এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মিড-ডে-মিল এর দায়ভার থেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের অব্যাহতি চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হতে চলেছে শিক্ষা ঐক্য মুক্ত মঞ্চ

মিড-ডে-মিল এর দায়ভার থেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের অব্যাহতি চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হতে চলেছে শিক্ষা ঐক্য মুক্ত মঞ্চ



মিড-ডে-মিল এর দায়ভার থেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের অব্যাহতি চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হতে চলেছে শিক্ষা ঐক্য মুক্ত মঞ্চ। এমনটাই এদিন জানা গেছে শিক্ষা ঐক্য মুক্ত মঞ্চের শীর্ষ নেতা মাইদুল ইসলামের কাছ থেকে।

রাজ্যের স্কুলের পাঠরত কচিকাঁচাদের পাতে দু মুঠো খাবার তুলে দেবার জন্য সরকারের তরফ থেকে নেওয়া হয়েছে মিড ডে মিলের ব্যাবস্থা করা হয়। প্রাথমিক স্কুলে যে মিড ডে মিল দেওয়া হয় তাতে প্রাথমিক প্রধান শিক্ষকের উপর তার আর্থিক দায়ভার এসে পরে।ফলে পাঠন পাঠান বন্ধ রেখে প্রধান শিক্ষকদের তার পাই পয়সার হিসাব রাখতে হয়। এদিকে সেই মিড ডে মিলের পরিচালনায় আছে স্বনির্ভর গোষ্ঠী। আর সেই স্বনির্ভর গোষ্ঠী ঠিক হয় বিডিও অফিস থেকে। এতে স্কুল কতৃপক্ষ বা প্রধান শিক্ষকদের কোনো হাত থাকে না। অথচ চালের হিসাব আর এর আর্থিক দায়ভার তা সম্পূর্ণ পরে প্রধান শিক্ষক অথবা টিচার ইন চার্জ এর উপর।

আর শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের তরফ থেকে যে কারণে মহামান্য হাইকোর্টে মামলা করা হলো তা হলো শিক্ষকরা আথিক দায়ভার থেকে মুক্ত হতে চাইছেন। কেননা তাদের মতে সমস্ত কাজটাই যখন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর হাতে রয়েছে তারাই সব করছে তাই এই আর্থিক দায়ভার থেকে মুক্তি দেওয়া হোক শিক্ষকদের।
অন্যদিকে এই নিয়ে মূল অভিযোগ হলো এই আর্থিক দায়ভারের সাথে শিক্ষকদের যুক্ত করার ফলে যেমন একদিকে সারাদিন এই কাজ করতে গিয়ে পাঠন পাঠনের দিকে নজর দিতে পারছেন না তাই পাঠন পাঠনে ক্ষতি হচ্ছে ঠিক তেমনি শিক্ষকদের উপর স্বনির্ভর গোষ্ঠী এবং শাসকদলের নেতারা বহিরাগতদের দিয়ে আক্রমণ করছেন চাপ বাড়াচ্ছেন, যে যা টাকা আছে তা দিতে হবে, ছাত্রসংখ্যা বাড়াতে হবে, কথা না শুনলে,এমনকি সচলের অন্য কোনো বিষয়ে কোনো প্রতিবাদ করতে গেলেও দুর্নীতিতে জড়ানো হচ্ছে,ভয় দেখানো হচ্ছে মুখ বন্ধ রাখার বলেও অভিযোগ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ফলে এই মর্মে মহামান্য হাইকোর্ট এর কাছে আমরা আবেদন জানাচ্ছি যে টিচার ইন চার্জ ,অথবা প্রধান শিক্ষকদের এই আর্থিক দায়ভার থেকে মুক্তি দেওয়া হোক। শিক্ষকরা ঠিক মতো রান্না হচ্ছে কিনা ,কিংবা ঠিক মতো বাচ্চারা খাচ্ছে কিনা তা দেখবেন , কিন্তু কোনো আর্থিক ব্যাপারে সাথে আর যুক্ত থাকবেন না।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!