এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > জঙ্গলমহলে ফের শক্তিবৃদ্ধি শাসকদলের, বিজেপির ঘর ভেঙে বড়সড় যোগদান তৃণমূলে!

জঙ্গলমহলে ফের শক্তিবৃদ্ধি শাসকদলের, বিজেপির ঘর ভেঙে বড়সড় যোগদান তৃণমূলে!



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গত লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকেই জঙ্গলমহলে তৃণমূলের ঘাড়ে নিশ্বাস ফেলে উত্থান ঘটেছে ভারতীয় জনতা পার্টির। যত দিন যাচ্ছে, ততই সেখানে তৃণমূল ছেড়ে নেতা-কর্মীদের বিজেপিতে যোগদান করতে দেখা গেছে। কিন্তু এবার কি বিজেপির হাওয়া ফিকে হতে শুরু করল? সূত্রের খবর, বরাবাজার পঞ্চায়েত সমিতির 5 বিজেপি সদস্য এবার যোগ দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে।

জানা গেছে, শনিবার পুরুলিয়া জেলা তৃণমূলের কার্যালয়ে বরাবাজার পঞ্চায়েত পঞ্চায়েত সমিতির বিজেপির পাঁচ সদস্য, যার মধ্যে তিনজন পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ এবং বিজেপির বরাবাজার 2 মন্ডলের সহ-সভাপতি ঘাসফুল শিবিরে যোগ দিয়েছেন। যাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক গুঞ্জন তৈরি হয়েছে এলাকাজুড়ে।

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই এখানে বিজেপির উত্থান ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু বিধানসভা নির্বাচন যখন সামনে, তখন যেভাবে পঞ্চায়েত সমিতির পাঁচ বিজেপি সদস্য তৃণমূলে যোগ দিলেন, তাতে ভারতীয় জনতা পার্টি এখানে ব্যাপক চাপে পড়ল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, 28 আসন বিশিষ্ট এই বরাবাজার পঞ্চায়েত সমিতিতে গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল 14, বিজেপি 13 এবং কংগ্রেস 1 টি আসনে জয়লাভ করে। আর তারপরই কংগ্রেসের রামজীবন মাহাতোকে নিজেদের দিকে এনে তাকে সভাপতি করে বিজেপি এই পঞ্চায়েত সমিতির দখল নিয়েছিল। কিন্তু এদিন বিজেপির পাঁচ সদস্য তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ায় পঞ্চায়েত সমিতি তৃনমূলের দখলে চলে এল বলেই দাবি ঘাসফুল শিবিরের।

জানা গেছে, বিজেপির পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য মৌমিতা সিংহদেব, নিবারণ মাহাতো, বিশাখা বাউরি, সুমিত্রা মাহাতো এবং সুমতি মাহাতো তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। কিন্তু কেন তারা বিজেপি ত্যাগ করলেন? এদিন এই প্রসঙ্গে মৌমিতা সিংহদেব বলেন, “এলাকার উন্নয়ন করব বলে মানুষ আমাদের জিতিয়েছিলেন। কিন্তু পঞ্চায়েত সমিতি গঠন হওয়ার পরে উন্নয়ন না হওয়ায় মানুষের প্রশ্নের জবাব দিতে পারছি না। তাই তৃণমূলে এসেছি।”


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিকে বরাবাজার 2 মণ্ডলের বিজেপি সহ-সভাপতি জয়দেব গোস্বামীও এদিন বিজেপি ত্যাগ করেছেন। দলত্যাগ করার কারণ হিসেবে জয়দেববাবু বলেন, “বিজেপির রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি প্রবেশ করেছে। প্রতিবাদ করলে তৃণমূল বলে দাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে। দলে গণতন্ত্রের দাবি জানাতে গিয়ে সদস্যদের একাংশের হেনস্থার শিকার হয়েছি। সব ভেবেই এই সিদ্ধান্ত নিলাম।”

এদিকে বিজেপি থেকে ব্যাপক সদস্য তাদের দলে আসায় এখন উজ্জীবিত তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপিতে যাওয়া যে সমস্ত নেতারা বিজেপি নেতৃত্বের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন, তা অবশ্য সম্পূর্ণরূপে খন্ডন করেছে বিজেপি পদাধিকারীরা। এদিন এই প্রসঙ্গে বরাবাজার 2 ব্লক বিজেপির সভাপতি লবসেন বাস্কে বলেন, “আমাদের দলে দুর্নীতিগ্রস্তদের ঠাঁই নেই। জেতার পর থেকে তারা তৃণমূলের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছেন। দল বিরোধী কার্যকলাপ ও শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে আগেও ওই কর্মকর্তা ও সদস্যদের শোকজ করা হয়েছে। তার জবাব পাইনি।”

এদিকে এই ব্যাপারে জেলা বিজেপির সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী বলেন, “মানুষ তৃণমূলের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিলেন। পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যরা তো উপলক্ষ মাত্র। তৃণমূল পঞ্চায়েত সমিতি দখলের স্বপ্ন দেখছে। আর একুশের নির্বাচনে আমরা সরকারে আসছি।” তবে বিজেপি নেতৃত্বের পক্ষ থেকে যে কথাই বলা হোক না কেন, যেভাবে বিধানসভা নির্বাচনের আগে 5 পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন এবং তার ফলে তৃণমূল পঞ্চায়েত সমিতি ক্ষমতা হারাবে বলে দাবি করা হচ্ছে তাতে নিঃসন্দেহে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। গোটা ঘটনায় এখন বিজেপি যে জঙ্গলমহল এলাকায় কিছুটা হলেও ব্যাকফুটে চলে গেল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!