এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মাদক কান্ডে নতুন মোড়- হেভিওয়েট বিজেপি নেতা লালবাজারের হাজিরা এড়ালেন

মাদক কান্ডে নতুন মোড়- হেভিওয়েট বিজেপি নেতা লালবাজারের হাজিরা এড়ালেন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – ক্রমশ মাদক কান্ড ঘিরে উত্তাপ বাড়ছে রাজ্যে। একুশের বিধানসভার নির্বাচন সামনেই। তার আগেই রাজ্যজুড়ে ব্যাপক আলোড়ন। গেরুয়া শিবিরের যুব নেত্রী মাদক পাচার চক্রে গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকেই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে তীব্র সমালোচনা। পাশাপাশি বিজেপির যুব নেত্রী পামেলা গোস্বামী গ্রেপ্তার হওয়ার পরেই জানায়, তাঁকে চক্রান্ত করে ফাঁসানো হয়েছে। এবং এই চক্রান্তকারীর নাম হিসেবে তিনি রাকেশ সিংয়ের নাম করেন সাংবাদিকদের সামনে। এরপরেই লালবাজার এই কেসের দায়িত্ব নেয়। আর তারপরেই লালবাজার গোয়েন্দা দপ্তর থেকে রাকেশ সিংকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠানো হয়। স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় গেরুয়া শিবিরে।

কিন্তু এই মুহুর্তের খবর- রাকেশ সিং জানিয়ে দিলেন, তিনি আজ লালবাজারে হাজিরা দিতে যেতে পারবেন না। মঙ্গলবার বিকেল চারটের মধ্যে রাকেশ সিংয়ের হাজিরা দেওয়ার কথা ছিল লালবাজারে। কিন্তু জানা গিয়েছে, রাকেশ সিং ইতিমধ্যেই লালবাজারে ইমেইল করে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি আজ হাজিরা দিতে পারবেন না। কারণ তিনি এই মুহূর্তে দিল্লি রয়েছেন। বৃহস্পতিবারের পরে তিনি হাজিরার জন্য লালবাজারে পৌঁছাবেন। তবে এক্ষেত্রে তিনি একটি শর্ত রেখেছেন।

রাকেশ সিংয়ের দাবি, তাঁর প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে তাই হাজিরা দেওয়ার সময় তাঁর সঙ্গে থাকবেন তাঁর আইনজীবী এবং তাঁর কেন্দ্রীয় বাহিনীর দেহরক্ষী। অন্যদিকে জানা গেছে, পামেলা গোস্বামীর মতনই গ্রেপ্তার হওয়া পামেলার আরেক সঙ্গী বিজেপি নেতা প্রবীর কুমার দেও আদালতে ওঠার সময় রাকেশ ঘনিষ্ঠ আরো এক বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছেন। খুব স্বাভাবিকভাবেই সময়ের সাথে সাথে মাদক কান্ডের পরতে পরতে রহস্যের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে। অন্যদিকে রাকেশ সিং প্রথম থেকেই দাবি করে আসছেন, তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

পাশাপাশি রাকেশ সিং পামেলার মুখে তাঁর নাম উঠে আসায় দায়ী করেছেন পুলিশকে। তিনি দাবি করেছেন, পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন পামেলাকে প্রভাবিত করা হয়েছে তার নাম করার জন্য। এক্ষেত্রে দোষ প্রমাণিত না হলে তিনি যে পুলিশের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবেন তাও জানিয়েছেন। অন্যদিকে পামেলা হঠাৎ করে রাকেশ সিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ কেন করলেন সে ব্যাপারেও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা গিয়েছে, পামেলা গোস্বামীর সঙ্গে ব্যক্তিগত অশান্তি ছিল রাকেশ সিংয়ের।

এ প্রসঙ্গে পামেলা নিজেই জানিয়েছেন, কিছুদিন আগে নির্বাচনের টিকিট দেওয়ার জন্য তাঁর সাথে রাকেশ ঘনিষ্ঠ একটি এক যুবক যোগাযোগ করেন এবং একাধিক বিজেপি নেতার কাছে তাঁকে নিয়ে যান। যেদিন পামেলা ধরা পড়েন, সেদিনও গাড়িতে ওই যুবক ছিল। যথারীতি পামেলা তাঁর গাড়িতে মাদক পাওয়া নিয়ে যাবতীয় অভিযোগের মূল কান্ডারী রাকেশ সিং কে করেন। খুব স্বাভাবিকভাবে মনে করা হচ্ছে লালবাজারের গোয়েন্দা বাহিনী রাকেশ সিংয়ের সাথে কথা বলে পামেলার দাবির সত্যতা যাচাই করবে। সেক্ষেত্রে রাকেশ সিং লালবাজারে পুলিশের মুখোমুখি কবে হন এখন সেটাই দেখার।

 

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!