই নতুন ‘বাউন্সার’ রাজ্য সরকার কিভাবে সামলায়।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!