এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > ঝাড়খন্ডে বিজেপি সরকারের পতন আর জঙ্গলমহলে ছত্রধরের পদপ্রাপ্তি! মাওবাদীদের আনাগোনা ঘিরে প্রশ্ন

ঝাড়খন্ডে বিজেপি সরকারের পতন আর জঙ্গলমহলে ছত্রধরের পদপ্রাপ্তি! মাওবাদীদের আনাগোনা ঘিরে প্রশ্ন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –দীর্ঘদিন পর অবশেষে শ্রীঘর থেকে মুক্তি পেয়েছেন জনসাধারণ কমিটির নেতা ছত্রধর মাহাতো। বিগত বাম আমলে জেলে বন্দী হয়েছিলেন তিনি। তার পর দীর্ঘদিন শ্রীঘরে থাকতে হয়েছে তাকে। অবশেষে কিছুদিন আগেই জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন তিনি। আর তারপরেই তাকে নিয়ে রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছিল।

একসময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ হলেও, জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর ছত্রধর মাহাতো আদৌ কোনো রাজনৈতিক দলের হয়ে ময়দানে নামবেন কিনা, তা নিয়ে তৈরি হয়েছিল সংশয়। অবশেষে কিছুদিন আগেই তৃণমূল কংগ্রেসে পাকাপাকিভাবে যুক্ত হয়ে রাজ্য কমিটিতে সাধারণ সম্পাদকের পদ পেয়েছেন ছত্রধর মাহাতো।

এদিকে ছত্রধর মাহাতোকে দিয়ে নিজেদের সংগঠনের শ্রীবৃদ্ধিতে তৃণমূল উদ্যোগে হলেও, জঙ্গলমহল নিয়ে নতুন করে চিন্তা বাড়তে শুরু করেছে। বস্তুত, পশ্চিমবঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার ক্ষমতায় আসার পর সেভাবে আর জঙ্গলমহলে মাওবাদীদের উপদ্রব হতে দেখা যায়নি। কিন্তু ছত্রধর মাহাতো দায়িত্ব পাওয়ার পর দীর্ঘ 9 বছর পর অবশেষে আবার জঙ্গলমহলে মাওবাদীদের আনাগোনা শুরু হয়েছে বলে খবর।

জানা গেছে, গত 15 আগস্ট বেলপাহাড়ির বিভিন্ন এলাকায় স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে কালা দিবস পালনের ডাক দেওয়া হয়েছিল মাওবাদীদের পক্ষ থেকে। যেখানে পোস্টার পড়তেও দেখা যায়। যা নিয়ে তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয় এলাকায়। অনেকে বলছেন, যতদিন ঝাড়খন্ডে বিজেপি শাসিত সরকার ছিল, ততদিন এই ধরনের মাওবাদী উপদ্রব দেখা যায়নি।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু ঝাড়খণ্ডের নতুন জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আবার নতুন করে মাওবাদীর উপদ্রব তৈরি হতে দেখা যায়। তাহলে কি ঝাড়খন্ডে ক্ষমতা বদলের ফলে মাওবাদীরা নতুন করে এই রাজ্যের জঙ্গলমহলে ঘাটি গাড়তে শুরু করেছে? রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তাহলে কি মূলত দুটি কারণের জন্যই জঙ্গলমহলে নতুন করে মাওবাদীরা সক্রিয় হতে শুরু করেছে?

একাংশের মতে, এর পেছনে ঝাড়খন্ডে ক্ষমতা বদল প্রধান কারণ। অন্য অংশ বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে শ্রীঘরে ছিলেন ছত্রধর মাহাতো। বিগত বাম সরকারের আমলে তার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ উঠেছিল। আর তারপরেই তাকে জেলে বন্দী করা হয়। আর এবার সেই ছত্রধর মাহাতো ফিরে আসার সাথে সাথেই যেভাবে আবার নতুন করে জঙ্গলমহলে লাল গেরিলাদের দাপট বাড়তে শুরু করেছে, তাতে এই দুই কারণকেই প্রধান কারণ বলে দাবি করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে যদি সত্যি সত্যিই জঙ্গলমহলে আবার নতুন করে মাওবাদীরা ঘাটি করতে শুরু করে, তাহলে তা রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে অস্বস্তির কারণ হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। যাকে কেন্দ্র করে বিরোধীরা 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে নতুন করে রাজনৈতিক অস্ত্র প্রয়োগ করতে পারে। এখন গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, ছত্রধর মাহাতোর সক্রিয় হওয়া এবং ঝাড়খন্ডে বিজেপি সরকারের পতনের ফলে জঙ্গলমহলে মাওবাদীদের নিয়ে আনাগোনা প্রধান ভাবে দায়ী কি না! সেই রহস্য উন্মোচনেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!