এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > ‘মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি’ হয়ে গেলেন গোয়েন্দা প্রধান! ভারতের বিরুদ্ধে কি পরিকল্পনা ইমরান খানের?

‘মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি’ হয়ে গেলেন গোয়েন্দা প্রধান! ভারতের বিরুদ্ধে কি পরিকল্পনা ইমরান খানের?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট- পাকিস্তানের অন্তরে যে রাজনৈতিক টানাপোড়েন চলছে এবং সেই টানাপোড়েনের অন্যতম যে ভারতের ক্ষতিসাধন করা সেটা আগে অনেকবারই প্রমাণিত হয়েছে। বারবার সন্ত্রাসবাদি আক্রমণের জবাবে নিজেদেরকে নিরপরাধ বলে দাবি করলেও, আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তানে সন্ত্রাস পালনের প্রমাণ অনেকবারই পাওয়া গেছে। ফলে সারা বিশ্বে সন্ত্রাসবাদি যেকোনো আক্রমণের পেছনে মুসলিমদের দায়ী করা হয়েছে। কিন্তু সেক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট জাতির গায়ে রাজনৈতিক রঙ না লাগিয়ে আসল সমস্যার জায়গাটা খুঁজে দেখা বোধ হয় সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সম্প্রতি পাকিস্তানে সন্ত্রাস পালনের এমনই কিছু প্রমাণ দেখে চমকে যেতে হয়।

ভারতের নথি যেখানে বলছে সৈয়দ মুহাম্মদ ইউসুফ শাহ ওরফে সৈয়দ সালাহউদ্দিন ছিল ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ জঙ্গি নেতা। সেখানে পাকিস্তানের নথিতে সহজেই তা ভোল পালটে হয়ে গেছে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা ISI-এর পদস্থ আধিকারিক। আর তাতেই আরও একবার স্পষ্ট হয়ে গেছে পাকিস্তানে সন্ত্রাস পালনের ছবি। না, এটা কোনো গল্প কথা নয়, সিনেমার প্লটও নয়। একেবারেই সত্যি। সম্প্রতি জানা গেছে, সালাহউদ্দিনের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় ছাড়পত্র রয়েছে। তাই তাকে কোনও চেকপয়েন্টে অহেতুক আটকানো যাবে না। আর এই কথা বলেছেন পাকিস্তানের ডিরেক্টর তথা কমান্ডিং অফিসার ওয়াজাহাত আলি খান। তার সই করা একটি চিঠি তার প্রমাণ। সেই চিঠিতে লেখা হয়েছে, তাঁর যাতায়াতের টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজারটিকে সুরক্ষা বিধির অনুমোদন দেওয়া আছে। তিনি এই বিভাগের আধিকারিক। তাই তাকে অহেতুক চেক পয়েন্টে আটকানো যাবে না।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

ফলত এই চিঠিই পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কাজ করার দাবিতে ভুল প্রমাণ করে দিয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য গত জুন মাসে ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (FATF) পাকিস্তানকে পরবর্তী বৈঠক পর্যন্ত সময়সীমা দিয়েছে। শুধু তাই নয়, পাকিস্তানকে অ্যাকশন প্ল্যান মেনে চলার জন্যও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারপরেও পাকিস্তানের এই পদক্ষেপ যথেষ্ট বিতর্ক তৈরি করবে বলেই মনে করা হচ্ছে। ফলে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের মনোভাব নিয়ে আবারও প্রশ্ন উঠছে।

অন্যদিকে, পাকিস্তানের গোয়েন্দা অধি দপ্তরের নতুন নথিতে বলা হয়েছে, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হিজবুল মুজাহিদিনের প্রধান এই সৈয়দ সালাহউদ্দিন, সে আইএসআই-র সঙ্গেও কাজ করছে। শুধু তাই নয়, হিজবুল ছাড়াও, সৈয়দ সালাহউদ্দিন ইউনাইটেড জিহাদ কাউন্সিলেরও প্রধান বলে জানা গেছে। ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা তাকে মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় তালিকাভুক্ত করছে। সেই সঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর তাকে গ্লোবাল টেরোরিস্ট হিসাবে নাম দিয়েছে। যদিও সালাহউদ্দিন একে পাকিস্তানের প্রতি শত্রুতা প্রকাশের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতের যৌথ পদক্ষেপ বলে জানিয়েছেন বলে জানা গেছে

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!