এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > জঙ্গলমহলে তিন বিধানসভার ওপর ভর করেই বাঁকুড়াতে ঘাসফুল ফোটাতে মরিয়া শাসকদল

জঙ্গলমহলে তিন বিধানসভার ওপর ভর করেই বাঁকুড়াতে ঘাসফুল ফোটাতে মরিয়া শাসকদল



বিগত 2014 সালের লোকসভা নির্বাচনের মতই এবারও বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্র নিজেদের দখলে রাখতে মরিয়া শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। একদা মাও অধ্যুষিত এই বাঁকুড়ার জঙ্গলমহলের তিনটি বিধানসভা এলাকায় যাতে লিড পাওয়া যায় সেই ব্যাপারটিকে পাখির চোখ করেই ফের এই কেন্দ্রটিতে জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী ঘাসফুল শিবির।

প্রসঙ্গত, গত 2014 সালের লোকসভা নির্বাচনে এই বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মুনমুন সেন এই লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত রানিবাঁধ বিধানসভা থেকে 19 হাজার 171, রাইপুর বিধানসভা থেকে 29 হাজার 144 এবং তালডাংরা বিধানসভা থেকে 1509 ভোটে লিড পেয়েছিলেন। তবে এই তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে মূল ক্ষমতা বামেদের হাতেই ছিল। কিন্তু লোকসভায় এই তিনটে বিধানসভায় বিপুল ভোটে লিড পেয়ে জয়লাভ করেন তৃনমূল প্রার্থী মুনমুন সেন।

পরবর্তীতে 2016 র বিধানসভা নির্বাচনে এই তালডাংরা এবং রানিবাঁধ আসনে বামেরা পরাজিত হয়ে যায়। আর এবার সেই বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্র দখল করতে ফের বাঁকুড়া লোকসভার অন্তর্গত তিন বিধানসভা রানিবাঁধ, রাইপুর এবং তালডাংরায় জয় পেতে মরিয়া তৃণমূল প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। কিন্তু তৃণমূল প্রার্থীর এই জয়ের পেছনে কিছুটা চিন্তার কাটা হয়ে দাড়িয়েছে বিজেপি।

কেননা গত 2018 সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাইপুর এবং রানিবাঁধের বিভিন্ন এলাকায় শাসক দল তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলেছে গেরুয়া শিবির। অনেক জায়গায় বিজেপি বোর্ড গঠন করে তৃণমূলকে অনেকটাই ব্যাকফুটে ফেলে দিয়েছে। ফলে বিগত পঞ্চায়েতের মতো যদি লোকসভা নির্বাচনে একই ঘটনা ঘটে, তাহলে অনেকটাই বিপাকে পড়তে হতে পারে তৃণমূলকে বলে সেই আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহলের একাংশও।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে বিগত পঞ্চায়েতে দলের খারাপ ফলাফলের পেছনে নেতাদের একাংশই দায়ী বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তৃণমূল নেতা। কিন্তু কি হবে এই বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রে? এই লোকসভার অন্তর্গত জঙ্গলমহলের তিন বিধানসভায় কি আদৌ লিড পাবে তৃণমূল? এদিন এই প্রসঙ্গে বাঁকুড়া জেলা তৃণমূলের সভাপতি অরূপ খাঁ বলেন, “গত আট বছরে তৃণমূল সরকারের উদ্যোগে জঙ্গলমহলে প্রচুর উন্নয়ন হয়েছে। শান্তি ফিরেছে। মানুষ সিপিএম ও বিজেপিকে প্রত্যাখ্যান করবে। সারা বছর আমরাই মানুষের পাশে থাকি। তাই এবারে জঙ্গলমহলের তিন আসনে জয়ের ব্যবধান আরও বাড়বে।”

অন্যদিকে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে কোনো ফারাক নেই। তারাই জঙ্গলমহলে 3 আসনে প্রথম স্থান দখল করবে বলে জানান বাঁকুড়া জেলা সিপিএমের সম্পাদক অজিত পতি। এদিকে জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী বিজেপিও। এদিন এই প্রসঙ্গে বাঁকুড়া জেলা বিজেপির সভাপতি বিবেকানন্দ পাত্র বলেন, “সিপিএম ও তৃণমূলের ওপর জঙ্গলমহলবাসী বীতশ্রদ্ধ। মাও সন্ত্রাসের বদলে তৃনমূল এখানে রাজনৈতিক সন্ত্রাস চালাচ্ছে। ফলে এবার জঙ্গলমহলবাসী বিজেপিকেই চাইছে।”

সব মিলিয়ে এবার বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্র দখল করতে জঙ্গলমহলের তিন বিধানসভার ওপরই ভরসা করে এগোতে চাইছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। তবে শেষ পর্যন্ত শাসকদলের আশা পূর্ণ হয় কিনা তা দেখবার জন্য অপেক্ষা করতেই হবে আগামী 23 মে পর্যন্ত।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!