এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > লোকসভায় ধাক্কা খেতেই এবার বড়দিনেও ছুটি নেই তৃণমূলীদের! সামনে এল 3 দিনের বড়সড় পরিকল্পনা

লোকসভায় ধাক্কা খেতেই এবার বড়দিনেও ছুটি নেই তৃণমূলীদের! সামনে এল 3 দিনের বড়সড় পরিকল্পনা



 

লোকসভা নির্বাচনে সারা উত্তরবঙ্গ জুড়ে তৃণমূলের ধ্বস লক্ষ করা গেছে। উত্তরবঙ্গের আটটি আসনের মধ্যে একটি আসনেও জয়লাভ করতে পারেনি ঘাসফুল শিবির। আর এই পরিস্থিতিতে দলের সংগঠনকে চাঙ্গা করতে এখন বিধানসভা নির্বাচনের আগেই বিভিন্ন কর্মসূচি নিতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। একসময় তৃণমূল কর্মীরা ক্ষমতার দাপটে বিভিন্ন কর্মসূচি থেকে বিরত হয়ে আরাম কেদারায় শুয়ে থাকলেও এখন আর তাদের সেই বিরাম নেই। উল্টে বছরের গুরুত্বপূর্ণ ছুটির দিনেও এখন কার্যত কর্মসূচিতে মজে থাকতে হচ্ছে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের।

সূত্রের খবর, বড়দিনের ছুটিতে টানা তিনদিন ধরে এবার দফায় দফায় শাসকদলের যুব কর্মীদের রাজনৈতিক প্রশিক্ষণের সিদ্ধান্ত নিল যুব তৃণমূল কংগ্রেস। জানা গেছে, আলিপুরদুয়ারের আগামী বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভ করতে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের 500 কর্মীকে ময়দানে নামাতেই বড়দিনের ছুটিতে সেই প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই আলিপুরদুয়ার যুব তৃনমূলের সভাপতি পদ থেকে সৌরভ চক্রবর্তীর ঘনিষ্ঠ সমর ভট্টাচার্যকে সরিয়ে দেওয়া হয়। যেখানে দায়িত্ব দেওয়া হয়, জেলায় ছাত্রসংগঠনের প্রাক্তন সভাপতি তথা পুরনো মুখ বলে পরিচিত বাবলু করকে।

অভিযোগ, যুব তৃনমূলের সভাপতি থাকার সময় জেলায় যুব সংগঠন অনেকটাই ভেঙে পড়েছিল। সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে জেলায় যুব সমাজের ভোট বিজেপির দিকে চলে গিয়েছে। তাই এরপরেই সমর ভট্টাচার্যকে সরিয়ে বাবলু করকে দায়িত্ব দেওয়ার পর এবার যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে তিন দিনের প্রশিক্ষণ নিয়ে দলের যুব সংগঠনকে চাঙ্গা করতে চলেছে। আর বাবলুবাবু দায়িত্ব নেওয়ার পরই এই সংগঠনের শ্রীবৃদ্ধি হতে শুরু করেছে বলে দাবি একাংশের। তাই এই পরিস্থিতিতে সেই সংগঠনকে আরো চাঙ্গা করতে এবার ছুটির সময়ও তৃণমূলের যুব কর্মীদের প্রশিক্ষণ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মত বিশেষজ্ঞদের।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি মতিলাল কুজুর বলেন, “সংগঠনের বিদায়ী জেলা সভাপতির মেয়াদকালে সংগঠনের অঞ্চল, বুথ এবং ওয়ার্ড কমিটি ছিল না। বাবলু কর যুব সভাপতি হওয়ায় এবার সংগঠন চাঙ্গা হবে বলেই মনে করছি।”

এদিকে দলের এই কর্মসূচি প্রসঙ্গে আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূলের নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত যুব সভাপতি বাবলু কর বলেন, “বিধানসভা ভোট বা বিরোধী কোনো সংগঠনের মোকাবিলার লক্ষ্যে এই রাজনৈতিক প্রশিক্ষণ শিবির হচ্ছে না। সংগঠনের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রাথমিক সম্মতি নিয়েই রাজনৈতিক শিক্ষা শিবির করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিদায়ী জেলা সভাপতি ও সাংগঠনিক ঘাটতি নিয়ে কোনো মন্তব্য করব না। দ্রুত প্রথমে সংগঠনের অঞ্চল, বুথ এবং ওয়ার্ড কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হবে।”

সব মিলিয়ে এবার নতুন যুব সভাপতি দায়িত্ব পাওয়ার পরই আলিপুরদুয়ারে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সাংগঠনিক উদ্যোগ রীতিমতো নজর কাড়ছে বলে মনে করছেন সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!