এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > মমতাতেই থাক রাজ্যের ক্ষমতা, চান অধিকাংশ রাজ্যবাসী, উঠে এলো সমীক্ষায়

মমতাতেই থাক রাজ্যের ক্ষমতা, চান অধিকাংশ রাজ্যবাসী, উঠে এলো সমীক্ষায়



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গত ২০১১ সালে চৌতিরিশ বছরের বাম শাসনের অবসান ঘটিয়ে মসনদে বসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর পর প্রায় ১০ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। সামনে এগিয়ে এসেছে বিধানসভা নির্বাচন। নির্বাচনের দিনক্ষণ এখনো পর্যন্ত ঘোষিত হয়নি, তবে, নির্বাচনের লড়াই এখন থেকেই শুরু হয়ে গেছে। শাসক দল তৃণমূলের সবচেয়ে বড় প্রতিপক্ষ হয়ে উঠে দাঁড়িয়েছে বিজেপি। গত, ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে অভূতপূর্ব উত্থানের পর রাজ্যের মসনদ দখলে ক্রমাগত তৎপর হয়ে উঠেছে বিজেপি।

এদিকে, একাধিক বিষয়ে রাজ্য সরকারকে বারবার কাঠগড়ায় তুলেছে বিরোধী শিবির। যার মধ্যে আছে দুর্নীতি, গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ, নানান আর্থিক কেলেঙ্কারির মত বিষয়গুলি। আম্ফান দুর্নীতি, টেট দুর্নীতি, সারোদা, নারোদা কেলেঙ্কারি প্রভৃতি নিয়ে জন্মানাসেও একটা ক্ষোভ সঞ্চার করেছে। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের মানুষ কি ভাবছেন? তা জানতে সি ভোটার সংস্থা একটি জনমত সমীক্ষা চালিয়ে ছিল। তার যে রিপোর্ট উঠে এসেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে যে, এখনো পর্যন্ত অধিকাংশ রাজ্যবাসী মুখ্যমন্ত্রীর কাজের উপর সন্তুষ্ট আছেন।

সি ভোটার সংস্থার সমীক্ষা থেকে উঠে এসেছে যে, মুখ্যমন্ত্রীর রাজ্য চালানোর ওপর অত্যন্ত সন্তুষ্ট ৪৩ শতাংশ মানুষ, আংশিক সন্তুষ্ট আছেন ৩২ শতাংশ মানুষ। অর্থাৎ, প্রায় ৭৫ শতাংশ মানুষ সন্তুষ্ট। মুখ্যমন্ত্রীর কাজের উপরে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ২২ % মানুষ। ৩ শতাংশ মানুষ এ বিষয়ে কোনো মতামত দিতে চাননি। বিচার করলে দেখা যাচ্ছে, রাজ্যে এখনো পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীর সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণাই পোষণ করছেন রাজ্যবাসী। এখনো পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীর বিকল্প মুখ হিসেবে আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী আসতে পারেন নি রাজ্যবাসীর মনে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সি ভোটার সংস্থার দল সারা রাজ্য ও দেশে ঘুরে ঘুরে সমীক্ষা চালিয়ে ছিল। দেশের ৫৪৩ টি লোকসভা কেন্দ্রে সমীক্ষা করেছিলেন। ৩০ হাজারেরও বেশি ভোটারের সঙ্গে তারা কথা বলেছিলেন। দীর্ঘ ১২ সপ্তাহ ধরে সমীক্ষা চলেছিল। যে সমীক্ষা থেকে উঠে এসেছে জনপ্রিয়তার দিক থেকে বিচারে মুখ্যমন্ত্রীদের মধ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আছেন ৭ নম্বর স্থানে। ১ নম্বর স্থানে আছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক, তারপর অরবিন্দ কেজরিওয়াল, জগমোহন রেড্ডি, পিনারাই বিজয়ন, উদ্ভব ঠাকরে, ভূপেশ বাঘেল প্রমুখ মুখ্যমন্ত্রীরা।

এই তালিকাতে দেখা যাচ্ছে যে, সাত নম্বর পর্যন্ত স্থান পাননি বিজেপি শাসিত বা বিজেপি সরিক কোন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী রয়েছেন ৮ নম্বরে। অন্যদিকে, বাংলাকে গুজরাট বানানোর দাবি করেছে বিজেপি। কিন্তু, গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী রয়েছেন ১০ নম্বরে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তুলনায় পিছিয়ে রয়েছেন তিনি। জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রীরা হচ্ছেন বিজেপি বিরোধী শিবিরের মুখ্যমন্ত্রী। সবচেয়ে কম জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী তালিকায় আছেন বিজেপি ও বিজেপির শরিক দলের মুখ্যমন্ত্রীরা।

সি ভোটার সংস্থার সমীক্ষকেরা দেশের নানা স্থানে গিয়ে সমীক্ষা চালিয়েছিলেন। তাঁরা বিচার করে দেখেন, জনপ্রিয়তার নিরিখে দেশের কোন মুখ্যমন্ত্রী কত স্থানে আছেন? কেন্দ্রীয় সরকারের কাজে দেশের মানুষ কতটা খুশি? এখনই যদি দেশে লোকসভা নির্বাচন হয়, তবে কোন দলের জেতার সম্ভাবনা বেশি? এই সমস্ত নানা বিষয় নিয়ে সমীক্ষা চালিয়েছেন তাঁরা। সি ভোটার এর সমীক্ষায় যা উঠে এসেছে, তা যথেষ্ট আস্বস্ত করেছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলকে।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!