এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > কেউ রাগ করে দূরে থাকলে কি করবেন অনুব্রত? জানালেন প্রকাশ্য সভায় !

কেউ রাগ করে দূরে থাকলে কি করবেন অনুব্রত? জানালেন প্রকাশ্য সভায় !



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আগামী বিধানসভা নির্বাচন শাসকদল তৃণমূল ও বিরোধী দল বিজেপির ভোট যুদ্ধে পরিণত হতে চলেছে। আগামী বিধানসভা নির্বাচন যে ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের মতো সহজ হবে না, তা অস্বীকার করার উপায় নেই শাসক দলে তৃণমূলের। কারণ, রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি ইতিমধ্যেই নিজেদের পায়ের তলার মাটি শক্ত করতে পেরেছে রাজ্যের নানা স্থানে। অন্যদিকে। রাজ্যে জয়ের ধারাকে বজায় রাখতে শাসকদল তৃণমূল একেবারে উঠে পড়ে লেগেছে। এর পরিস্থিতিতে দলে ঐক্যের বার্তা দিয়ে বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মন্ডল জানালেন, ” যদি কেউ অচ্ছুৎ হয়ে পড়ে থাকেন। যদি কেউ রাগ করে থাকেন। তাঁকে দলে ফিরিয়ে নিন। যদি অসুবিধা হয় অভিমান মেটাতে আমি যাব।”

বীরভূম জেলার শাসক দল তৃণমূলকে জয়যুক্ত করতে রাত দিন এক করে খাটছেন জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। জেলার স্থানে স্থানে তিনি বুথ ভিত্তিক কর্মী সম্মেলনের আয়োজন করছেন প্রায় প্রতিদিন। গতকাল শনিবার বিকেলে বোলপুর উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এমনই এক কর্মী সম্মেলন আয়োজন করেছিলেন তিনি। বোলপুর, ইলামবাজারের বুথ কর্মীদের জন্য এই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছিল। যে কর্মী সম্মেলনে জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সরকারের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ, বিকাশ রায় চৌধুরী প্রমুখরা। এই সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বোলপুর, ইলামবাজারের অসংখ্য তৃণমূল কর্মী-সশস্য। এই কর্মী সম্মেলন শুরুর আগে বোলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন সংস্কার হওয়া ভবনের দ্বারোদ্ঘাটন করলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। সেইসঙ্গে এই স্কুলে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি মূর্তিও উন্মোচিত হল গতকাল জেলা সভাপতির হাতে।

গতকাল দলের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধদের পুনরায় দলে ফিরিয়ে আনতে দলের নেতা-কর্মীদের বিশেষ নির্দেশ দিলেন তিনি। তাদের দলীয় কার্যালয়ে আনবার নির্দেশ দিলেন তিনি। প্রয়োজনে তিনি নিজে তাদের সঙ্গে কথা বলে সমস্যার সমাধান করবেন বলে জানালেন। যদি তাঁরা কেউ বিজেপিতে গিয়ে থাকেন, তবে তাঁদেরকে বুঝিয়ে দলে ফিরিয়ে আনার নির্দেশ দিলেন তিনি। তাঁদের বোঝাতে বললেন যে, বিজেপি তাদের কিছুই দেবে না। এরপরই তিনি অভিযোগ তুললেন যে, কেন্দ্রীয় সরকার কোন কোন চাকরি দিতে পারছেনা। প্রধানমন্ত্রীকে সরকারি সংস্থাগুলিকে বেসরকারি মালিকাদের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এ বিষয়ে তাঁর বক্তব্য, ” বিজেপির নেতৃত্বে ভারতবর্ষে অন্ধকার নেমে এসেছে। দেশের সব শিল্প সম্পদ তারা বিক্রি করে দিচ্ছে। রাজ্যের পাওনা জিএসটির টাকা দিচ্ছে না। তৃণমূল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল, এই দল মানুষকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেয় না। মানুষের পাশে থেকে উপকার করে। ” আবার, মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে বিশেষ প্রশংসা করলেন তিনি। তাঁর দাবি, জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত রাজ্যের সমস্ত মানুষের জন্য একাধিক প্রকল্প গ্রহণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। দেশের কোথাও এমন মুখ্যমন্ত্রী খুঁজে পাওয়া যাবে না বলে দাবি করলেন তিনি।

এরপর অনুব্রত মণ্ডল বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ করে জানালেন যে, সামনে রয়েছে আগামী বিধানসভা নির্বাচন। তাঁর দাবি, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বোলপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে ৮০-৯০ হাজার ভোটে পরাস্ত হবে বিজেপি। তাঁর দাবি, এই ভোট পঞ্চায়েতের ভোট নয়। এই ভোট মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভোট। মানুষের আস্থা আছে তাঁর প্রতি। তিনি জানালেন যে, মুখ্যমন্ত্রীর কোন অহংকার নেই একারণেই তাঁর ওপর বিশেষ সংস্থা রয়েছে মানুষের।

বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের তৃণমূল দলের অভিমানীদের দলে ফিরিয়ে আনার বার্তা, বিজেপিতে চলে যাওয়া তৃণমূল নেতা-কর্মীদের দলে ফিরিয়ে আনার বার্তা থেকে এটাই স্পষ্ট যে, আগামী বিধানসভা নির্বাচনের লড়াই যথেষ্ট কঠিন হতে চলেছে। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই যে অত্যন্ত কঠিন হতে চলেছে শাসকদলের পক্ষে, সে বিষয়ে একাধিকবার বলেছেন রাজ্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক। তৃণমূল জেলা সভাপতির বিশেষ বার্তা, বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ সব কিছুর মধ্য দিয়ে পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের কঠিন লড়াইএর।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!