এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বামেদের পোস্টার বয়ের মুখে এবার মোদী-নীতীশের প্রসংসা, জল্পনা তুঙ্গে !

বামেদের পোস্টার বয়ের মুখে এবার মোদী-নীতীশের প্রসংসা, জল্পনা তুঙ্গে !



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট বামপন্থীদের পোস্টার বয় বলা হয় তাকে। তরুণ তুর্কি এই বাম নেতার বিজেপি বিরোধী নানা মন্ত্যব্য গোটা দেশজুড়ে শোরগোল সৃষ্টি করেছিল। নানা বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলের অন্দরমহলে কানাইয়া কুমারের প্রতিবাদ ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। আর এবার বিজেপি বিরোধীতার অন্যতম মুখ বামেদের পোস্টার বয় হিসেবে পরিচিত কানাইয়া কুমারের গলায় শোনা গেল নরেন্দ্র মোদী এবং নীতীশ কুমারের প্রশংসা। অনেকে বলছেন, এ আসলে ভূতের মুখে রাম নাম। তার মত বামেদের তরুণ তুর্কি মুখ এভাবে মোদি এবং নীতীশ কুমারের প্রশংসা করার তীব্র জল্পনা ছড়িয়ে পড়েছে। কেন হঠাৎ করেই তার মুখ থেকে মোদি এবং নীতীশ কুমারের প্রশংসা শোনা গেল?

 

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত 2009 সালের লোকসভা নির্বাচনে সিপিআইয়ের টিকিটে বিহারের বেগুসারাই থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন কানাইয়া কুমার। বিজেপির বিরুদ্ধে তার মন্তব্য নিঃসন্দেহে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল গোটা দেশজুড়ে। এনডিটিভির মত অনেক সংবাদমাধ্যম সেই কানহাইয়া কুমারের প্রচার করতে শুরু করেছিল। কিন্তু নির্বাচনের ফলাফলে তাকে পরাজিত হতে হয়। পরবর্তীতে বিহার বিধানসভা নির্বাচনেও দাড়ানো করা যেতে পারে কানাইয়া কুমারকে। কিন্তু তার আগেই বিহারের নির্বাচনী প্রচারে নামার আগে নরেন্দ্র মোদী এবং নীতীশ কুমারের এই প্রশংসা নিঃসন্দেহে বামেদের অনেকটাই অস্বস্তিতে ফেলে দেবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

 

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু ঠিক কি বলেছেন কানাইয়া কুমার? জানা গেছে, এদিন এক সাক্ষাৎকারে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের প্রশংসা করে তিনি বলেন, “নীতীশ কুমার ক্ষমতায় আসার পর বিহারের পরিস্থিতি অনেক বদলেছে। গোটা বিশ্বে নীতীশ কুমারের কাজের প্রশংসা হয়েছে। রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলেন তিনি। ওনার দ্বারা দেওয়া মহিলাদের সংরক্ষণ, সাইকেল বিলি কাজে দিয়েছে।” আর এরপরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রশংসা করতে দেখা যায় কানাইয়া কুমারকে। এদিন তিনি বলেন, “নরেন্দ্র মোদির রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন নেই। তিনি যেভাবে সরকারি প্রকল্পগুলোকে সামনে এনেছেন, সেটা প্রশংসার যোগ্য।

নরেন্দ্র মোদির বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রকল্পের বিরোধিতা কেউ করতে পারবে না। নরেন্দ্র মোদী প্রকল্পগুলোকে খুব ভালোভাবে মানুষের সামনে তুলে ধরেছেন। আর এটা প্রশংসার যোগ্য।” সব মিলিয়ে বামপন্থী তরুণ তুর্কি মুখ বলে পরিচিত কানাইহা কুমারের মুখ থেকে নীতীশ কুমার এবং নরেন্দ্র মোদির স্তুতিবাক্য শুনতে পাওয়ায় তীব্র জল্পনা তৈরি হচ্ছে। তাহলে কি তিনি এবার বিজেপিতে যোগদান করতে চলেছেন? এখন তা নিয়ে নতুন করে গুঞ্জন শুরু হয়েছে জাতীয় রাজনীতিতে। তবে বিহারের বিধানসভা নির্বাচনের আগে যদি কানাইয়া কুমারের এই বিজেপিস্তুতি বামপন্থীদের চাপে ফেলে দেয়, তাহলে ভোটবাক্সে বিজেপি ব্যাপক সাফল্য পাবে বলেই দাবি বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!