এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > জাতীয় রাজনীতিতে কি কংগ্রেসে আবার বড় ধ্বস? হেভিওয়েট কংগ্রেস নেতা কি সেই ইঙ্গিতই দিলেন?

জাতীয় রাজনীতিতে কি কংগ্রেসে আবার বড় ধ্বস? হেভিওয়েট কংগ্রেস নেতা কি সেই ইঙ্গিতই দিলেন?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গত বছর জাতীয় রাজনীতিতে আলোচনার শীর্ষে ছিল শচীন পাইলট এবং অশোক গেহলটের রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব। নতুন এবং পুরনোর দ্বন্দে কার্যত শচীন পাইলট দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার ইঙ্গিত দেন। আর সেই ইঙ্গিত পাওয়ামাত্রই নড়েচড়ে বসে জাতীয় কংগ্রেস শিবির। কার্যত এই প্রসঙ্গ উঠে এসেছে আবার জাতীয় রাজনীতিতে। গতকাল উত্তরপ্রদেশের অন্যতম কংগ্রেস নেতা জিতিনপ্রসাদ বিভিন্ন বিষয়ে কংগ্রেসের প্রতি ক্ষোভ থেকে দল ছেড়ে যোগ দিলেন বিজেপিতে। আর এবার শোনা যাচ্ছে, সেই একই পথের পথিক হতে চলেছেন মরু রাজ্যের অন্যতম তরুণ কংগ্রেস নেতা শচীন পাইলট।

গত বছর যখন শচীন পাইলট দল ছেড়ে চলে যাবার কথা বলেছিলেন, তখন তড়িঘড়ি পরিস্থিতি সামলাতে আসরে নামেন স্বয়ং রাহুল গান্ধী। পাইলটকে ধরে রাখার জন্য বেশ কিছু প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় তাঁকে। কিন্তু এক বছরের কাছাকাছি হয়ে গেলেও সেই প্রতিশ্রুতি রাখা হয়নি বলে দাবি করেছেন শচীন পাইলট। আর তারপরেই গুঞ্জন শুরু হয়েছে, তাহলে কি এবার জিতিনপ্রসাদের পর শচীন পাইলটের পালা বিজেপিতে যোগ দেবার? প্রসঙ্গত জানা গিয়েছে, শচীন পাইলট সোমবার একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন এবং সেখানেই এই প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের প্রসঙ্গটি তুলে আনেন। তিনি জানান, তাঁকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে কংগ্রেসে থাকতে বলা হয়েছিল, দশ মাস কেটে গেলেও সেই প্রতিশ্রুতি পালনের কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

উল্লেখ্য, শচীন পাইলটকে কংগ্রেসের রাখতে কংগ্রেস হাই কমান্ডের পক্ষ থেকে স্থির করা হয়েছিল, রাজস্থান মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ করা হবে এবং সেখানে শচীন অনুগামীদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে জায়গা দেওয়া হবে। কিন্তু প্রাথমিকভাবে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট এই প্রস্তাবে রাজি হলেও পরবর্তীতে তিনি মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ কার্যত স্থগিত রাখেন। সেক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এভাবে প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ শচীন পাইলট যে ভালোভাবে নিচ্ছেন না তা তিনি বুঝিয়ে দিলেন সাংবাদিক বৈঠকে। সেক্ষেত্রে বড় প্রশ্ন, তাহলে কি এবার শচীন পাইলটও কংগ্রেস ছাড়বেন? রাজনৈতিক মহলের অনেকেরই দাবী, রাজস্থানে কংগ্রেসের ক্ষমতায় আসার পেছনে অন্যতম কারীগর হলেন শচীন পাইলট।

অন্যদিকে উত্তরপ্রদেশেও জিতিনপ্রসাদ কংগ্রেসের বিভিন্ন ব্যাপারে হতাশ হয়েই দলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়েছিলেন আর সেই দূরত্বের কারণেই অবশেষে তিনি বিজেপিতে যোগদান করলেন। যদিও জিতিনপ্রসাদ দলের সাথে দূরত্বের কথা বললেও একুশের বাংলা বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের ভোট প্রচারের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তাঁর ওপর। যদিও এ রাজ্যে কংগ্রেস একটিও ভোট পায়নি। সব মিলিয়ে জাতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেস কিন্তু খুব একটা ভালো জায়গায় আর থাকছেনা বলেই মনে করা হচ্ছে। কংগ্রেসের ভাঙন ধরিয়ে বিজেপি কিন্তু তার শক্তি ক্রমশ বাড়িয়ে নিচ্ছে, যা বিজেপি বিরোধীদের অন্যতম চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!