এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কৃষকদের আয় তিনগুন – মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় কেন্দ্রের প্রশ্নে যুক্তি খুঁজছেন নবান্নের কর্তারা

কৃষকদের আয় তিনগুন – মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় কেন্দ্রের প্রশ্নে যুক্তি খুঁজছেন নবান্নের কর্তারা



কোন সরকার বেশি কৃষকপ্রেমী!- রাজ্যের তৃনমূল নাকি কেন্দ্রের বিজেপি- এই নিয়ে যখন দড়িটানাটানি চলছে দুই রাজনৈতিক দলের মধ্যে ঠিক তখনই প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো এক চিঠিতে কেন্দ্রর থেকে রাজ্যের চাষিদের আয় তিনগুন বৃদ্ধি পেয়েছে বলে দাবি করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর রাজ্যের তরফে এই চিঠি পাওয়ার পরে পরেই রীতিমত হতচকিত হয়ে যায় কেন্দ্র।

সূত্রের খবর, সম্প্রতি এই ব্যাপারে কিভাবে রাজ্যের চাষিদের আয় তিন গুন বৃদ্ধি পেল! আর যদিও বা এইরকম কিছু হয় তাহলে 17-18 র আর্থিক সমীক্ষায় কেন তার উল্লেখ নেই তার জবাব চেয়ে রাজ্যের কৃষি সচিবকে একটি চিঠিও পাঠিয়েছেন নীতি আয়োগের সদস্য রমেশ চন্দ। কিন্তু সত্যিই তো কেন্দ্রকে পেছনে ফলে কেমন করে বৃদ্ধি পেল রাজ্যের কৃষকদের এই আয়?

রাজ্য কৃষিদপ্তর সূত্রের খবর,  2010-11 সালে একজন কৃষির পারিবারিক আয় 91 হাজার 11 টাকা, সেখানে 2016-17 সালে তা হয়েছে 2 লক্ষ 39 হাজার 123 টাকা এবং 2017-18তে তা দাড়াবে 2 লক্ষ 90 হাজার টাকায়। আর এখানেই কেন্দ্রের প্রশ্ন, স্বাধীনতার 72 বছরের পরেও দেশে কৃষকদের আয় দ্বিগুন না হলেও রাজ্যে সাত বছরের মধ্যে কি করে তিনগুন হল!

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এ প্রসঙ্গে এদিন রাজ্যের কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার বলেন, “নীতি আয়োগ কেন সংশয় প্রকাশ করছে জানি না। যা হিসেব চেয়েছিল তা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।” জানা গেছে, রাজ্যের ফলনের হিসেব জেনে তা থেকে জমির উৎপাদনশীলতা বের করা হলে ফসল ওঠার 2 সপ্তাহের মধ্যে সেখান থেকে চাষের খরচ বাদ দিয়ে কৃষকের গড় আয় বের করে তা কেন্দ্রকে জানিয়েছে রাজ্য। আর তারপরেও কেন্দ্রের এহেন সংশয় নিয়ে কোনো যুক্তিই খুজে পাচ্ছে না রাজ্য।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!