এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > কোর কমিটির বৈঠকে দলনেত্রীর প্রকাশ্যে ভর্ৎসনার পরেই ঘুরে দাঁড়ানো শুরু তৃণমূল সাংসদের

কোর কমিটির বৈঠকে দলনেত্রীর প্রকাশ্যে ভর্ৎসনার পরেই ঘুরে দাঁড়ানো শুরু তৃণমূল সাংসদের



  রবিবার ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমুল কংগ্রেসের উদ্যেগে এক মিছিলের আয়োজন করা হয়েছিল মাণিকপাড়া এলাকায়। এদিনের এই মিছিলে নেতৃত্ব দেন ঝাড়গ্রামের তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ ডঃ উমা সরেন। এদিনের এই মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ঝাড়গ্রামের বিধায়ক সুকুমার হাঁসদা, গোপীবল্লভপুরের বিধায়ক তথা প্রাক্তন অনগ্রসর শ্রেণীকল্যান দফতরের মন্ত্রী চুড়ামণি মাহাত, ঝাড়গ্রাম ব্লকের নতুন ব্লক সভাপতি রবীন্দ্রনাথ মাহাত সহ একাধিক শাসকদলের স্থানীয় শীর্ষস্তরের নেতা-নেত্রী। মাণিকপাড়া গালর্স হাইস্কুল সংলগ্ন এলাকা থেকে মিছিল শুরু হয়ে গোটা মাণিকপাড়া বাজার এলাকা পরিক্রমা করে বিবেকানন্দ মোড় হয়ে সরডিহা রেল স্টেশন হয়ে ফের মাণিকপাড়া গালর্স হাইস্কুলে এসে মিছিল শেষ হয়। এই দিনের এই মিছিলে মেঘ-বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে বেশ বড় রকমের অংশগ্রহণ লক্ষ্য করা যায়। মিছিলে মহিলাদের উপস্থিতির হার বেশ লক্ষ্যণীয় ছিল। প্রতিকূল আবহাওয়া ও বৃষ্টির কারণে বেশ কিছু নেতা-মন্ত্রী মিছিলের মাঝপথেই পার্শ্ববর্তী বাড়িতে বা দোকানে আশ্রয় নিতে বাধ্য হলেও, সাংসদ উমা সরেন ছাতা মাথায় নিয়েই মিছিলে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পা মেলান।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ঝাড়গ্রাম জেলায় ছয়টি ব্লকের সভাপতিদের সরিয়ে নতুন ব্লক সভাপতিদের দায়িত্ব দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ-নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারফলে ব্লকে নতুন সভাপতিদের নাম ঘোষনা হওয়ার পর থেকেই যাঁরা এক সময় অভিমান করে দল ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন তাঁরা আবার পুনরায় দলে ফিরতে শুরু করেছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে। এদিনের মিছিলে তাঁদের উপস্থিতিও বেশ বড় সংখ্যায় ছিল। এবারের একুশের জুলাইয়ের মঞ্চকে সাফল্যমন্ডিত করে তুলতে জঙ্গলমহল তথা ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূল নেতৃত্ত্ব বিশেষ উদ্যেগ নিয়েছেন। জেলার প্রতিটি বুথস্তর থেকে শুরু করে ব্লক স্তর পর্যন্ত মিছিল, প্রস্তুতি সভা করার নির্দেশ দিয়েছেন জেলা নেতৃত্ব। কিন্তু সবথেকে বড় কথা স্থানীয় সাংসদ ডঃ উমা সরেনের সামনে থেকে নেতৃত্ত্ব দেওয়া। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই তাঁর কিছু মন্তব্যে স্থানীয় আদিবাসীমহলে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়। এমনকি তাঁর এমপি ফান্ডের টাকা ঠিকভাবে এলাকা উন্নয়নে কাজে না লাগানোয় প্রকাশ্যে কোর-কমিটির বৈঠকে দলনেত্রীর কাছে ভর্ৎসিত হন – কিন্তু এদিন প্রতিকূল পরিস্থিতেও নতুন-পুরোনো সবাইকে নিয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ত্ব দিয়ে জঙ্গলমহলে দলনেত্রীর মুখে হাসি ফোটানোর সুব্যবস্থা করলেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!