এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মিম কি সত্যিই তাহলে বিজেপির বি টিম? বিজেপি সাংসদ তো সেই কথাই বলছেন

মিম কি সত্যিই তাহলে বিজেপির বি টিম? বিজেপি সাংসদ তো সেই কথাই বলছেন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বাংলার বিধানসভা নির্বাচনে বেশ কয়েক বছর ধরে দেখা গেছে, রাজ্যের সংখ্যালঘু ভোটব্যাংক কিন্তু রাজ্যের শাসকদল ত্ররীণমূলের ভোটব্যাংকের একটা বড় অংশ। কিন্তু একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগেই তৃণমূলের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলে বাংলায় সংখ্যালঘু ভোট ব্যাংকে ভাঙন ধরাতে রাজ্যে এসে উপস্থিত হয়েছে আসাদউদ্দিন ওয়েইসির দল মিম। বিরোধীরা অবশ্য মিমকে গেরুয়া শিবিরের বি টিম হিসেবে ব্যাখ্যা করেন বরাবরই।

মিম অবশ্য বরাবরই এই ব্যাখ্যার বিরোধী। কিন্তু এবার বিজেপির পক্ষ থেকেই জানিয়ে দেওয়া হল আসাদউদ্দিন ওয়েইসির দল মিম আসলে তাঁদেরকেই অর্থাৎ বিজেপিকে সাহায্য করার জন্যই রাজনীতিতে এসেছে। বিহারের পর বাংলা এবং উত্তরপ্রদেশেও গেরুয়া শিবিরকে তাঁরা সাহায্য করবেন বলে দাবী করা হয়েছে। আর এই দাবী শোনা গেছে বিতর্কিত বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজের গলায়। প্রসঙ্গত, সদ্যই বিহারে সাফল্য পেয়েছে আসাদুদ্দিন ওয়েইসির দল মিম।

তারপরেই মিম এর পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছিল, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় তাঁরা ভাগ নেবে এবং 22 এর নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশে তাঁরা লড়াই চালাবে। ইতিমধ্যেই বাংলায় ভোটে অংশ নিতে ছোট ছোট দলগুলোর সঙ্গে জোট বাঁধার চেষ্টা চালাচ্ছে মিমের সুপ্রিমো আসাদুদ্দিন ওয়েইসি। যেমন মিমের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে বাংলার ফুরফুরা শরীফের পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকির সঙ্গে আলোচনা চালানো হয়েছে। এদিকে মিম সুপ্রীমো অবশ্য মুখে বলে চলেছেন, বিজেপির হিন্দুত্ববাদী রাজনীতির প্রতিবাদ করার জন্যই নির্বাচনে নামছেন তিনি।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু উত্তরপ্রদেশ কিংবা বাংলায় মিমের উপস্থিতি বিরোধীদের মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ালেও কিন্তু মোটেই গেরুয়া শিবিরকে চিন্তায় ফেলছে না বলেই জানা যাচ্ছে। আর এবার উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ স্পষ্ট করে জানিয়ে দিলেন মিমের সাহায্যেই তাঁরা বিহারে জয়লাভ করেছেন এবং উত্তর প্রদেশ ও বাংলাতেও করবেন। যথারীতি বিজেপির সাংসদের এই ঘোষণা সামনে আসার পরেই তুমুল জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। সামনেই বাংলার বিধানসভা নির্বাচন আর এই নির্বাচনে ভোট কাটাকাটির অংকে নিজেদের সুবিধাই দেখছে গেরুয়া শিবির।

সেক্ষেত্রে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইতিমধ্যেই অভিযোগ তুলেছেন বিজেপির সঙ্গে মিমের আঁতাত আছে বলে। অন্যদিকে তৃণমূল ইতিমধ্যেই মিমের সংগঠনেও ভাঙন ধরিয়েছে। মিমের বেশ কিছু নেতা শাসক দলে যোগদান করেছেন। এমনকি মিমের আস্ত যুব সংগঠন সামিল হয়ে গিয়েছে তৃণমূলে। তবে বিরোধীদের ওঠা মিমকে নিয়ে অভিযোগ যে কার্যত সত্যি, তা কিন্তু বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজের বয়ানে প্রমাণ হয়ে গেল। আপাতত দেখার, মিম এর পক্ষ থেকে এই বয়ান মেনে নেওয়া হয় নাকি পাল্টা কিছু বলা হয়!

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!