এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > মমতার সভার পরদিনই পাল্টা সভার ডাক শুভেন্দুর! তীব্র শোরগোল!

মমতার সভার পরদিনই পাল্টা সভার ডাক শুভেন্দুর! তীব্র শোরগোল!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – এককালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে পূর্ব মেদিনীপুরের সব সময় এক সফর সঙ্গী থাকতে দেখা যেত শুভেন্দু অধিকারীকে। শুধু পূর্ব মেদিনীপুর নয়, যেখানে তৃণমূল কংগ্রেস বিপদে পড়ত, সেখানেই মুশকিল-আসান হিসেবে দায়িত্ব পড়ত সেই শুভেন্দু অধিকারীর উপর। কিন্তু সেই শুভেন্দু অধিকারী এখন তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগ করে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগ দিয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই তিনি বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর তৃণমূলের অন্দরমহলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, এবার খুব তাড়াতাড়ি শাসকদলে ব্যাপক ভাঙ্গন ধরতে পারে।

আর সেই ভাঙ্গন যে শুভেন্দু অধিকারীর খাসতালুক পূর্ব মেদিনীপুর দিয়েই শুরু হতে পারে, সেই ব্যাপারে তীব্র গুঞ্জন তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে শুভেন্দু অধিকারীকে কোণঠাসা করার জন্য পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথিতে সভা করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। যেখানে উপস্থিত হয়েছিলেন সৌগত রায় এবং ফিরহাদ হাকিম। আর তারপর সেই কাঁথিতে পদযাত্রা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রীতিমত চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।

শুধু তাই নয়, কাথার সভা থেকে আগামী 7 জানুয়ারি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নন্দীগ্রামের সভার পরের দিন তিনি পাল্টা সভা করবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দুবাবু। স্বাভাবিকভাবেই তার এই মন্তব্যে এবার সম্মুখ সমরে শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লড়াই শুরু হয়ে যাবে বলেই দাবি করছেন বিশেষজ্ঞরা। একাংশ বলছেন, তৃণমূলের পক্ষ থেকে শুভেন্দু অধিকারীকে গুরুত্ব না দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু তৃণমূলের অনেকেই জানেন যে, মমতা বন্দোপাধ্যায়ের পর যদি দলে দক্ষ ও সাংগঠনিক ব্যক্তিত্ব থেকে থাকে, তাহলে তার নাম শুভেন্দু অধিকারী।

তাই সেই শুভেন্দু অধিকারী এককালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবসময়কার সফরসঙ্গী এবং ঘনিষ্ঠ বৃত্তে থাকলেও, তার সঙ্গে এখন তৃণমূল নেত্রীর আদায়-কাঁচকলায় সম্পর্ক। এখন তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধী পক্ষ ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা। বিজেপি দাবি করছে, শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরেই তৃণমূল ভাঙতে শুরু করবে। আর এই পরিস্থিতিতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগামী 7 জানুয়ারি শুভেন্দু অধিকারীর শক্ত ঘাঁটি নন্দীগ্রামে সভা করতে আসছেন।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অর্থাৎ শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর যাতে তিনি খুব একটা প্রভাব ফেলতে না পারে, তার জন্য এবার সরাসরি ময়দানে নামছেন তৃণমূল নেত্রী। যার পাল্টা ময়দানে নেমে সেই তৃণমূল নেত্রীর বক্তব্যের জবাবে তিনি পরদিনের সভা থেকে জবাব দেবেন বলে জানিয়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী। যার ফলে এখন রাজ্য রাজনীতিতে কার্যত জমজমাট হয়ে উঠেছে দুই নেতা-নেত্রীর এই সভা করার উদ্যোগ।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, তৃণমূল বনাম বিজেপির লড়াইয়ের মাঝেই এবার এই লড়াই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বনাম শুভেন্দু অধিকারীর হয়ে দাঁড়াবে। কেননা যে যাই বলুন না কেন, শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে ইতিমধ্যেই তৃণমূলের একাধিক বিধায়ক এবং সাংসদ বিজেপিতে যোগ দিয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই আগামী দিনে মেদিনীপুর শহরের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামীরা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেবেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আর এই পরিস্থিতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি ময়দানে নামেন, তাহলে তৃণমূলের ভাঙ্গন আটকানো অত্যন্ত কঠিন হয়ে দাঁড়াবে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাই আগামী 7 জানুয়ারী নন্দীগ্রামের মাটি থেকেই শুভেন্দু অধিকারীকে কোণঠাসা করার পরিকল্পনা নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার পাল্টা তার পরদিন তৃণমূল নেত্রীর বক্তব্যের জবাব দিতে এবার ময়দানে নামতে চলেছেন শুভেন্দু অধিকারী। সব মিলিয়ে আগামী নতুন বছর যে রাজনৈতিক ভাবে জমজমাট হয়ে উঠতে চলেছে, সেই বিষয়ে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!