এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ম্যারাথন বৈঠকের পর সামনে এল সমাধান সূত্র – ভাঙড় ইস্যুতে নতুন মোড়

ম্যারাথন বৈঠকের পর সামনে এল সমাধান সূত্র – ভাঙড় ইস্যুতে নতুন মোড়



দীর্ঘদিন ধরে ভাঙড়ে পাওয়ার গ্রীড নিয়ে সাপ-বেজির লড়াই চলছিল রাজ্য সরকার এবং গ্রীড বিরোধী আন্দোলনকারীদের মধ্যে। এতোদিন পর তার একটা রফা সূত্র বের করা গেল। গতকাল আলিপুরে জেলা প্রশাসনের ডাকা ম্যারাথন বৈঠকে অবশেষে ভাঙড় পাওয়ার গ্রীড বিতর্কের জট কাটার সম্ভাবনার হদিশ পাওয়া গেল। জমি কমিটির দাবী মেনে ‘গ্রীড’ কথাটি বাদ দিয়ে আনা হচ্ছে ‘প্রজেক্ট’ শব্দটি। এর জেরে এই প্রকল্পের নতুন নামকরণ হল ‘ভাঙড় পাওয়ার প্রজেক্ট’। কিন্তু কেন এই নতুন নামকরণের মাধ্যমেই ভাঙড় ইস্যুর সমাধানের পথ দেখলো প্রশাসন,আসুন জেনে নেওয়া যাক।

আসলে জমি কমিটি এবং তাদের সমর্থনকারী গ্রামের মানুষজন ভাবছিলেন পাওয়ার গ্রীডের অর্থ সেখানে অনেক বিশাল কিছু হচ্ছে। কিন্তু আদতে সেরকম কিছু নয়। এদিনের বৈঠকের মাধ্যমে জমি আন্দোলনকারীরা বুঝে গেছেন যে আর পাঁচটি সাব স্টেশানের মতোই এটি। তার জেরে সমাধানের পথ বের করা গেছে। এমনটাই জানা গিয়েছে প্রশাসনিক কর্তাদের সূত্র থেকে। অন্যদিকে এই প্রকল্পের নতুন নামকরণ হওয়াকে জমি আন্দোলনকারীরা তাঁদের এতোদিনের আন্দোলনের ফলশ্রুতি হিসাবেই গন্য করছেন। এদিনের বৈঠকে প্রশাসনের প্রস্তাব অনুযায়ীই তাঁরা আর পাওয়ার প্রজেক্ট তৈরি হওয়া নিয়ে কোনো রকম বিরোধীতা করবেন না বলেই আশ্বাস দিয়েছেন।

অন্যদিকে,ভাঙড়ে যাঁদের জমির উপর থেকে তার ও টাওয়ার গিয়েছে তাঁদের আর্থিক ক্ষতিপূরণ হিসাবে ২০ কোটি টাকা দেওয়ার একটি আবেদন করা হয়েছে জমি কমিটির তরফ থেকে। এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতো আগামী ১১ আগষ্ট প্রশাসনের তরফ থেকে বৈঠক ডাকা হয়েছে। জেলাশাসক ওয়াই রত্নাকর রাও আশা রেখেছেন,এবার আর নতুন কোনো সমস্যা হবে না ভাঙড়ের প্রজেক্টকে কেন্দ্র করে। অবিলম্বে পাওয়ার প্রজেক্টের কাজ শুরু হবে বলেও জানালেন তিনি। এবং পাশাপাশি আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কাজটি করা হবে বলে ঘোষণা করলে সভায় উপস্থিত সদস্যরা তাতে সম্মতি দেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

উল্লেখ্য,আগেও ভাঙড়ের পাওয়ার গ্রীড ইস্যুর সমাধানকল্পে তিনবার জমি কমিটির সঙ্গে বৈঠকে বসেন প্রশাসনিক কর্তারা। কিন্তু কোনো কোনো ব্যাপারে মতানৈক্য থাকতোই বৈঠকের সদস্যদের মধ্যে। এর জেরে কিছুতেই সমস্যার জট কাটানো যাচ্ছিলো না। তারপর এদিন জমির কমিটির ৪৫ জনের বেশি সদস্যের সঙ্গে প্রশাসনিক কর্তারা বৈঠকে বসেন।

রাজ্যসরকারের তরফ থেকে বৈঠকে হাজির ছিলেব শান্তনু বসু,বারুইপুর পুলিস সুপার অরিজিৎ সিনহা,অতিরিক্ত জেলাশাসক মৃণাল রানো প্রমুখ আধিকারিকরা। দুপুর থেকে সন্ধ্যা অব্দি দফায় দফায় আলোচনা চালানো হয়। বৈঠকে জমি কমিটির মেম্বাররা, ভাঙড়ে দু কিমি অব্দি টাওয়ার বসানোর যে ৮০% কাজ করা হয়ে গেছে, তা অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব দিলে সেটি তৎক্ষণাৎ নাকচ করে দেন প্রশাসনের কর্তারা। পরে অবশ্য তাঁদের সেই প্রস্তাব মেনেও নেওয়া হয়। এখন জমি কমিটির চোখ রয়েছে ১১ আগষ্টের বৈঠকের দিকে। ক্ষতিপূরণ বাবদ তাঁরা ২০ কোটি টাকা পাবেন কিনা প্রশাসনের তরফ থেকে সেটা জানতেই অধীর আগ্রহে প্রতীক্ষা করছেন তাঁরা। এমনটাই জানা যাচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!