এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > জন্ম থেকে বার্ধক্য পর্যন্ত রোগ কাবু করে ফেলার আগেই, কোন বয়সে কোন শারীরিক পরীক্ষা করানো উচিৎ?

জন্ম থেকে বার্ধক্য পর্যন্ত রোগ কাবু করে ফেলার আগেই, কোন বয়সে কোন শারীরিক পরীক্ষা করানো উচিৎ?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আমাদের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার প্রবণতা নেই। হাসপাতাল বা স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে সেই অর্থে আমরা খুব একটা মাথা ঘামাই না! একমাত্র যখন আমরা শারীরিক সমস্যার মুখোমুখি হই, তখনই পড়িমরি করে ছুটি ডাক্তারের কাছে। কিন্তু, ততদিনে অনেক দেরী হয়ে যায়! অনেক সময় গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে যাওয়ার ফলে, ডাক্তারদেরও বিশেষ কিছু করার থাকে না।

তবে, কোনও রোগে আক্রান্ত হওয়ার আগেই যদি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য পরীক্ষা করা হয়, তবে আপনি প্রথম দিকে সম্ভাব্য রোগ সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং এটির চিকিৎসা করা আরও সহজ হবে। বলা ভালো, রোগ এসে আপনাকে কাবু করে ফেলার আগেই – আপনার শারীরিক অবনতি হচ্ছে কিনা তা জেনে আগাম সতর্ক হতে পারবেন। অনেকেই মনে করেন, আমি তো বেশ সুস্থ আছি, তাহলে আমি এই ধরনের পরীক্ষা করাবো কেন?

চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা মনে করেন, আপনি বাইরে থেকে সুস্থ মনে হলেও, অনেক সময় রোগ এসে বাসা বাঁধতে শুরু করে আপনার শরীরে। তখনও এরা কমজোরি থাকায়, এর প্রভাব বাইরে থেকে দেখে বোঝা যায় না। আর তখনই যদি এর চিকিৎসা করা সম্ভব হয়, তাহলে তা আপনার শরীরে বড় ক্ষতি করার আগেই তাকে নির্মূল করা সম্ভব। আর তাই তো এই শারীরিক পরীক্ষার দরকার। এখন প্রশ্ন, কোন বয়সে কোন স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রয়োজন?

জন্ম থেকে ১ বছর বয়স পর্যন্ত – একজন নবজাতকের শারীরিক এবং মানসিক অবস্থা সঠিক কিনা তা দেখতে থাইরয়েড পরীক্ষা করা উচিত। যদি শিশু সম্পূর্ণ সুস্থ থাকে তবে কোনও স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রয়োজন হয় না।

২ থেকে ৩ বছর বয়সের মধ্যে – শিশুটি যখন ২ বছর বয়সী হয়, তখন সে শক্ত খাবার খাওয়া শুরু করে। খাওয়ার ফলে পেটে কৃমি হতে পারে। বা ব্যাকটেরিয়া ছড়িয়ে যেতে পারে। এই বয়সের কোনও শিশুর পেটে ব্যাকটিরিয়া রয়েছে কিনা তা খুঁজে বের করার জন্য একটি মলত্যাগ পরীক্ষা করা যেতে পারে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

৪ থেকে ৫ বছর বয়সী – সন্তানের উচ্চতা, বেধ এবং ওজন সঠিকভাবে বাড়ছে কিনা এটি সম্পর্কে আপনার জানা দরকার। আপনার সন্তানের চোখ এবং দাঁতের স্বাস্থ্যের সম্পর্কেও জানতে হবে। তাই একটি সাধারণ স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা যেতে পারে। এটি কোনও শিশুর মানসিক এবং শারীরিক অবস্থা সঠিক কিনা তা নির্ধারণ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

১০ থেকে ১৪ বছর বয়সের মধ্যে – এই বয়সে শিশুর নিয়মিত পরীক্ষা করা উচিত। কেননা এরপরের সময় থেকেই শিশুর শরীরে বিভিন্ন হরমোনের প্রভাব পড়তে শুরু করে। ফলে, এই সময় নিশ্চিত করা জরুরি শিশুর শরীর আসন্ন পরিবর্তনের জন্য তৈরী কিনা। এই স্বাস্থ্য পরীক্ষায় শিশুর বেড়ে ওঠাতে কিছু ভুল আছে কি না তাও স্পষ্ট হয়ে যায়।

১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সের মধ্যে – কৈশোরে প্রবেশের পরে, তারা শারীরিক এবং মানসিক পরিবর্তনগুলি দেখা যায়। এটি সেই সময় যখন দেহের অঙ্গগুলি বিকাশ এবং আরও বৃদ্ধি পায়। এই বয়সে তাদের মানসিকভাবে সঠিক থাকতে হবে। এছাড়াও এক্স-রে, লিপিড প্রোফাইল, ব্লাড সুগার বা থাইরয়েড পরীক্ষা করাতে হবে। এই সময়ে ঋতুস্রাব শুরু হওয়ার সাথে সাথে কিশোর-কিশোরীদের তাদের যৌন স্বাস্থ্য সম্পর্কে অবহিত করা উচিত।

২০ থেকে ৩৯ বছর বয়সের মধ্যে – এমনকি এই বয়সেও কিছু শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিশেষত মহিলাদের ঋতুস্রাবের সমস্যা হতে পারে। সঠিক সময়ে ঋতুস্রাব হচ্ছে কিনা তা জানতে তাদের পিসিওডি পরীক্ষা করা উচিত। গর্ভবতী হলে রক্তে সুগার, থাইরয়েড, মূত্র পরীক্ষা, থ্যালাসেমিয়া, হিমোগ্লোবিন এবং এইচআইভি পরীক্ষা করা যেতে পারে।

৪০ থেকে ৫০ বছর বয়সের মধ্যে – এই বয়সে বিভিন্ন ধরণের সমস্যা দেখা দিতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, থাইরয়েড, কলস্ট্রাম। তাই নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা উচিত। স্থূলত্ব নিয়ন্ত্রণ করতে হবে, ডায়েট অবশ্যই নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

৫০ বছরেরও বেশি বয়সে – ৫০ বছর বয়সের পরে, আপনি কিছু দীর্ঘস্থায়ী রোগে ভুগতে পারেন। ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কলস্ট্রাম, হাঁপানির মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। সুতরাং, এই জাতীয় রোগগুলি নিয়মিত পরীক্ষা করা উচিত। প্রাণায়াম ও যোগব্যায়ামকে আরও বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত। কারণ ৫০ বছরের পরে শারীরিক দুর্বলতাও বাড়বে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!