এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > অভিষেকের ‘উত্তর বাংলার’ জবাবে মুকুল পাল্টা চালে ‘উত্তর ভারতে’

অভিষেকের ‘উত্তর বাংলার’ জবাবে মুকুল পাল্টা চালে ‘উত্তর ভারতে’



বিশ্ব বাংলা নিয়ে লড়াইটা যে এতো তাড়াতাড়ি থম্বে না সেটা বোঝায় যাচ্ছিল। কিন্তু দু পক্ষই যে ভাবে রনং দেহী মেজাজে কেউ কাউকে এক ইঞ্চিও জমি না ছেড়ে নিজের নিজের দাবীতে অনড় থেকে আদালতের আইনি লড়াইয়ের মোড়কে চলে যাচ্ছেন, তাতে সবাই তাকিয়ে কোথাকার জল কোথায় গড়ায় শেষপর্যন্ত তা দেখতে। মুকুল রায় দলীয় সভা থেকে নথি দেখিয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছিলেন যে বিশ্ববাংলা ও জাগোবাংলা এই দুটি লোগোর মালিক আদতে রাজ্য সরকার বা তৃণমূল কংগ্রেস না, এর মালিকানা ব্যক্তিগত ভাবে অভিষেকবাবুর। ফলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের আইনজীবী মারফত মুকুলবাবুকে আইনি নোটিশ পাঠান। ওই নোটিশ সাত দিনের মধ্যে ক্ষমা চেয়ে প্রত্যাহার না করলে, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবেন মুকুল রায় বলে জানান মুকুলবাবুর আইনজীবী।
এরমধ্যে মুকুলবাবু তাঁর আইনি নোটিশের ঠিক জবাব দেননি অভিযোগে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের আইনজীবী মুকুলবাবুর বিরুদ্ধে মানহানির একটি মামলা করে আলিপুরদুয়ার আদালতে। যেখানে এই বিষয়ে মুকুলবাবুকে এই ব্যাপারে আপাতত মুখ বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মুকুলবাবু যে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন অভিষেকবাবুকে তার সাতদিনের সময়সীমা শেষ হয়েছে গতকাল। আর তাই এখনও পর্যন্ত অভিষেক ব্যানার্জীর তরফে ক্ষমা চাওয়ার চিঠি মুকুল রায়ের কাছে না আসায়, ঘোষিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মুকুল রায় দিল্লির পাতিয়ালা কোর্টে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ফৌজদারি ধারায় মানহানি র মামলা রুজু করছেন বলে মুকুলবাবুর আইনজীবীর তরফে এদিন জানা গেছে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতার বাসিন্দা হয়েও আলিপুরদুয়ারে মামলা করায় অনেক প্রশ্ন উঠেছিল, জবাবে তাঁর আইনজীবী জানিয়েছিলেন, এই মামলা যেখানে খুশি করা যায় আর তাই বোধ হয় তার পাল্টা দিয়ে মুকুলবাবু একেবারে বাংলার বাইরে দিল্লিতে টেনে নিয়ে গেলেন এই মামলা। এখন দেখার এই আইনি লড়াইয়ে শেষপর্যন্ত জয় হয় কার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!