এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > মন্ত্রীদের নাম চূড়ান্ত হলেও দপ্তর নয়! মমতার প্রধান সেনাপতি কে? কার ভাগ্যে কোন দায়িত্ব?

মন্ত্রীদের নাম চূড়ান্ত হলেও দপ্তর নয়! মমতার প্রধান সেনাপতি কে? কার ভাগ্যে কোন দায়িত্ব?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আজ সোমবার গঠিত হতে চলেছে রাজ্য মন্ত্রিসভা। বেলা 11 টার সময় কারা কারা মন্ত্রী হচ্ছেন, সেই ব্যাপারটি পরিষ্কার হয়ে যাবে। ইতিমধ্যেই একটি তালিকা সামনে এসেছে। যেখানে পুরনো এবং নতুনের সংমিশ্রণে এবারের মন্ত্রিসভা গঠন হতে চলেছে, তা একপ্রকার নিশ্চিত। তবে তৃতীয় তৃণমূল সরকারের মন্ত্রিসভায় কারা কারা জায়গা পাচ্ছেন, সেই বিষয়টি নিশ্চিত হলেও, কোন দপ্তর কাকে দেওয়া হচ্ছে, তা এখনও পর্যন্ত জানা যায়নি। যা নিয়ে নানা মহলে চর্চা শুরু হয়েছে।

কোন বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক কোন দপ্তর পাবেন, তা নিয়ে রীতিমত বিশ্লেষণ শুরু হয়েছে প্রশাসনের অন্দরে। বলা বাহুল্য, শুধু মন্ত্রী হলেই হবে না। দপ্তর অনুযায়ী সেই মন্ত্রিত্বের কদর কতটা, তা অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে যায়। এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর বণ্টনের ক্ষেত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কার প্রতি কতটা ভরসা রাখছেন, তাও নিশ্চিত হয়ে যায় বিশেষজ্ঞদের কাছে। তবে এখনও পর্যন্ত মন্ত্রীদের নাম সামনে আসলেও তাদের দপ্তর কি হতে চলেছে, তা জানা যায়নি। যার ফলে কৌতুহল ক্রমশ বাড়ছে গোটা রাজ্যজুড়ে।

তবে নবান্নের প্রশাসনিক কর্তা ব্যক্তিদের অন্দরমহলে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে অন্য কথা। একাংশের মতে, আগে যারা মন্ত্রী ছিলেন তারা অত্যন্ত অভিজ্ঞতার সহকারে কাজ করেছেন। ফলে নতুন যদি কাউকে সেই দপ্তরের মন্ত্রী করা হয়, তাহলে আধিকারিকদের কাজ করতে এবং মানিয়ে নিতে অনেকটা সমস্যা হতে পারে। তাই পুরনো ব্যক্তিকেই তাদের দপ্তরের মন্ত্রী করা হোক। রাজ্য মন্ত্রিসভার কোন দপ্তর কার কাছে যাবে, তার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই মন্ত্রী কারা কারা হচ্ছেন সেই বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে গেলেও, কোন দপ্তর কার কাছে যাচ্ছে, তা এখনও পর্যন্ত পরিষ্কার নয়।

বিশ্লেষকরা বলছেন, তৃতীয়বারের জয় তৃণমূল নেত্রীর কাছে খুব একটা সহজ ছিল না। বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করতে গিয়ে তৃণমূল কত আসন পাবে, তা নিয়ে দলের অন্দরেই তৈরি হয়েছিল সংশয়। অবশেষে জনতা জনার্দনের বিপুল সমর্থন নিয়ে দু’শোর বেশি আসন পার করে রাজ্যে ক্ষমতায় এসেছে ঘাসফুল শিবির। আর এই পরিস্থিতিতে মানুষের মতামতকে মর্যাদা দিয়ে মন্ত্রিসভা এমন করে গঠন করতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, যাতে তা নিয়ে কোনো রকম প্রশ্ন না ওঠে।

এমনকি তৃতীয় তৃণমূল সরকারের মন্ত্রিসভায় যাতে সকলে খুশি হন এবং কাজ যাতে আরও ত্বরান্বিত গতিতে এগোয়, তার জন্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চেষ্টা করবেন বলে মনে করা হচ্ছে। সেদিক থেকে পুরনো বেশ কিছু মুখকে যেমন মন্ত্রিসভায় জায়গা দেওয়া হয়েছে, ঠিক তেমনই এসেছে বেশ কিছু নতুন মুখ। অভিজ্ঞতা এবং নতুনের সংমিশ্রণে দপ্তর বন্টন এখন যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, তা একপ্রকার নিশ্চিত। তবে তৃতীয় তৃণমূল সরকারের মন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পর কোন মন্ত্রী কোন দপ্তর পাচ্ছেন, সেদিকেই লক্ষ্য থাকবে সমগ্র রাজ্যবাসীর।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!