এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > কৃষি দপ্তর টাকা পাঠালেও কৃষকদের একটা বড় অংশ পাচ্ছেন না টাকা! ক্রমশ বাড়ছে “রহস্য”!

কৃষি দপ্তর টাকা পাঠালেও কৃষকদের একটা বড় অংশ পাচ্ছেন না টাকা! ক্রমশ বাড়ছে “রহস্য”!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –কৃষি দপ্তরের পক্ষ থেকে টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কৃষকদের অনেকেই সেই টাকা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। স্বাভাবিকভাবেই গোটা ঘটনায় অনেকেই দুর্নীতির আশঙ্কা পড়তে শুরু করেছিলেন। একাংশ দাবি করেছিলেন, বিগত দিনে যেভাবে নানা সরকারি প্রকল্প সহ ভয়াবহ দুর্যোগের ক্ষতিপূরণের টাকা কেউ বা কারা আত্মসাৎ করে নিয়েছে, ঠিক একইভাবে এখানেও দুর্নীতি শুরু হয়েছে। তবে এই ব্যাপারে অনেকে দুর্নীতির আশঙ্কা করলেও, ভেতরে অন্য সমস্যার কারণেই যে এই টাকা সঠিকভাবে কৃষকদের কাছে পৌঁছাচ্ছে না, তা পরিষ্কার হয়ে গেল। জানা গেছে, কৃষি দপ্তর থেকে টাকা পাঠানো সত্বেও বেশকিছু একাউন্ট ডরমেন্ট এবং ডিফল্ট হওয়ার কারণেই সেই টাকা ঢুকতে অসুবিধা হচ্ছে। তাই এমতাবস্তায় যারা টাকা পাননি, তাদের পাসবুক আপডেট করিয়ে নতুন করে আবেদন করার কথা বলা হচ্ছে।

তবে করোনা ভয়াবহতার কারণে অনেকেই ব্যাংকে যেতে ভয় পাচ্ছেন। ফলে পাসবুক আপডেট করাতেও তৈরি হয়েছে সমস্যা। যার কারণে কৃষকরা তাদের সাহায্য পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বছরের নভেম্বর মাসে বুলবুলে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত চাষীদের ক্ষতিপূরণের জন্য রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে 205 কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। প্রায় ছয় লক্ষ বেশি-কৃষকদের একাউন্টে কৃষি দপ্তরের পক্ষ থেকে সেই টাকা পাঠানো হয়। কিন্তু 40 হাজার কৃষক এখনও পর্যন্ত এই টাকা পাননি।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

যার ফলে ব্যাপক গুঞ্জন তৈরি হয়েছে। তবে এর কারণ হিসেবে অনেকেই দুর্নীতিকে দায়ী করলেও, অ্যাকাউন্ট ডরমেন্ট এবং ডিফল্ট হওয়ার জন্যই যে এই অসুবিধা হয়েছে, তা স্পষ্ট ভাষায় বলে দিয়েছে কৃষি দপ্তর। স্বাভাবিকভাবেই এখন ব্যাংকে গিয়ে পাসবুক আপডেট করা অত্যন্ত জরুরি। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা ভয়াবহতার কারণে অনেকেই ব্যাংকে যেতে পারছে না। যার ফলে কৃষকদের সেই সাহায্য পাওয়া থেকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে। তাই এমতাবস্থায় চরম অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন সেই সমস্ত কৃষকরা। এদিন এই প্রসঙ্গে হলদিয়া শহরের মঞ্জুশ্রী এলাকার বাসিন্দা সামসুল আলম বলেন, “আমি বৃহস্পতিবার দুর্গাচকের একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে পাসবুক আপডেট করাতে গেলে ওরা ফিরিয়ে দিয়েছে।

এই মুহূর্তে কাজ হচ্ছে না বলে জানিয়েছে। ওই ব্যাংকের অটোমেটিক মেশিন নেই‌। এর ফলে প্রচুর গ্রাহক সমস্যায় পড়েছেন।” স্বাভাবিক ভাবেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বর্তমানে করোনা ভয়াবহতার কারণে এই কাজ না করায় কৃষকরা তাদের টাকা পাওয়া থেকে ব্যাপকভাবে বঞ্চিত হচ্ছেন। তাই পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত 40 হাজারের মত কৃষক এখন তাদের সাহায্য না পাওয়ায় ব্যাপক ক্ষোভ তৈরি হতে শুরু করেছে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি সমাধানে এখন রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!