এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > কেন্দ্র সরকারের নতুন কৃষি বিলই ঠিক করে দেবে বিধানসভার ভাগ্য? প্রচারে রাস্তায় নামছে সব পক্ষই

কেন্দ্র সরকারের নতুন কৃষি বিলই ঠিক করে দেবে বিধানসভার ভাগ্য? প্রচারে রাস্তায় নামছে সব পক্ষই



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সংসদের বাদল অধিবেশনে কৃষি বিলকে কেন্দ্র করে তৈরি হওয়া ধুন্ধুমার পরিবেশ যখন, ঠিক সেই সময় কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধীশূন্য রাজ্যসভায় পাস করিয়ে নিল আরও একটি বিতর্কিত বিল, যার নাম ‘অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সংশোধনী আইন’। যার ফলে মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস অর্থাৎ চাল, ডাল, তেল, নুনসহ কৃষিজ পণ্য আর অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের তালিকায় থাকবে না। শুধু তাই নয়, একসাথে 7 টি বিল বিরোধীশূন্য রাজ্যসভায় বিনা বাধায় পাস করিয়ে নিল সংসদের শেষ দিনে কেন্দ্রীয় সরকার।

এমনিতেই কৃষি বিল নিয়ে শুরু হয়েছে দেশজুড়ে তুমুল বিতর্ক। চলছে জায়গায় জায়গায় কৃষক বিক্ষোভ। অন্যান্য রাজ্যের মতন পশ্চিমবঙ্গেও এবার কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধী কৃষক সংগঠনগুলি আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি শুরু করছে বলে জানা যাচ্ছে। তবে বিজেপিও বসে নেই। তাঁরা এবার কেন্দ্রীয় সরকারের পাস করা বিলগুলি নিয়ে প্রচারে নামতে চলেছে বলে জানা যাচ্ছে। সম্প্রতি সংসদে পাস হয়েছে কৃষি বিল 2020। এই বিলের বিরোধিতা করার জন্য ইতিমধ্যে বিরোধীদলের আটজন সাংসদকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

কার্যত বিরোধী দলগুলি কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে এবার এককাট্টা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে বুধবার কৃষি বিল এবং অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সংশোধনী আইন সংক্রান্ত বিল এর প্রতিবাদে কোলাঘাট ব্লকের উত্তর জিয়াদা হাই স্কুলে ‘অল ইন্ডিয়া কিষাণ ও ক্ষেত মজদুর সংগঠনের কোলাঘাট 2 শাখার পক্ষ থেকে একটি সভার আহ্বান করা হয়েছে। যেখানে আগামী 25 তারিখ ভারত গ্রামীণ বনধের ডাক দেওয়া হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। একইভাবে কৃষি বিল নিয়ে আন্দোলনে নামতে চলেছে কৃষক সংগ্রাম পরিষদ।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

ভারত গ্রামীণ বন্ধের সমর্থনে পথে নামছে এবার সারা ভারত কৃষক সভা। কৃষি বিল সম্পর্কে সংগঠনের অল ইন্ডিয়া কমিটির সদস্য চিত্তরঞ্জন দাস ঠাকুর এদিন জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের জন্য কালা আইনের ব্যবস্থা করেছে। যার ফলে আরেকটি মন্বন্তর আসতে চলেছে দেশে। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গ কিষাণ ক্ষেতমজুর তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি অসিত বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, তাঁরা অবশ্যই কৃষি বিল এর প্রতিবাদ করছেন কিন্তু বন্ধের বিরোধী তাঁরা।

অন্যদিকে কোলাঘাট-যশাড় রাস্তা খড়িচকে অবরোধ করে এদিন বাম কৃষক ও শ্রমিক সংগঠনগুলি। ঠিক বিপরীত দিকে নতুন কৃষি বিল এবং অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সংশোধনী আইন আইনের সমর্থনে পথে নামছেীরাজ্যে বিজেপি। এ প্রসঙ্গে বিজেপির তমলুক সাংগঠনিক জেলার কিষাণ মোর্চার সভাপতি বিশ্বনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন নতুন কৃষি বিল এর ফলে কৃষকরা বৃহত্তর কৃষি জগতের সঙ্গে যুক্ত হতে পারবে। কৃষিজ পণ্য বিক্রির ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবেন কৃষকরা।

তাই এই বিলগুলির সমর্থনে বিজেপি প্রচার চালাবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলায় একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে কৃষি বিল নিয়ে বিরোধিতা ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছে শাসক দল তৃণমূল। শুধু রাজ্যে নয়, সারা দেশে যেভাবে বিরোধিতা শুরু হয়েছে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে তা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে দাবি করছে রাজনৈতিক মহল। একপক্ষে বলা যেতে পারে কৃষি বিল নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার যেরকম চাপের মুখে পড়েছে, ঠিক সেভাবেই এ রাজ্যেও বিজেপি ক্রমশ কৃষি বিল নিয়ে কোণঠাসা হতে চলেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!