এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিধায়ককে এলাকা ছাড়া করার বিক্ষোভ, অস্বস্তিতে তৃণমূল!

বিধায়ককে এলাকা ছাড়া করার বিক্ষোভ, অস্বস্তিতে তৃণমূল!



 

তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব কমছে না কিছুতেই। সামনেই পৌরসভা নির্বাচন। প্রার্থী কারা হবেন, তা নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। তাই এই পরিস্থিতিতে সেই প্রার্থী নিয়ে যে দ্বন্দ্ব তৈরি হবে, তা কারোরই অজানা নয়। কিন্তু প্রার্থী ঘোষণার আগেই যেভাবে দলের কার্যালয়ে দলের বিধায়ককে আটকে রেখে বিক্ষোভ দেখালেন নেতাকর্মীরা, তা নিঃসন্দেহে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করল। সূত্রের খবর, বুধবার বিকেলে দিল্লির ঘটনা নিয়ে ভাতারে একটি বিক্ষোভ কর্মসূচি করে তৃণমূল কংগ্রেস। যেখানে দুপুর থেকেই স্থানীয় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত হতে শুরু করেন।

জানা যায়, এদিন দীর্ঘদিন পর একসাথে তৃণমূলের এই মিছিলে দেখা যায়, প্রাক্তন বিধায়ক বনমালী হাজরা এবং পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ মানগোবিন্দ অধিকারীকে। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে সেই কর্মসূচিতে উপস্থিত হওয়ার পরই তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মন্ডলকে ঘিরে দলের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। অভিযোগ, টিকিট নেওয়ার জন্য স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মন্ডল অনেকের কাছ থেকে কাটমানি নিচ্ছেন। আর তার প্রতিবাদেই এদিন বিধায়ককে কাছে পেয়ে রীতিমতো বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। আর দলের কর্মীদের বিক্ষোভের হাত থেকে বাঁচতে এদিন দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে ঢুকে পড়েন সুভাষবাবু।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

 

 

এদিন এই প্রসঙ্গে তৃণমূল কর্মী শেখ মফিজুল হক বলেন, “পঞ্চায়েতের টিকিট দেওয়া থেকে অঞ্চল সভাপতি করার জন্য বিধায়ক কাটমানি নিয়েছেন। দীর্ঘদিন আমরা চুপ ছিলাম। কিন্তু কলকাতার সভায় ডাক না পাওয়া নিয়ে ভাতারের তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা চুপ থাকতে পারেননি। এরকম চললে বিধায়ককে ভাতারে ঢুকতেই দেব না।” এদিকে এই ব্যাপারে তৃণমূলের পঞ্চায়েত সমিতির কর্মদক্ষ মানগোবিন্দ অধিকারী বলেন, “সবাই কলকাতার সভায় গেল। অথচ আমার অঞ্চলের সভাপতি ও প্রধান ডাক পেল না। এরপরেও কি এলাকার কর্মী-সমর্থকদের ক্ষোভ হবে না। কেন ডাক এল না, সেই জবাব তো বিধায়ককে দিতে হবে।”

একইভাবে বর্তমান বিধায়কের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন প্রাক্তন বিধায়ক বনমালী হাজরাও। যদিও বা বিক্ষোভের কথা অস্বীকার করেছেন তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মন্ডল। এদিন তিনি বলেন, “আমি ঘরে ছিলাম। বাইরে কি হয়েছে, বলতে পারব না। যেসব অভিযোগ তোলা হচ্ছে, তা ঠিক নয়।” সব মিলিয়ে এবার তৃণমূল বিধায়ককে ঘিরে বিক্ষোভ রীতিমতো চাঞ্চল্য তৈরি করেছে রাজ্যে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!