এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শিক্ষা দপ্তর বাস্তুঘুঘুর বাস হয়ে দাঁড়িয়েছে – বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শিক্ষা দপ্তর বাস্তুঘুঘুর বাস হয়ে দাঁড়িয়েছে – বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়



ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মাঝেমধ্যেই মন্ত্রী এবং সচিবদের নিয়ে বিভিন্ন কাজের পর্যালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরকারের কাজে কোনোরকম খামতি যে তিনি বরদাস্ত করবেন না তা বারেবারেই প্রশাসনিক আধিকারিকদের বুঝিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। ভালো কাজে পুরস্কার আর খারাপ কাজে ধমক– সরকারের কাজে গতি বাড়াতে এটিই মুখ্যমন্ত্রীর বড় ইউএসপি।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সরকারের বিভিন্ন দপ্তরকে নিয়ে একটি পর্যালোচনা বৈঠকে উপস্থিত হয়ে প্রথমেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রোশের মুখে পড়তে হল শিক্ষা দপ্তরের বিশেষ সচিব অরুন সেনগুপ্তকে। এদিন তিনি সেই সচিবের উদ্দেশ্যে বলেন, “শিক্ষাদপ্তর বাস্তুঘুঘুর বাসা হয়ে দাড়িয়েছে। শিক্ষামন্ত্রীর কোনো কথা এনারা শোনেন না।” তবে শুধু শিক্ষাদপ্তর নয়, এদিনের বৈঠক থেকে কোলকাতার পুরসভার রাস্তার কাজে মুখ্যমন্ত্রী ক্ষোভপ্রকাশ করেন। আর তার পরে মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় এই কাজে খারাপ আবওহাওয়াকে দায়ী করে দ্রুত কাজ সম্পন্ন করা হবে বলে কথা দেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

পাশাপাশি ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রনে কদিন আগেই পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের বক্তব্যকেই সমর্থন করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বলেন, ” ববি তো ঠিকই বলেছে। এই ব্যাপারে যিনি কাজ করবেন না তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হবে।” এই ডেঙ্গু মোকাবিলায় পুরসভার কাউন্সিলার, পঞ্চায়েত সদস্য এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মীদের বাড়ি বাড়ি যাওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। সূত্রের খবর, বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যে অসাধু রাইসমিল নিয়ে নানা অভিযোগ এসেছিল মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। এদিন সেই ব্যাপারে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে কড়া ব্যাবস্থা নিতে নির্দেশ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা গেছে, এদিন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক অন্য রাজ্যে গিয়ে বিজেপির কাছে আশ্রয় নিলেও এই মিলগুলি রাজ্যের পাওনা 300 কোটি টাকা সরকারকে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করলে মুখ্যমন্ত্রী এর বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিতে রাজ্য পুলিশের ডিজিকে নির্দেশও দেন। এদিকে ভোটের কারনে গ্রামে 100 দিনের কাজে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে তা নিয়েও সকলকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে বলেন মুখ্যমন্ত্রী। এবছর বন্যা হলে সাধারন মানুষের আর যাতে ক্ষতি না হয় তার কারনে তার জন্য রাজ্যের সেচ দপ্তরের সচিব নবীন প্রকাশের কাজে সন্তোষ প্রকাশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানা গেছে, এদিনির বৈঠকে ভবিষ্যত রুপরেখা হিসাবে আগামী কাজের প্রস্তাব জমা দিতে পাঁচ সদস্যের মন্ত্রীগোষ্টীও তৈরি করে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে রয়েছেন পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়,পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, পূর্তমন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস, পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী এবং খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। সব মিলিয়ে রাজ্যের কাজে গতি আনতে সরকারের পর্যালোচনা বৈঠকে নরমে গরমে বঙ্গের প্রশাসনিক প্রধান।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!