এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মদনকে নিয়ে ফের অস্বস্তি, যুক্তির মারপ্যাঁচে কাঠগড়ায় সিবিআই!

মদনকে নিয়ে ফের অস্বস্তি, যুক্তির মারপ্যাঁচে কাঠগড়ায় সিবিআই!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  একসময় সারদা কাণ্ডে মন্ত্রী থাকাকালীন শ্রীঘরে যেতে হয়েছিল তাকে। পরবর্তীতে জেল থেকে মুক্ত হওয়ার পর আবার রাজনীতিতে ধীরে ধীরে সক্রিয় হতে দেখা যায় মদন মিত্রকে। তবে 2021 সালে তার ভাগ্যের চাকা যখন আবার খুলতে শুরু করে, ঠিক তখনই বিধানসভা নির্বাচনে কামারহাটি থেকে জয়লাভ করে বিধায়ক পদে শপথ নেওয়ার পর এই নারদা কাণ্ডে গ্রেফতার করা হয় তৃণমূলের এই হেভিওয়েট বিধায়ককে।

তবে শুধু তাকে নয়, গত 17 মে মদন মিত্রের পাশাপাশি নারদা কাণ্ডে গ্রেফতার করা হয় রাজ্যের দুই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম এবং সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে। এছাড়াও গ্রেফতার করা হয় রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনায় অস্বস্তি ক্রমশ তৃণমূল কংগ্রেসের। পরবর্তীতে অবশ্য এই চার হেভিওয়েট জামিন পেয়ে গিয়েছেন।

কিন্তু এবার সেই মদন মিত্রকে নিয়ে নারদ মামলার শুনানিতে বড় প্রশ্ন তুলে দিলেন তার আইনজীবী সিদ্ধার্থ লুথরা। যে যুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট চাপে পড়ে গেল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে নারদ মামলার শুনানি হয়। আর সেখানেই অসাংবিধানিক ভাবে মদন মিত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে সরব হন তার আইনজীবী সিদ্ধার্থবাবু। বলা বাহুল্য, চার হেভিওয়েটকে গ্রেফতারের পর থেকেই সিবিআই প্রতিহিংসাপরায়ণ আচরণ করেছে বলে দাবি করতে শুরু করে তৃণমূল কংগ্রেস।

শুধু তাই নয়, করোনা পরিস্থিতিতে যখন চারিদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে, তখন এভাবে একাধিক অফিসার নিয়ে নেতা-মন্ত্রীদের বাড়িতে ঢুকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা যায় কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছিল ঘাসফুল শিবির। আর সেই প্রশ্ন তুলে ধরেই এবার হাইকোর্টের সিবিআইকে চাপের মুখে ফেলে দিলেন মদন মিত্রের আইনজীবী। যেখানে তিনি বলেন, “যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তা সাংবিধানিক নিয়মের সঙ্গে প্রতারণার শামিল।  সিবিআই সকাল 8 টা 10 মিনিটে বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করেছে। অথচ গ্রেপ্তার মেমোতে দেখিয়েছে 8 টা 45 মিনিট। এটা কি গ্রেফতারির সংজ্ঞা হতে পারে! তারপরেও তারা নীতি-নৈতিকতার কথা বলবে!”

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অর্থাৎ সিবিআইয়ের গ্রেপ্তারির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে মদন মিত্রের আইনজীবী হাইকোর্টে জোর সওয়াল করার চেষ্টা করবেন। যদিও বা গ্রেপ্তারি অবৈধ হলেও, জামিনের অধিকার অর্জন করা যায় কিনা, তা নিয়ে পাল্টা প্রশ্ন তুলে দেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দোল। যাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে।

পর্যবেক্ষকদের মতে, কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা কোনোমতেই নারদ মামলা নিয়ে হাল ছাড়তে চাইছে না। এক্ষেত্রে তারা এমনিতেই চাপের মুখে পড়ে গিয়েছে। প্রথম পর্যায়ে চার হেভিওয়েটকে নিজেদের কাছে রেখে এই মামলা অন্য রাজ্যে নিয়ে যাওয়ার পক্ষে চেষ্টা করেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব হয়নি। ইতিমধ্যেই চার হেভিওয়েট মুক্তি পেয়েছেন।

তবে এখনও পর্যন্ত অন্য রাজ্যে এই মামলা করা নিয়ে শুনানি চলছে কলকাতা হাইকোর্টে। আর সেই শুনানি পর্বেই মদন মিত্রের গ্রেপ্তারি নিয়ে প্রশ্ন তুলে সিবিআইকে চাপের মুখে ফেলে দিলেন কামারহাটির তৃণমূল বিধায়কের আইনজীবী। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!