এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কাশ্মীরের জন্য এবারের ভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী কম, বেশিরভাগ বুথেই দায়িত্বে রাজ্য পুলিশ

কাশ্মীরের জন্য এবারের ভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী কম, বেশিরভাগ বুথেই দায়িত্বে রাজ্য পুলিশ



আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের প্রতি বুথে যাতে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট করানো যায়, তার জন্য প্রথম থেকেই নির্বাচন কমিশনের কাছে আর্জি জানিয়ে এসেছে সমস্ত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। কিন্তু বর্তমানে জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি খুব একটা ভালো নয়।

আর তাই এবারের নির্বাচনে রাজ্যে কতটা কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা যাবে, তা নিয়ে কিছুটা হলেও সংশয় দেখা গেছে নির্বাচনী আধিকারিকদের মধ্যে। আর এবারে রাজ্যে এসে রাজ্য সরকারের সদর দপ্তর নবান্নে রাজ্য পুলিশের এডিজি সিদ্ধিনাথ গুপ্তা এবং ডিজি বীরেন্দ্রর সঙ্গে বৈঠক করে ঠিক কিভাবে নিরাপত্তা বাহিনী দিয়ে ভোট হবে সেই ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা সালের নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে নিযুক্ত কেন্দ্রের বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, এদিন সকাল 11 টা থেকে এই বৈঠক শুরু হয়। আর সেই বৈঠকের আলোচনা হওয়ার সূত্র মারফত খবর পাওয়া গেছে যে, রাজ্যের প্রতি বুথ পিছু হাফ সেকশন অর্থাৎ চারজন করে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান রাখা হবে এবং সাধারন ক্যাটাগরির বুথে রাজ্যের সশস্ত্র পুলিশই থাকবে।

তবে প্রথম দফার ভোটের আর সামান্য কিছু দিন বাকি থাকলেও এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ঠিক কত কেন্দ্রীয় বাহিনী আসবে, সেই ব্যাপারে সঠিক তথ্য রাজ্য নির্বাচন আধিকারিকের দপ্তরে এসে পৌঁছয়নি বলেই খবর। তবে ভোট ঘোষণার পর রাজ্যে যে 10 কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী এসেছে, তার মধ্যে চার কোম্পানি উত্তরবঙ্গে এবং তিন কোম্পানি আসানসোল, পূর্ব মেদিনীপুর এবং উত্তর দিনাজপুর থেকে পাঠানো হচ্ছে।

তবে প্রথম ধাপের ভোটের আগে ঠিক আর কত কেন্দ্রীয় বাহিনী রাজ্যে আসবে, তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। তবে শুধুমাত্র স্পর্শ কাতর বুথেই যে কেন্দ্রীয় বাহিনী রাখা হবে, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ। কেননা জম্মু-কাশ্মীরের উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে সেখান থেকে কেন্দ্রীয় বাহিনী অন্যান্য রাজ্যে নিয়ে গেলে সেখানকার পরিস্থিতির কোনোরুপ অবনতি হলে নির্বাচন প্রক্রিয়া অনেকটাই বাধাপ্রাপ্ত হতে পারে। তাই বুঝেশুনেই এই কেন্দ্রীয় বাহিনীর ব্যবহার করতে উদ্যোগী কমিশন বলে খবর।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!