এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > শিয়রে ভোট, মমতার চালু করা ‘দুয়ারে সরকার’ সফল করতে ঘুম উড়তে চলেছে প্রশাসনিক কর্তাদের?

শিয়রে ভোট, মমতার চালু করা ‘দুয়ারে সরকার’ সফল করতে ঘুম উড়তে চলেছে প্রশাসনিক কর্তাদের?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বাঁকুড়ার সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ঘোষণা করতে দেখা গিয়েছিল একাধিক কর্মসূচি। সেখানে তিনি যেমন বিরোধীদের কটাক্ষ করেন, তেমনই সরকারের হয়েও তাঁকে অনেক কথাই বলতে শোনা গিয়েছিল। তাঁর কথায়, এই সরকার মানবিক সরকার, মানুষের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়ার জন্য নয় বলেই দাবি করেছিলেন তিনি।

আর সেই সঙ্গে ১লা ডিসেম্বর থেকে দুয়ারে দুয়ারে সরকার যাবে বলেও জানান তিনি। এই কর্মসূচিকে ‘দুয়ারে সরকার’ নাম দেওয়া হয় বলেও জানা যায়। এই কর্মসূচির মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছিলেন যে এর ফলে যাঁরা এখনও কোনও সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পাননি, তাঁরা সেখানে গেলে সুবিধা পেয়ে যাবেন। তবে সম্প্রতি জানা গেছে, যেখানে একে ভোটের প্রস্তুতিতে সরকারি কর্মচারীদের হিমশিম অবস্থা, সেখানে মমতার চালু করা ‘দুয়ারে সরকার’ সফল করতে ঘুম উড়তে চলেছে প্রশাসনিক কর্তাদের।

জানা গেছে, ‘দুয়ারে সরকার’ এই কর্মসূচি নিয়ে উত্তরবঙ্গে নেমে পড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। এই কর্মসূচিতে গ্রামে গিয়ে ক্যাম্প করে সরকারি প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে গ্রামবাসীদের অবগত করা হবে। আর এই ব্যাপারে ইতিমধ্যেই মুখ্যসচিবের স্বাক্ষর করা নির্দেশিকা জারি হয়ে গেছে।

আর তাই জেলাশাসক থেকে বিডিও পর্যন্ত আধিকারিকদের মধ্যে কাজের তৎপরতা শুরু হয়েছে বলেই জানা গেছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, নয় বছর আগেই নবান্নকে জেলাস্তরে নিয়ে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এবার সেই কায়দায় কার্যত গ্রাম ও শহরবাসীদের কাছেও প্রশাসন পৌঁছে যাবে বলেই মনে করা হচ্ছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

মুখ্যমন্ত্রীর কথায় তাই, গ্রামে গিয়ে খাটিয়ায় বসে সরকারি প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা আমজনতার সামনে তুলে দিতে বলা হয়েছিল। এজন্যই ‘দুয়ারে সরকার’ নামে নয়া কর্মসূচির রূপরেখা প্রস্তুত করেছে রাজ্য সরকারের পরিকল্পনা, পরিসংখ্যান ও কর্মসূচি কার্যকরী দপ্তর। সেইসঙ্গে তারা এব্যাপারে জেলায় জেলায় নির্দেশিকা পাঠিয়েছে বলেও জানা গেছে।

জানা গেছে, সেই নির্দেশিকায় উল্লেখ আছে, রাজ্য সরকারের নাগরিক পরিষেবা অধিকার আইন-২০১৩ অনুসারে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নাগরিক পরিষেবা ও বিভিন্ন প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা প্রদান করতে হবে। আর তাই এবার দুয়ারে সরকার কর্মসূচি চালু করা হচ্ছে। এই কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে করতে শীর্ষ আধিকারিকদের নিয়ে রাজ্যস্তরে অ্যাপেক্স কমিটি এবং টাস্ক ফোর্স গঠন করা হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

সেইসঙ্গে জেলা, মহকুমা ও ব্লক স্তরে টাস্ক ফোর্স গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে। ১লা ডিসেম্বর থেকে ৩১শে জানুয়ারি পর্যন্ত চারটি ধাপে ক্যাম্প করে কর্মসূচি পালন করা হবে। সেখানে সংশ্লিষ্ট ক্যাম্প থেকে খাদ্যসাথী, স্বাস্থ্যসাথী, কাস্ট সার্টিফিকেট, শিক্ষাশ্রী, তফসিলি বন্ধু, কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, ঐক্যশ্রী ও ১০০ দিনের কাজ এই দশটি প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধার কথা সাধারণ মানুষের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলেও জানান হয়েছে।

যদিও বিধানসভা নির্বাচনের মুখে এই নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তুমুল জল্পনা শুরু হয়েছে। সেক্ষেত্রে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, মুখ ফিরিয়ে নেওয়া ভোটারদের কাছে টানতেই রাজ্য সরকার এমন কর্মসূচি নিয়েছে।যদিও এক্ষেত্রে প্রশাসনের আধিকারিকদের দাবি, এই কর্মসূচির সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!