এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মোদী-শাহকে সোশ্যাল মিডিয়ায় হিংসাত্মক আক্রমণের জের, জেল হেফাজত যুবকের

মোদী-শাহকে সোশ্যাল মিডিয়ায় হিংসাত্মক আক্রমণের জের, জেল হেফাজত যুবকের



সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন, জাতীয় নাগরিক পঞ্জী এবং জাতীয় জনসংখ্যা রেজিস্টার নিয়ে ইতিমধ্যে দেশজুড়ে বিক্ষোভের ঝড় বয়ে যাচ্ছে। পুঞ্জীভূত ক্ষোভ ক্রমশ আগ্নেয়গিরির আকার ধারণ করেছে সারা দেশজুড়ে। মিছিলের মধ্যে থেকে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও জাতীয় নাগরিকপঞ্জি নিয়ে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে গর্জে উঠছে দেশের সাধারণ মানুষ, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া থেকে শুরু করে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের একাংশ থেকে রাজনৈতিক অবিজেপি দলগুলি। তবে এনআরসি আন্দোলনে মুখ্য বিরোধিতা পালন করছে পশ্চিমবঙ্গ। আর তার সাথে আরেকটি নাম উঠে এসেছে সেটি হলো কেরল।

তবে এদিন কর্নাটকের একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। কর্নাটকের দক্ষিণ কন্নড় জেলার পেরুবাই এলাকা থেকে এদিন এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে হিংসা মূলক হুমকি দেওয়ার অপরাধী সে, শুধু তাই নয়- ওই যুবক সোশ্যাল মিডিয়াতেও হিংসা ছড়াচ্ছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। যুবকের নাম আনোয়ার। পুলিশের অভিযোগ, শুধুমাত্র আনোয়ার রাজনৈতিক ভাবে হুমকি দিয়েছে তা নয়। হোয়াটসঅ্যাপেও সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক বক্তব্য ছড়িয়েছে।

পুলিশ হোয়াটসঅ্যাপের বক্তব্যগুলোকে ট্র্যাক করেই আনোয়ারকে ধরতে পেরেছে তার গ্রামের বাড়ি থেকে বলে জানা গেছে। পুলিশের পক্ষ থেকে জানা গেছে, আনোয়ার ফেসবুকের নিয়মিত লেখক। তবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আনোয়ার নিয়মিত বিরোধিতা করে গেছে প্রতিনিয়ত ফেসবুকে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর বিরুদ্ধে আনোয়ার লেখে যে, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এর ফলে যদি মুসলমানদের কোন ক্ষতি হয়, তাহলে মোদি এবং শাহের প্রাণসংশয় হবে। শুধু তাই নয়, ভয়েস বার্তাটিতেও যথেষ্ট হিংসার পরিচয় পাওয়া গেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আনোয়ার ধরা পড়েছে গত 6 জানুয়ারি। সূত্রের খবর, আনোয়ার পেরুবাই এর বাসিন্দা হলেও তিনি চাকরি করতেন ইউরোপে। বছরের অধিকাংশ সময় তিনি ইউরোপেই থাকতেন। সোমবার গভীর রাতে তাঁর গ্রামের বাড়ি থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় আনোয়ারের বার্তা ভাইরাল হয়ে যাবার পর তা নিয়ে জনৈক ব্যক্তি থানায় গিয়ে অভিযোগ জানায় আনোয়ারের বিরুদ্ধে। তারপরেই পুলিশের এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গেছে। দ্রুত আনোয়ারকে মঙ্গলবার আদালতে তোলা হলে, তাঁকে সাত দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে কোর্ট।

ইতিমধ্যে দেশজুড়ে এনআরসি কার্যকর করা নিয়ে যে বিলটি পাস হয়েছে, তা নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে। বিরোধীরা শুধু নয়, দেশজুড়ে আন্দোলন চালাচ্ছে সাধারণ মানুষ। বিভিন্ন জায়গায় তীব্র বিক্ষোভ চলছে। অন্যদিকে, রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, নতুন নাগরিকত্ব আইন এবং প্রস্তাবিত নাগরিক পঞ্জির বিরুদ্ধে লাগাতার আন্দোলনের প্রভাব পড়েছে কেন্দ্রীয় মহলে। ইতিমধ্যে বিজেপি বিরোধী দলগুলি রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সাইনের পরে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এর বিরোধিতায় সরব হয়। সমগ্র পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে দেশের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!