এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > কতটা সুখী বাংলার মানুষ! সামনে এল চমক জাগানো নতুন সমীক্ষা! বাংলার অবস্থান জানলে চমকে যাবেন!

কতটা সুখী বাংলার মানুষ! সামনে এল চমক জাগানো নতুন সমীক্ষা! বাংলার অবস্থান জানলে চমকে যাবেন!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – ‘সবাই তো সুখী হতে চায়, তবু কেউ সুখী হয়, কেউ হয়না’- মান্না দের এই বিখ্যাত গানটি অত্যন্ত আবশ্যক হয়ে উঠেছে আজকের দিনে। সুখ শব্দটি নিতান্ত আপেক্ষিক হলেও প্রত্যেকটি মানুষ এই সুখের পেছনেই প্রাণপাত করেন। তবে সুখ সম্পর্কে প্রতিটি মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি আলাদা বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। আর তাই নিয়েই এবার সমীক্ষা চালিয়েছেন আইআইটি এবং আইআইএম এর অধ্যাপক রাজেশ পিলানিয়া। এবং এই সমীক্ষায় উঠে এসেছে আলোড়িত একটি সত্য।

সুখী রাজ্যের তালিকায় প্রথম দশেই নেই বাংলা। করোনা আবহে 2020 সালের মার্চ এবং জুলাই মাস অবধি করা এই সার্ভেতে সব থেকে নিচে রয়েছে হরিয়ানা, উড়িষ্যা এবং ছত্তিশগড়। এবং প্রথম সারিতেই রয়েছে মিজোরাম, পাঞ্জাব ও আন্দামান-নিকোবরের মতন রাজ্যগুলি। বাংলা রয়েছে কুড়ি তম স্থানে বলে জানা গেছে। সারা ভারতে সুখী হওয়ার প্যারামিটার নির্ধারিত হয়েছে ছটি বিষয়ের ওপর। আর এই ছটি বিষয় হলো- আয়-বৃদ্ধি,পারিবারিক সম্পর্ক এবং বন্ধুত্ব, শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্য,সামাজিক সমস্যা এবং জনহিতকর, ধর্ম বা আধ্যাত্মিক অনুষঙ্গ, কোভিড -19 এর সুখের প্রভাব।

অন্যদিকে এই সমীক্ষায় উঠে এসেছে আর একটি তথ্য। যেখানে বলা হচ্ছে, নির্ধারিত সুখের ওপর স্থায়ীভাবে প্রভাব ফেলে দাম্পত্য অবস্থান, বয়স গ্রুপ, শিক্ষা এবং উপার্জন। আর সেক্ষেত্রে যারা টাকা পয়সা উপার্জনের থেকে বেশি গুরুত্ব দেন সময়কে- তাঁরাই বেশি সুখী হয় বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে একটি বিশেষ সাক্ষাৎকারে রাজেশ পিলানিয়া জানিয়েছেন, সুখ সাধারণত প্রতিটি অঞ্চলে নির্ভর করে উপাদানগুলির পার্থক্যের কারণে। এই মুহূর্তে ভারতের সবচেয়ে সুখী রাজ্যের তালিকাটি দেখলেই তা বোঝা যাবে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সুখী রাজ্যের তালিকাটি হল এইরকম- মিজোরাম, পাঞ্জাব, আন্দামান, পন্ডিচেরি, সিকিম, গুজরাত, অরুনাচল প্রদেশ, লাক্ষাদ্বীপ, তেলেঙ্গানা, উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, ত্রিপুরা, কেরালা, ঝাড়খন্ড, কর্ণাটক, হরিয়ানা, লাদাখ, মনিপুর, পশ্চিমবঙ্গ, হিমাচল প্রদেশ, আসাম, দিল্লি, চন্ডিগড়, বিহার, দাদরা – নগর হাভেলি এবং দমন – দিউ, জম্মু-কাশ্মীর, মধ্যপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, নাগাল্যান্ড, রাজস্থান, গোয়া, মেঘালয়, উড়িষ্যা, উত্তরাখন্ড, ছত্তিসগড়।

তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সুখ শব্দটি প্রতিটি মানুষের নিজস্ব আঙ্গিকে তৈরি হয়। কেউ খুব সামান্যতেই সুখী হয়ে ওঠেন, আবার কেউ হাজার উপকরণের মধ্যেও সুখী হওয়ার রসদ খুঁজে পান না। সুতরাং কে সুখী, আর কে সুখী নয়- তা নিয়ে বিতর্ক বহুদিন ধরেই ছিল, আছে এবং থাকবেই বলে মনে করা হচ্ছে। তবে সুখী হতে গেলে সব সময় প্রাধান্য পাবে মানসিক স্বাস্থ্য বলে মনে করছেন অনেকে। অন্যদিকে বাংলায় সুখী হওয়ার রসদ খুব অল্পেই পাওয়া যায় বলে মনে করেন অনেকে।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!