এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > কেশিয়াড়ির বিস্ফোরণ নিয়ে বিস্ফোরক রাজ্যপাল, পাল্টা দিল তৃণমূল!

কেশিয়াড়ির বিস্ফোরণ নিয়ে বিস্ফোরক রাজ্যপাল, পাল্টা দিল তৃণমূল!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই আইন-শৃঙ্খলা থেকে শুরু করে নানা বিষয় নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সরব হতে দেখা যায় রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকারকে। নির্বাচনের সময় যত এগিয়ে আসছে, ততই বিভিন্ন বিষয়ে গলদ চোখে পড়ে সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিচ্ছেন তিনি। পাল্টা বিভিন্ন সময় সরকারপক্ষের পক্ষ থেকে রাজ্যপালকে বিজেপির হয়ে কাজ করছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়েছে‌।

আর এই পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিয়ে কেশিয়াড়ির কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার। যেখানে তিনি আগেভাগেই এই ব্যাপারে সতর্ক করেছিলেন বলে দাবি করতে দেখা গেল পশ্চিমবঙ্গের সাংবিধানিক প্রধানকে। তবে রাজ্যপাল এই ধরনের দাবি করলেও, পাল্টা তার বিরুদ্ধে সরব হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে নির্বাচনের আগে রাজ্য বনাম রাজ্যপালের সম্পর্কের তিক্ততা যে আরও বৃদ্ধি পেল, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বুধবার সকালে কেশিয়াড়ির বাজি তৈরির কারখানায় কাজ করছিলেন শ্রমিকরা। আর তখনই হঠাৎ করে এই বিস্ফোরণ ঘটে। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন দু’জন‌। আর তারপর থেকেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে গোটা রাজ্য জুড়ে। বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, নির্বাচনের আগে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই কাজ করা হয়েছে। যদিও বা তা সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর এই পরিস্থিতিতে গোটা বিষয় নিয়ে মুখ খুলতে দেখা যায় রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকারকে। তিনি বলেন, “নৈহাটির পর আবার বিস্ফোরণ ঘটল। বারবার বিস্ফোরণ ঘটছে। কেউ ধরা পড়ছে না। আমাদের শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। ভোটের আগে হিংসামুক্ত পরিবেশ তৈরি করতে হবে। আমি আগেই সতর্ক করেছিলাম। রিটায়ার্ড অফিসাররা সব বসে গিয়েছে। তাই নিরাপত্তাব্যবস্থার এই হাল।” অর্থাৎ রাজ্যের নিরাপত্তাব্যবস্থা যে খুব একটা ভালো নয়, তা তুলে ধরে সরকারের দিকেই কটাক্ষ ছুড়ে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের সাংবিধানিক প্রধান বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে রাজ্যে ভয়ের আবহে কেউ ঠিক মত মুখ খুলতে পারে না বলেও এদিন মন্তব্য করতে দেখা যায় রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকারকে। স্বাভাবিকভাবেই বিরোধীদের পক্ষ থেকে এতদিন যে অভিযোগ করা হয়েছিল, সেই একই অভিযোগ রাজ্যপাল করায় রাজ্য সরকারের অস্বস্তি যে ক্রমশ বৃদ্ধি পাবে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত একাংশ। আর এই পরিস্থিতিতে এবার সেই রাজ্যপালের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে দেখা গেল তৃণমূল কংগ্রেসকে। যেখানে রাজ্যপালকে পাল্টা আক্রমণ করলেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষ।

এদিন তিনি বলেন, “রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার দিল্লির বিজেপি নেতাদের কাছ থেকে রাজনৈতিক সুপারি নিয়ে এসেছেন। তার প্রতিদ্বন্দিতা তৃণমূলের সঙ্গে নয়। তিনি দেখাতে চাইছেন, আদি বিজেপি, তৎকাল বিজেপি এবং পরিযায়ী বিজেপির থেকে তিনি বড় বিজেপি। তাই এই সব কথা বলছেন।” বিশ্লেষকরা বলছেন, এর আগেও একাধিকবার বিভিন্ন ইস্যুতে রাজ্য সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার।

আর এবার কেশিয়াড়ি বিস্ফোরণের পর রীতিমত রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন তিনি। যার পাল্টা মন্তব্য করে অতীতের মতই রাজ্যপালকে বিজেপির ঘনিষ্ঠ বলে বিস্ফোরক অভিযোগ করল তৃণমূল কংগ্রেস। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে নির্বাচনের আগে রাজ্য বনাম রাজ্যপালের সংঘাত আরও তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠবে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!