এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > চারিদিকে চলছে বিক্ষোভ, পরিস্থিতি সামলাতে এবার আসরে নামলেন মুখ্যমন্ত্রী

চারিদিকে চলছে বিক্ষোভ, পরিস্থিতি সামলাতে এবার আসরে নামলেন মুখ্যমন্ত্রী



শুক্রবারের পর শনিবারও ছবিটা বদলাল না। দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলার বিস্তীর্ণ অংশ বিদ্যুত্‍হীন। তীব্র সংকট তৈরি হয়েছে পানীয় জলের। সকাল থেকেই বিভিন্ন জায়গায় অবরোধ করেন স্থানীয় মানুষ। উত্তর ২৪ পরগনার টিটাগড়, হাওড়ার চ্যাটার্জি হাট থেকে হুগলির উত্তরপাড়া- জল ও বিদ্যুতের দাবিতে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন নাগরিকরা।

বিদ্যুতের দাবিতে টিটাগড় ব্রহ্মস্থানের স্থানীয় জনগণ পথ অবরোধ করে শনিবার সকালে। অবরোধ তুলতে গিয়ে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। এর পরেই রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে গোটা এলাকা।শুধু এখানেই নয় পরিস্থিতি প্রায় সর্বত্রই এক। অভিযোগ বার বার বলেও কোনো সায়াটা মিলছে না প্রশাসনের তরফ থেকে। এবার এই নিয়ে স্বয়ং মুখমন্ত্রী আবেদন জানালেন সাধারণ মানুষকে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন, ‘একটু ধৈর্য ধরুন, বিদ্যুত্‍ পরিষেবা মিলবে। অযথা বিক্ষোভ না করে বিদ্যুত্‍ কর্মীদের কাজ করতে দিন।’ আমফান বিধ্বস্ত এলাকা দেখতে কাকদ্বীপ যাওয়ার আগে তিনি জানান, করোনা সংক্রমণের ভয়ে অনেকেই বাড়ি চলে গিয়েছেন। কর্মী কম, তাই কাজে সময় লাগছে।

আমফান পরবর্তী সময়ে টানা তিনদিন বিদ্যুত্‍ নেই, জলকষ্টেও ভুগতে হচ্ছে। এই অবস্থায় ধৈর্যের বাঁধ যেন আর মানছে না আমজনতার। শুক্রবারও দেখা গিয়েছে আমফান বিধ্বস্ত জেলা বিভিন্ন প্রান্তে জল, বিদ্যুত্‍ ফেরানোর দাবিতে বিক্ষোভ। শনিবারও তার ব্যতিক্রম হল না। উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহের কাছে কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়েতে বিক্ষোভকারীদের হঠাতে গিয়ে হামলার মুখে পড়তে হল পুলিশকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও পালটা লাঠিচার্জ করে। অন্যদিকে, মহেশতলার কাছে বজবজ ট্রাঙ্ক রোড অবরোধ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তা তুলতে গেলে জনতা-পুলিশ খণ্ডযুদ্ধ বাঁধে।

এছাড়া বিভিন্ন এলাকাতেও একই খবর পাওয়া যাচ্ছে। তবে নেত্রীর বার্তাতেও কতটা কাজ হবে তা নিয়ে সন্ধিহান বিশেষজ্ঞমহল। কেননা তাদের মতে নূন্যতম পরিষেবা পাচ্ছেন না তাঁরা। যা নিয়ে ক্ষোভ বাড়ছে বই কমছে না। শুধু মুখের কথা নয় এবার তারা শুধু কাজ চান। তার দেরি না করে এই নিয়ে ঝাপটে হবে প্রশাসনকে নাহলে এই ক্ষোভ থামবে না উল্টে বানাবে বড়সড় রূপ।
,

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!