এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কাটমানি ইস্যু নিয়ে সরাসরি মমতাকে তোপ প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলরের, জোর সোরগোল রাজ্যে

কাটমানি ইস্যু নিয়ে সরাসরি মমতাকে তোপ প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলরের, জোর সোরগোল রাজ্যে



এ যেন বিনা মেঘে বজ্রপাত। দলে স্বচ্ছতা ফেরানোর জন্য যখন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন, ঠিক তখনই এবার সেই তৃণমূল নেত্রীর স্বচ্ছতা নিয়েই প্রশ্ন তুলতে দেখা গেল তৃণমূলের এক প্রাক্তন কাউন্সিলরকে। যে ঘটনায় এখন চরম চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে।

প্রসঙ্গত, গত 18 জুন নজরুল মঞ্চে দলের কাউন্সিলরদের নিয়ে বৈঠকে কেউ কাটমানি খেলে তা ফেরত দিতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারপরই দিকে দিকে তৃণমূলের দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন সাধারন মানুষ। স্বয়ং দলনেত্রী দলের নেতাদের বিরুদ্ধে এইরুপ হুঁশিয়ারি দিলে প্রবল বিপাকে পড়েন তৃণমূলের অনেকে।

জানা গেছে, গত মঙ্গলবার মেদিনীপুর শহরের 5 নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর মৌ রায়ের কাছে এক প্রোমোটার ফোন করে কাটমানির টাকা ফেরত চান।অভিযোগ, তৃণমূলের এই প্রাক্তন কাউন্সিলার ওই প্রোমোটার এলাকায় একটি ফ্ল্যাট তৈরির সময় তার কাছ থেকে দু’দফায় প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর এবার তার কাছে টাকা সেই টাকা চাওয়াতেই এদিন তিনি প্রোমোটারের বাড়িতে হামলা করেছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়। যদিও বা সেই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে পাল্টা সেই প্রোমোটারের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন সেই তৃণমূল কাউন্সিলর। আর এতেই কিছুটা অস্বস্তিতে পারেন সেই কাউন্সিলর।

এদিন সেই প্রসঙ্গে মুখ খুলতে গিয়ে মেদিনীপুর শহরের 5 নম্বর ওয়ার্ডের এই তৃণমূল কাউন্সিলর মৌ রায় বলেন, “দিদি কাটমানি ফেরত দেওয়ার কথা বলে আমাদের বিপদে ফেলে দিয়েছেন। দিদি যদি মনে করে থাকেন তিনি একাই সৎ, তাহলে অত্যন্ত ভুল। আমাদের মত কিছু মানুষ আছে, যারা আজ বিপদে পড়ছে। আমরা চরম সংকটে এবং আতঙ্কে রয়েছি।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, মৌ দেবীর এই কথা থেকেই পরিষ্কার যে তৃণমূল নেত্রীর কাটমানি খাওয়া বন্ধ করতে চাইলেও তা দলের নিচুতলার কর্মীরা মানতে নারাজ। আর তাই তো এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সততা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়ে দলীয় কাউন্সিলারের এহেন মন্তব্য তৃণমূলকে যে অনেকটাই অস্বস্তিতে ফেলল, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!