এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > করিমপুরে সংখ্যালঘু ভোটের কথা মাথায় রেখে বাজিমাত করতে নতুন পরিকল্পনায় গেরুয়া শিবির

করিমপুরে সংখ্যালঘু ভোটের কথা মাথায় রেখে বাজিমাত করতে নতুন পরিকল্পনায় গেরুয়া শিবির



 

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় ভালো ফল করেছিল। কিন্তু বেশ কিছু বিধানসভা কেন্দ্রে তারা এগিয়ে থাকলেও বেশ কিছু বিধানসভায় তারা পিছিয়ে ছিল। যার মধ্যে অন্যতম করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্র অন্যতম। এখানে তৃণমূলের বিধায়িকা থাকার সুবাদে মহুয়া মৈত্র সেইভাবে বিজেপিকে ভোট টানতে দেননি। নিজের জয় নিশ্চিত করে কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্র থেকে সাংসদ হয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু এবার তাঁর ছেড়ে যাওয়া এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে আগামী 25 নভেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যে উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে এবার এই করিমপুর দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে পদ্ম শিবির। ইতিমধ্যেই তৃণমূল বিমলেন্দু সিংহ রায়কে প্রার্থী করে প্রাক্তন বিধায়ক মহুয়া মৈত্রর হাত ধরে এই কেন্দ্রে জয় আনতে তৎপর হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে বিজেপির তরফে এখানে প্রার্থী করা হয়েছে জয়প্রকাশ মজুমদারকে। তবে প্রথম থেকে বিজেপির প্রার্থী নিয়ে নানা মতানৈক্য থাকলেও তৃণমূলের থেকে এই কেন্দ্র নিজেদের দখলে আনাই যে তাদের মূল লক্ষ্য, তা বুঝিয়ে দিচ্ছে গেরুয়া শিবির।

বস্তুত, এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে অনেক সংখ্যালঘু মানুষ রয়েছেন। ফলে সেদিক থেকে এনআরসিকে ইস্যু করে বিজেপির বিরুদ্ধে প্রচার চালিয়ে সেই সংখ্যালঘুদের সমর্থন আরও বেশী করে পেতে পারেন তৃণমূল প্রার্থী বিমলেন্দু সিংহ রায়। যা তৃণমূলকে অনেকটাই জয়ের দিকে এগিয়ে দেবে বলে মত রাজনৈতিক মহলের। কিন্তু বিজেপি চেষ্টা করছে, এই সংখ্যালঘু ভোটকে তাদের দিকে টানবার। আর তাইতো এবার কৌশলী পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে তারা।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির রাজ্য এবং কেন্দ্রের একাধিক নেতা প্রচারে আসতে পারেন। যার মধ্যে রয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, লকেট চট্টোপাধ্যায় সহ অন্যান্যরা। তবে আশ্চর্যজনকভাবে সংখ্যালঘু ভোটকে নিজেদের দখলে রাখতে এই করিমপুরের বিজেপির প্রচারে আসতে পারেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সৈয়দ শাহনাওয়াজ হুসেন বলে দাবি একাংশের।

বিশ্লেষকরা বলছেন, শাহনাওয়াজ হোসেনকে দিয়ে বিজেপি সংখ্যালঘু ভোটব্যাংককে নিজেদের দিকে আনার চেষ্টা করবে। আর তাইতো প্রাক্তন এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে করিমপুর বিধানসভায় প্রচারে আনতে সচেষ্ট হচ্ছেন তারা। যদিও বা কারা কারা প্রচারে আসবেন, তার তালিকা তৈরি হচ্ছে বলে খবর বিজেপি সূত্রে।

এদিন এই প্রসঙ্গে নদীয়া উত্তরের জেলা বিজেপির সভাপতি মহাদেব সরকার বলেন, “কারা কারা আসছেন, সেটা এখনই নিশ্চিত ভাবে বলা যাবে না। তবে স্মৃতি ইরানির আসার সম্ভাবনা অনেকটাই বেশি। তাছাড়া রাজ্যের একঝাক নেতারা আসবেন। দিনক্ষণ চূড়ান্ত হয়ে গেলেই কে কবে আসবেন, তা জানানো হবে।” সব মিলিয়ে এখন বিজেপির প্রচারে হেভিওয়েট মুখ আসলেও সংখ্যালঘু ভোট টানতে বিজেপি প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শাহনওয়াজ হোসেনকে নিয়ে আসে কিনা, সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!