এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > একদিকে আমডাঙায় শান্তি ফেরাতে মাঠে নামছেন অভিষেক ,অন্যদিকে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে গ্রেপ্তারের দাবি

একদিকে আমডাঙায় শান্তি ফেরাতে মাঠে নামছেন অভিষেক ,অন্যদিকে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে গ্রেপ্তারের দাবি



এবার রাজ্যের শাসকদলই পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনের মরশুমে হিংসার শিকার। এদিন সংঘর্ষের জেরে খুন হলেন তৃণমূল কংগ্রেসের দুই সক্রিয় কর্মী। অভিযোগের তীর রয়েছে বামফ্রন্টের দিকে। ঘটনাস্থল আমডাঙ্গা। দলীয় কর্মী খুনের প্রতিবাদে  সেপ্টেম্বরের ৬ তারিখ আমডাঙ্গায় শান্তি মিছিল করতে পথে নামবে তৃণমূল। মিছিলের সামনে হাঁটবেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। মিছিলের পরই দলের তরফ থেকে বসা হবে একটি মিটিং-এ। এই সভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশাপাশি উপস্থিত থাকবেন সুব্রত বক্সি, ফিরহাদ হাকিম, দলের উত্তর ২৪ পরগনার জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক প্রমুখ তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতারা। এ প্রসঙ্গে এক তৃণমূল নেতা জানান, নজিরবিহীন সন্ত্রাস চালানো হচ্ছে আমডাঙ্গায়। এই ব্যাপারটা রাজ্যবাসীর নজরে আনতেই আমডাঙ্গায় মিছিল এবং সভা করার উদ্যোগ নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।

অন্যদিকে,আমডাঙ্গার ঘটনার জন্য অভিযুক্ত হিসাবে তৃণমূলের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতি তথা খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে গ্রেপ্তারের দাবি তুলল CPI(M)। গতকাল বারাসত জেলা কার্যালয়ে বসে CPI(M) জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সুভাষ মুখোপাধ্যায় বলেন, আমডাঙ্গার দলের দায়িত্বে থাকা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আহমেদ খানকে যদি এ ঘটনার জেরে গ্রেফতার হতে হয়,তাহলে জ্যোতিপ্রিয় বাবু কেন রেহাই পাবেন? প্রশ্ন তুললেন তিনি। উল্লেখ্য,আমডাঙ্গায় হিংসার ঘটনার জেরে গুরুতর আহত অবস্থায় আরজি কর হাসপাতালে ভর্তি সিপিআইএম কর্মীদের অবস্থার খোঁজ খবর নিতে গিয়েছিলেন আহমেদ খান। সেখান থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। অথচ পুলিশ নথি দেখাচ্ছে তাকে আমডাঙ্গা থেকেই গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশের এই চালাকি সবাই বুঝতে পেরেছে বলেই দাবী তুলেছেন তাঁরা। এছাড়া আহমেদ খান সহ আরো ১০ জন বাম কর্মী সমর্থকদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছে পুলিশ, এমনটা বলেও অভিযোগ তোলেন তিনি। শুধু তাই নয়, এ ঘটনার নেপথ্যে বহিরাগতরা রয়েছে বলেও দাবীতে জানিয়েছেন তিনি। জেলার একাধিক জায়গায় শাসকদল নীরবে সন্ত্রাস ছড়িয়ে পঞ্চায়েত দখলের পরিকল্পনা করছে। বোমা বন্দুক নিয়ে হামলা করছে। এবং এই সন্ত্রাস ছড়ানোর কার্যক্রম এখনো অব্যাহত রয়েছে বলেই অভিযোগ করেন তিনি।

এদিকে সাংবাদিক সম্মেলনে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের তোলা অভিযোগকে পাত্তা না দিয়ে বামেদের জেলা সম্পাদক মৃণাল চক্রবর্তী পাল্টা প্রশ্ন তুলে জানান, বাইরে থেকে দুষ্কৃতিরা আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে রাজ্যে ঢোকে কী করে? রাজ্যের পুলিশ প্রশাসন কী করছিল তখন? আর জ্যোতিপ্রিয় বাবুর কাছে যদি এ তথ্য থেকে থাকে তাহলে সেটা তদন্ত করার দাবী জানালেন তিনি। এদিন পুলিশ সুপারের সঙ্গে দেখা করে আমডাঙ্গার ঘটনার জন্য মূল অভিযুক্তকে গ্রেফতারের দাবী জানানো হবে বামফ্রন্টের তরফ থেকে। সেই কারণেই  আমডাঙ্গা থানায় বাম কর্মী সমর্থকদের জমায়েত হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে সিপিএম-এর এ অভিযোগকে বিশেষ গুরুত্ব দিল না তৃণমূল। দলের জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের মনে হয়েছে বামেদের উচিৎ চুপ করে থাকা। কারণ আমডাঙ্গায় গন্ডোগোলের ঘটনায় মূল দোষী জাকির হোসেনের সঙ্গে ঘনিষ্টতা রয়েছে সিপিআইএম-এর জেলা নেতৃত্বদের। তবে তাঁর বিরুদ্ধে বামেরা গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছে তা নিয়ে বিশেষ চিন্তিত নন তিনি,এমনটাই মন্তব্যে বোঝালেন তিনি।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!