এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কুম্ভমেলায় রক্ষে নেই! এবার ধর্মগুরুর শেষকৃত্যে হাজার হাজার জমায়েত! সুপার স্প্রেডার করোনা

কুম্ভমেলায় রক্ষে নেই! এবার ধর্মগুরুর শেষকৃত্যে হাজার হাজার জমায়েত! সুপার স্প্রেডার করোনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনা সংক্রমনের দ্বিতীয় ঢেউ একেবারে ছারখার করে দিচ্ছে দেশকে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার কঙ্কালসার চেহারা বারবার প্রকাশ্যে চলে আসছে। বেডের অভাব, অক্সিজেনের অভাব, ভ্যাকসিনের অভাব বারবার মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে কুম্ভ মেলার আয়োজন তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি করেছিল। করোনার তীব্র সংক্রমনের মধ্যে কুম্ভ মেলার আয়োজন করবার কারণে করোনার সংক্রমণ আরো ভয়াবহ হয়ে উঠেছিল। আর, এবার উত্তর প্রদেশে এক বিখ্যাত ধর্মগুরুর মৃত্যুতে তাঁর শেষকৃত্যতে শামিল হলেন বহু মানুষ।

কাতারে কাতারে ভক্ত গুরুদেবকে শেষ বিদায় জানাতে উপস্থিত হলেন শোকযাত্রায়। অভিযোগ উঠেছে কোনরকম সামাজিক দূরত্ব সেখানে মানা হয়নি। অনেকের মুখে মাস্ক পর্যন্ত ছিল না। গুরুদেবের ভক্তের বিপুল সমাগম দেখে মাথায় হাত প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দপ্তরের। ঘটনার খবর পাওয়ার পর পুলিশ সক্রিয় হয়। কিন্তু তাতে অনেকটাই দেরি হয়ে গেছে। এই ঘটনায় প্রশাসনের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বহু মানুষ।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

উত্তরপ্রদেশের বদায়ুঁর এক বিখ্যাত ধর্মগুরু ছিলেন আব্দুল হামিদ মহম্মদ সালিমুল। তাঁর ভক্তসংখ্যা অগনতিক। ধর্মগুরুর প্রয়াণের কথা জানার পরেই ধর্মগুরুকে শেষ বিদায় জানাতে রাজ্যের বিভিন্ন স্থান থেকে বদায়ুঁ যাত্রা করেছিলেন বহু ভক্ত। রাজ্য জুড়ে কঠোর বিধি-নিষেধ জারি থাকার পরও কিভাবে এমন মিছিল, পথসভার আয়োজন করা হয়েছিল? তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বিভিন্ন মহলে।

এই ঘটনার ফলে সংক্রমণ তীব্র আকারে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে বিশেষজ্ঞদের। ক্ষুব্দ হয়ে এই ঘটনায় এফআইআর পর্যন্ত দায়ের করা হয়েছে। এরপর পুলিশ এই ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে। সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এই শেষকৃত্যের আয়োজন যারা করেছিলেন, তাদের দ্রুত চিহ্নিতকরণ ও তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির মধ্যে চতুর্থ স্থানে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। রাজ্যে মোট করোনা সংক্রমণ ১৫ লক্ষর গণ্ডি অতিক্রম করেছে। ২ লক্ষ ২৫ হাজারের বেশি মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়ে সম্প্রতি চিকিৎসাধীন আছেন। ১৫ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু ঘটেছে করোনা সংক্রমণে। এসবই সঙ্গেই রাজ্যে রয়েছে অক্সিজেনের অভাব। যদিও উত্তরপ্রদেশে অক্সিজেনের কোন অভাব নেই বলে সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল। কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতি যে তা নয়, তা বিলক্ষণ বুঝতে পারছেন ভুক্তভোগীরাই।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!