এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেয়রের বিবাহ-বিচ্ছেদ কান্ডে নতুন মোড়,একে অপরের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ

মেয়রের বিবাহ-বিচ্ছেদ কান্ডে নতুন মোড়,একে অপরের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ



মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং রত্না চট্টোপাধ্যায় -এর বিবাহ বিচ্ছেদ মামলার জল অনেক দিন হল গড়াচ্ছে হাইকোর্টে। ফের একবার মেয়র-এর বিশেষ বান্ধবী বৈশাখী চট্টোপাধ্যায়কে এ মামলা সংক্রান্ত কারণে আদালতে হাজিরা দিতে দেখা গেলো। এদিন শোভনবাবু তাঁর স্ত্রীর আয়ের উৎস এবং খরচা বিষয়ক যাবতীয় তথ্য আদালতে পেশ করার আর্জি জানালেন। কারণ হিসাবে তুলে ধরেছেন কিছু তথ্যকে। তাঁর দাবী,রত্মাদেবী ছেলে মেয়ের পড়াশুনোর জন্য শোভনবাবুর কাছে ৩০ লক্ষ টাকা চেয়েছেন। ওদিকে তিনি ১৫ লক্ষ টাকা ইতিমধ্যেই খরচ করে ফেলেছেন মামলার খরচ হিসাবে। এখানেই প্রশ্নচিহ্ন রেখেছেন তিনি।
মক্কেলের দাবী অনুযায়ী এদিন শোভনবাবুর তরফের আইনজীবী আদালতের কাছে প্রশ্ন রাখলেন যে, রত্না দেবী এতো টাকা কোত্থেকে পেলেন যা দিয়ে তিনি মামলার এই বিরাট অঙ্ক মেটাচ্ছেন? তিনি এ ব্যাপারে ১৫ লক্ষ টাকা যদি খরচ করতেই পারেন তাহলে ছেলেমেয়েদের পড়াশুনো বাবদ ৩০ লক্ষ টাকা দাবী করছেন কেন? এ প্রশ্নের ভিত্তিতে তাঁর আয়ের উৎস সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য এবং নথিপত্র কোর্টে পেশ করার আবেদন করলেন আইনজীবী।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এই আবেদন মুকুল করেছেন বিচারপতি। ১২ জুলাই-এর মধ্যে রত্নাদেবীর আয়ের উৎস এবং খরচাপাতি সংক্রান্ত সমস্ত নথি পেশ করার আদেশ দিল হাইকোর্ট। অর্থাৎ রত্নাদেবীর রোজগার কত,ব্যাঙ্কে কত জমা আছে, গয়নার পরিমান,কত টাকার বিমা করানো আছে,এছাড়া নগধ কত আছে তার সমস্ত খতিয়ান কোর্টে পেশ করতে হবে তাকে। ১৮ জুলাই মেয়র সেসব নথি এবং তথ্য যাচাই করে দেখতে পারবেন। তারপর ৩০ জুলাই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে।
কিন্তু রত্নার দেবীর আইনজীবী শুভাশিস দাসগুপ্ত এই রায়ের বিরুদ্ধে ঘোর আপত্তি প্রকাশ করেন। তিনি দাবী করেন, রত্নাদেবীর আয়ের উৎস সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য জানেন মেয়র। তাকেই একবার শোভনবাবুই বলেছিলেন রত্মাদেবী তাঁর থেকে বেশি রোজগার করেন। তাহলে আবার নতুন করে আয়ের উৎস সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কোর্টকে উত্তক্ত করার মানে কী!
এদিন মেয়রের পক্ষের আইনজীবী অভিযোগে জানান যে, রত্নাদেবী মূল মামলাটি এড়িয়ে যাওয়ার জন্য নানান রকম ষড়যন্ত্র করছেন। নানান ফন্দি এঁটে মামলার শুনানি পিছিয়ে দিতে চাইছেন। এই প্রেক্ষিতে রত্নাদেবীর আইনজীবী অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে দাবী করেন, ছেলেমেয়ের পড়াশোনা বাবদ খরচের জন্য যে টাকা চাওয়া হয়েছে শোভনবাবুর কাছে,তা নিয়ে তাঁরা কোলকাতা হাইকোর্টের দোরগোড়ায় উপস্থিত হয়েছেন। সেই মামলার জট উদ্ধারের পরই বিবাহ-বিচ্ছেদের মূল মামলার শুনানি হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!