এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বামফ্রন্ট > মমতার চাপ বাড়িয়ে এবার নিজের এলাকায় ফিরছেন সুশান্ত ঘোষ, জেনে নিন

মমতার চাপ বাড়িয়ে এবার নিজের এলাকায় ফিরছেন সুশান্ত ঘোষ, জেনে নিন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – দীর্ঘকাল বাইরে কাটিয়ে নিজের এলাকা পশ্চিম মেদিনীপুরের গরবেতায় ফিরতে চেয়েছিলেন প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক সুশান্ত ঘোষ। তবে, শাসক দল তৃণমূলের অভিযোগ ছিল, কঙ্কাল কাণ্ডে একসময় গ্রেফতার হওয়া এই সিপিএম নেতা ফের গরবেতাতে ফিরলে, আবার নতুন করে অশান্তি মাথাচাড়া দিতে পারে। রাজ্য সরকারের এই অভিযোগের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন তিনি। সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে গত সোমবার জানানো হলো যে, সুশান্ত ঘোষ গড়বেতায় ফিরতে পারবেন। সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ চাপ বাড়ালো শাসক দল তৃণমূলের। কারণ, এবার নিজের গড়ে ফিরতে চলেছেন একসময়ের দোর্দণ্ডপ্রতাপ সিপিএম নেতা।

প্রসঙ্গত গত ২০১১ সালে রাজ্যের শাসন ক্ষমতার হাতবদলের পর বেনাচাপড়া কঙ্কাল কাণ্ডে গ্রেফতার করা হয়েছিল প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক সুশান্ত ঘোষকে। এরপর ২০১২ সালে তিনি জামিন পেয়েছিলেন। কিন্তু জেলায় তাঁকে ঢুকতে দেয়া হয়নি। আদালত তাঁকে ছাড়পত্র দেয়নি। এরপর, গত সোমবার তাঁকে জেলায় যাবার ছাড়পত্র দিল সুপ্রিম কোর্ট। তাই সামনের মাসের প্রথম সপ্তাহেই নিজের জেলায় ফিরে যেতে পারেন তিনি। দীর্ঘ ৮ বছর বাইরে কাটিয়ে নিজের বাড়ি ফিরতে পারেন তিনি এবারে।

এদিকে গত সেপ্টেম্বর মাসে তিন মাসের জন্য তাঁকে সাসপেন্ড করে সিপিএম নেতৃত্ব, দলবিরোধী কাজের অভিযোগে। এখনও দল থেকে সাসপেন্ড হয়ে আছেন তিনি। একসময় তিনি গরবেতার মুকুটহীন সম্রাট ছিলেন। সিপিএমের হাতে ক্ষমতা চলে যাওয়ার পরে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয় কঙ্কাল কাণ্ডে। জেল থেকে বেরোবার পর তিনি দলের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ রাখেননি দীর্ঘসময় ধরে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এসময় তিনি বই লেখার কাজে মন দেন। লেখেন ‘ বামফ্রন্ট জমানার শেষ দশ বছর ‘ নামের একটি বই। এই বই লেখার কারণে বিতর্ক শুরু হয়। তাঁর বিরুদ্ধে উঠে আসে দল বিরোধী কার্যকলাপের অভিযোগ। তাঁকে দল থেকে বহিষ্কারের সুপারিশ করে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সিপিএম কমিটি। রাজ্য কমিটির কাছে সুপারিশ পাঠায়। এরপর সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রামচন্দ্র ডোম ও আভাস রায়চৌধুরি এক তদন্ত কমিশন গঠন করে তার বিষয়ে তদন্ত করেন।

এই তদন্ত কমিশনের রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে সুশান্ত ঘোষ কে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। তবে তাঁকে দল থেকে থেকে পুরোপুরি বহিষ্কার করা হয়নি। তাঁকে তিন মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছিল। আগামী ডিসেম্বর মাসে সে এই তিন মাসের সাসপেনশনের মেয়াদ শেষ হতে চলেছে। আর এই সময়ে তাঁর বাড়ি ফেরা একটি তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় বলে মনে করছেন অনেকে।

তবে, নিজের বাড়ি ফেরার ব্যাপারে কিছু জানাননি সুশান্ত ঘোষ। সাংবাদিকরা তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি তাদের জানিয়েছেন, ” সবেমাত্র সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশিকা হাতে পেয়েছি। পুরোটা পড়া হয়ে ওঠেনি। তবে জেলায় নিজের বাড়ি গড়বেতায় ফিরতে পারব বলে নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত।” এদিকে আজই তিনি সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছেন। একসময়ের এই দাপুটে নেতা ফের জেলায় ফিরতে পারেন শুনে, আনন্দিত সিপিএম কর্মীরা। তবে তাঁর জেলায় ফেরার খবর চাপ বাড়ালো শাসকদল তৃণমূলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!