এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিধানসভা-লোকসভা নির্বাচনের আগে রাজস্থানে বড়সড় হোঁচট খেলেন নরেন্দ্র মোদীর সেনাপতি

বিধানসভা-লোকসভা নির্বাচনের আগে রাজস্থানে বড়সড় হোঁচট খেলেন নরেন্দ্র মোদীর সেনাপতি



এই প্রথম কোনো রাজনৈতিক কাজে অসফল হলেন অমিত শাহ। তাও আবার বিজেপির দলের সর্ব ভারতীয় সভাপতি হওয়ার পরে। রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়ার ব্যক্তিগত ইচ্ছেকে সম্মান জানাতে আপাতত নিজের পছন্দের প্রার্থীকে বাতিল করে ঐ রাজ্যে বিজেপি দলীয় সভাপতি পদে মদনলাল সাইনিকে মনোনীত করলেন। প্রসঙ্গত, শাহ-সিন্ধিয়ার জাঠ-রাজপুত দরাদরিতে এক প্রকার বাধ্য হয়েই বিজেপি দল এখন মালি সম্প্রদায়ের নেতাকে দলীয় মুখপাত্র করে রাজস্থানে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চাইছে।সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন এবং উপনির্বাচনগুলিতে ধাক্কা খাওয়ার পরে গেরুয়া শিবির এখন রাজস্থান বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে এগোতে চাইছে।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিকে দলের অভ্যন্তরীণ সমীক্ষা বলছে, রাজস্থানে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মানুষের সরকার বিরোধী জনমত তৈরী হয়েছে, বিরোধী দলগুলির মধ্যে কংগ্রেস শিবির জনসংযোগ করে নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করছে। এই অবস্থায় অমিত শাহ চেয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে অপসারিত না করে দলের রাজ্য সভাপতি পদে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা সাংসদ গজেন্দ্র সিংহ শেখাওয়াত অথবা অর্জুন রাম মেঘওয়াল-এর মতো কোনো অভিজ্ঞ নেতাকে মনোনীত করতে। কিন্তু রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের ইচ্ছেকে প্রাধান্য দিতে মুখ্যমন্ত্রীর অনুগত সাংসদ ভূপেন্দ্র যাদবকে ঐ রাজ্যের দলীয় সভাপতির পদে মনোনীত করা হলো। কিন্তু এই সমীকরণ রাজস্থান বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির পালে হাওয়া কতটা টানতে পারে তা নিয়ে সন্দিহান খোদ গেরুয়া শিবিরের শীর্ষনেতৃত্ত্ব। আর লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগে রাজস্থান আর মধ্যপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচনে ধাক্কা খেলে তা যে ২০১৯-এ ক্ষমতায় ফেরা কঠিন করে দেবে সেকথা বলায় বাহুল্য, ফলে কপালের ভাঁজ ক্রমশ বাড়ছে নরেন্দ্র মোদীর বিস্বস্ত সেনাপতির।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!