এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > লাগাতার মূল্যবৃদ্ধিতে হাঁসফাঁস জনতা, পূর্বসূরীর বিরুদ্ধেই অভিযোগ মোদীর!

লাগাতার মূল্যবৃদ্ধিতে হাঁসফাঁস জনতা, পূর্বসূরীর বিরুদ্ধেই অভিযোগ মোদীর!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – পেট্রোল থেকে শুরু করে ডিজেল, রান্নার গ্যাস, নিত্যনৈমিত্তিক জিনিসের মূল্য বৃদ্ধির যে আকার ধারণ করেছে, তাতে মোটরবাইক এবং গ্যাস সিলিন্ডারকে কার্যত ঘরের ছাদের ওপরে তুলে রাখার কথা ভাবতে হচ্ছে জনতা জনার্দনকে। কেন্দ্রের মোদি সরকারের এই ধরনের মূল্যবৃদ্ধির নীতির বিরুদ্ধে রীতিমত সরব হয়েছেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো।

আর এবার কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে যখন এই ব্যাপারে সকলে কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছে, ঠিক তখনই এই বিষয়ে বিবৃতি দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। যেখানে পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কথা সেভাবে উল্লেখ না করলেও, পূর্বসূরীর ঘাড়েই এই ব্যাপারে দোষ চাপাতে দেখা গেল তাকে। স্বাভাবিক ভাবেই মূল্যবৃদ্ধির যখন চরম আকার ধারণ করেছে তখন বিগত দিনের সরকারের বিরুদ্ধে কেন গোটা বিষয়টি চাপিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী, তা নিয়ে নানা মহলে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন।

সূত্রের খবর, বুধবার তামিলনাড়ুতে গ্যাস প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর সেখানেই বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রবল মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে পূর্বসূরী সরকারকে আক্রমণ করতে দেখা যায় তাকে। তিনি বলেন, “পূর্বতন সরকারগুলো দেশের শক্তি ক্ষেত্রে আমদানি করার দিকে নজর দিলে এই অবস্থা হত না। আমাদের কি আমদানির উপর এতটা নির্ভরশীল হওয়া উচিত? আমি কারো সমালোচনা করতে চাই না। কিন্তু এটা অবশ্যই বলতে চাই যে, আগে এই বিষয়ে নজর দেওয়া হলে আজ মধ্যবিত্তকে এই বোঝা বহন করতে হত না। তাই শক্তিক্ষেত্রে নির্ভরতা কমানোকে আমরা অবশ্য কর্তব্য বলেই মনে করছি।”

আর প্রধানমন্ত্রীর এই ধরণের বক্তব্য নিয়ে এখন রীতিমত গুঞ্জন তৈরি হয়েছে জাতীয় রাজনীতিতে. অনেকে বলতে শুরু করেছেন, তাহলে কি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই গোটা বিষয়ে চাপে পড়ার কারণে এখন সরাসরি দেশের প্রাক্তন সরকারের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে বিরোধীদলকে কটাক্ষ করলেন?

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

পর্যবেক্ষকদের একাংশ বলছেন, সামনে একাধিক রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন। যেখানে ভালো ফল করতে রীতিমত মরিয়া ভারতীয় জনতা পার্টি। কিন্তু তার আগে যেভাবে পেট্রোল থেকে শুরু করে ডিজেল, এমনকি রান্নার গ্যাসের দাম বাড়তে শুরু করেছে, তাতে অনেকটাই চাপে রয়েছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। প্রতিনিয়ত বিরোধীদের তরফ থেকে এই ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারকে কাঠগড়ায় তোলা হচ্ছে।

আর এই পরিস্থিতিতে বিতর্ককে থামানোর জন্য রীতিমত ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে অতীতের সরকারের পদক্ষেপ দাবি করলেন প্রধানমন্ত্রী। যেখানে নিজের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে তিনি বুঝিয়ে দিলেন, এর জন্য কিছুটা হলেও আগের সরকার দায়ী। তবে প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে নিয়ে এখন বিতর্ক আরও চরম আকার নিতে পারে বলেই মনে করছেন একাংশ। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!