এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মোদীর স্বপ্নের প্রকল্প বাংলার বুকে সফল করতে নয়া পরিকল্পনা শুভেন্দু অধিকারীর, বাড়ছে জল্পনা

মোদীর স্বপ্নের প্রকল্প বাংলার বুকে সফল করতে নয়া পরিকল্পনা শুভেন্দু অধিকারীর, বাড়ছে জল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আজ প্রজাতন্ত্র দিবসের দিনে কেন্দ্রের নয়া তিন কৃষি আইনের পক্ষে কৃষকদের সঙ্গে নিয়ে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করলেন শুভেন্দু অধিকারী। আজ দিল্লিতে যখন কেন্দ্রের কৃষি আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্দ কৃষকদের ট্রাক্টর মিছিলে চলছে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি ও কাঁদানে গ্যাস। সেসময় নন্দীগ্রামে কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের পক্ষে কৃষকদের নিয়ে একাধিক কর্মসূচিতে যোগ দিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

আজ নন্দীগ্রাম ২ ব্লকের শিবরামপুর থেকে ঢোলপুকুর বাজার পর্যন্ত কৃষি আইনের সমর্থনে কৃষকদের সঙ্গে নিয়ে পদযাত্রা করলেন তিনি। এরপর বিরুলিয়া গ্রামের কৃষক পরিবারের কাছ থেকে শস্যদানা সংগ্রহ করলেন তিনি। তারপর স্থানীয় একটি স্কুলে সকলের সঙ্গে তাঁর মধ্যাহ্নভোজন চললো। এরপর ভগবানপুরে জনসভা করছেন শুভেন্দু অধিকারী। এই জনসভা থেকে শাসকদল তৃণমূলকে একহাত নিলেন তিনি।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

জনসভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী জানালেন যে, নির্বাচনে অনেক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন, কিন্তু জয়লাভ করেন একজন। পশ্চিমবঙ্গে একতার অভাব রয়েছে। তিনি জানান, মুখ্যমন্ত্রী জয় শ্রীরাম কথা শুনে বলেছেন যে, তাঁকে অপমান করা হয়েছে। অথচ জয় শ্রীরামের মত পবিত্র কথা আর থাকতে পারে না। তিনি জানালেন যে, মুখ্যমন্ত্রী জয় শ্রীরাম বললে রেগে যান, তাঁর ভাইপো তোলাবাজ বললে রেগে যান। শুভেন্দু অধিকারী জানালেন যে, দীর্ঘদিন ধরে তাঁকে অপমান করা হয়েছে।

তৃণমূল দলটি যখন প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানিতে পরিণত হল। তখন তিনি কর্মচারী হতে চাইলেন না। তাই বিজেপিতে যোগদান করলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তাঁকে গ্রহণ করেছেন। শাসকদল তৃণমূলকে কটাক্ষ ও অভিযুক্ত করে তিনি জানালেন যে, তৃণমূল লকডাউন এর সময় চাল চুরি করেছে, আম্ফানের সময় ত্রিপল চুরি করেছে, প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো করোনা টিকা চুরি করেছে। সমস্ত হিসাব দিতে হবে তৃণমূলকে। তিনি অভিযোগ করলেন, তাঁর স্লোগান পর্যন্ত তৃণমূল চুরি করেছে। কটাক্ষ করে জানালেন, এখন শুধু হরিবোল বলতে হবে শাসকদল তৃণমূলকে।

দুয়ারে সরকার কর্মসূচি সম্পর্কে তিনি জানালেন যে, সাড়ে ৯ বছর সরকার ঘরে আসেনি, তাই এখন জমের দুয়ারে সরকার চলছে। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, একশ দিনের টাকা চুরি করেছে তৃণমূল। স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প ভুয়ো। এরপরই তিনি জানান যে, চৌদ্দটি অঞ্চলে তৃণমূলকে একেবারে ভোকাট্টা করে দেবেন তিনি। লাল মাটিতে শুভেন্দু অধিকারী আর বালু মাটিতে দিলীপ ঘোষ ভোকাট্টা করবেন তৃণমূলকে। তিনি জানালেন এবারের নির্বাচন হবে কেন্দ্রীয় বাহিনীর নজরদারির মাধ্যমে অবাধ গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচন। তিনি নন্দীগ্রাম সহ গোটা বাংলা প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দিতে বললেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!