এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > মন্ত্রীত্ব ছেড়ে শুভেন্দু দূরত্ব বাড়ালেও বড়সড় পদক্ষেপে মমতা শুরু করলেন কাছে টানার প্রক্রিয়া?

মন্ত্রীত্ব ছেড়ে শুভেন্দু দূরত্ব বাড়ালেও বড়সড় পদক্ষেপে মমতা শুরু করলেন কাছে টানার প্রক্রিয়া?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  প্রায় দুই দিন হল তিনি মন্ত্রিত্ব পদ ছেড়ে দিয়েছেন। পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারী সঙ্গে থাকা পাইলট কার স্বাভাবিক নিয়মেই তার কাছ থেকে চলে গিয়েছে। এমনকি সমস্ত নিরাপত্তারক্ষীও ত্যাগ করেছেন নন্দীগ্রামের তৃণমূল বিধায়ক। কিন্তু শুভেন্দু অধিকারী নিজের নিরাপত্তা রক্ষী ত্যাগ করার কথা জানিয়ে দিলেও, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসন কিন্তু এই ব্যাপারে নমনীয় মনোভাব পোষণ করছে। জানা গেছে, ইতিমধ্যেই জেলা পুলিশের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, শুভেন্দু অধিকারীর সুরক্ষা আগের মতই বলবত থাকবে।

অর্থাৎ তিনি দলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়ে নিরাপত্তারক্ষী ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বললেও, তার নিরাপত্তারক্ষী যে প্রত্যাহার করা হচ্ছে না, তা কার্যত স্পষ্ট। আর এখানেই গুঞ্জন তৈরি হয়েছে, তাহলে কি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষী রেখে তাকে কার্যত কাছে টানার বার্তা দিলেন! তিনি শুভেন্দুবাবুকে বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করলেন যে, এখনও সময় আছে, শুভেন্দু অধিকারী যেন দলে সক্রিয় হয়। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসন শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষী রেখে তার প্রতি নমনীয় মনোভাব পোষণ করলেও, শুভেন্দুবাবু এই ব্যাপারে কি পদক্ষেপ গ্রহণ করেন, এখন সেটাই দেখার বিষয় রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের কাছে।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, আপাতত শুভেন্দু অধিকারীর কোনো সুরক্ষা প্রত্যাহার করা হচ্ছে না। তিনি একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। তাই রাজ্য পুলিশ তাকে আগের মতোই সুরক্ষা দেবে। এদিন এই প্রসঙ্গে পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার সুনীল যাদব বলেন, “শুভেন্দু অধিকারীর সুরক্ষার বিষয়ে স্টাটাস কুয়ো অর্থাৎ স্থিতাবস্থা বজায় রাখা হয়েছে। আগেও তার যে সুরক্ষা ছিল, এখনও সেই রকমই আছে।”

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দলে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা না পাওয়ার পর থেকেই ক্রমশ দল এবং সরকারের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখতে দেখা যাচ্ছিল রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাকে। তবে এতকাল অরাজনৈতিক সভার মধ্য দিয়ে তিনি বিভিন্ন বার্তা দিলেও সেভাবে মন্ত্রী থেকে পদত্যাগ করতে দেখা যায়নি তাকে। কিন্তু সাম্প্রতিককালে তিনি মন্ত্রী থেকে পদত্যাগ করেছেন। এমনকি তার কাছ থেকে নিরাপত্তারক্ষী প্রত্যাহার করার কথা জানিয়ে আবেদন করেছেন প্রশাসনকে। কিন্তু তার মন্ত্রী পদ থেকে পদত্যাগের ইস্তফাপত্র গৃহীত হলেও, তার নিরাপত্তারক্ষী এখনই প্রত্যাহার করতে রাজি নয় প্রশাসন।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এক্ষেত্রে শুভেন্দু অধিকারীকে গুরুত্বপূর্ণ বলে তার নিরাপত্তারক্ষী রেখে কার্যত তার প্রতি নমনীয় মনোভাব পোষণ করার চেষ্টা করল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। অর্থাৎ শুভেন্দু অধিকারীর গুরুত্ব অনুভব করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে দলের সক্রিয় করার বার্তা দিয়ে তার নিরাপত্তারক্ষী বজায় রাখার চেষ্টা করলেন। কিন্তু এতে শুভেন্দু অধিকারীর মানভঞ্জন হবে কিনা, তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে।

একাংশ বলছেন, শুভেন্দু অধিকারীর গুরুত্ব ভালই অনুভব করতে পারছে তৃণমূল কংগ্রেস‌। তাই তার সঙ্গে বারবার আলোচনায় বসার ইচ্ছা প্রকাশ করা হচ্ছে। কিন্তু এই ব্যাপারে যদি শুভেন্দু অধিকারী রাজি না হন, তাহলে লাভের লাভ কিছুই হবে না। ইতিমধ্যেই সৌগত রায়ের মত প্রবীণ তৃণমূল সাংসদ বারবার শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে আলোচনা করেছেন। কিন্তু তার পরেও তিনি মন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন, তার সঙ্গে দলের দূরত্ব ক্রমশ বাড়ছে।

তবে এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসন সরাসরি শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষী প্রত্যাহার না করে কার্যত তাকে কাছে টানার বার্তা দিতে চাইল বলেই মনে করা হচ্ছে। কিন্তু এই ব্যাপারে শুভেন্দু অধিকারীর পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। আর যদি প্রশাসনের এই নির্দেশকে উপেক্ষা করে তিনি নিরাপত্তারক্ষী ফেরত পাঠান, তাহলে তার দলে সক্রিয় হওয়া কার্যত বিশবাঁও জলে চলে যাবে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এখন প্রশাসনের পক্ষ থেকে শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষী বজায় রাখার কথা জানিয়ে দেওয়া হলেও, এই ব্যাপারে কি পদক্ষেপ নেন তৃণমূল কংগ্রেসের এই শীর্ষ নেতা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!