এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > অধিকারী গড়ে তৃণমূলের সভা হলেও অনুপস্থিত শিশির-দিব্যেন্দু? বাড়ছে জল্পনা!

অধিকারী গড়ে তৃণমূলের সভা হলেও অনুপস্থিত শিশির-দিব্যেন্দু? বাড়ছে জল্পনা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – পূর্ব মেদিনীপুর নিয়ে তৃণমূলের অস্বস্তি কি ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে! এমনিতেই শুভেন্দু অধিকারী দল বদল করার কারণে চাপে রয়েছে শাসক দল। তবে শুভেন্দুবাবু তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করলেও তার পিতা এখনও পর্যন্ত পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি এবং তৃণমূল সাংসদ। অন্যদিকে তার ভাই দিব্যেন্দু অধিকারীও তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ। একইভাবে তার আর এক ভাই সৌমেন্দু অধিকারীও শাসকদলের রয়েছে।

কিন্তু শুভেন্দু অধিকারীকে কাবু করতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে কাঁথিতে সভা করা হলেও, জেলায় যে পরিবার থেকে দল পরিচালিত হয়, সেই অধিকারী পরিবারের কেউই সেই সভায় উপস্থিত থাকছেন না বলে খবর পাওয়া গেল। যার ফলে রাজনৈতিক মহলে জল্পনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। জানা গেছে, আজ বুধবার কাঁথিতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে একটি সভার আয়োজন করা হয়েছে। যেখানে উপস্থিত থাকবেন তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়, রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সহ অন্যান্যরা।

কিন্তু এই সভাতে জেলা তৃণমূল সভাপতি সহ অধিকারী পরিবারের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের কেন উপস্থিতি থাকবে না, তা নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। একাংশ বলতে শুরু করেছেন, তাহলে কি শুভেন্দু অধিকারীর পথেই হাঁটতে শুরু করেছেন তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা! কিন্তু কিছুদিন আগেই শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগদান করার পর তার ভাই দিব্যেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগদান করার জল্পনাকে নস্যাৎ করে দিয়েছিলেন। পরিষ্কার ভাষায় তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন, তিনি এখনও পর্যন্ত পাগলা ষাড় হয়ে যাননি। তাই তিনি কোনোমতেই বিজেপিতে যোগ দেবেন না।

স্বাভাবিকভাবেই শুভেন্দু অধিকারী গেরুয়া শিবিরে নাম লেখালেও, তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা যে এখনও পর্যন্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করছেন, তা তাদের আচরণেই প্রকাশ পেয়েছিল। কিন্তু শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর যেভাবে বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করছেন, এবার তাকে পাল্টা মোকাবিলা করতে সেই শুভেন্দুবাবুর কাঁথিতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে সভা হলেও কেন অধিকারী পরিবারের শিশিরবাবু থেকে শুরু করে দিব্যেন্দুবাবু সেখানে উপস্থিত থাকবেন না, এখন সেটাই প্রধান প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে রাজনৈতিক মহলে। অভিযোগ, তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই সভা হলেও, অধিকারী পরিবারের তৃণমূলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সেই ব্যাপারে কিছু জানানো হয়নি। যার ফলে তারা সেই সভাতে উপস্থিত থাকবেন না।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, মানুষ অতীত থেকে শিক্ষা নেয়। এক্ষেত্রে অতীতে মুকুল রায় তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগ করার পর তার ছেলে শুভ্রাংশু রায় ঘাসফুল শিবিরে থেকে গিয়েছিলেন। দলের প্রতি তিনি আনুগত্য প্রকাশ করে নজির স্থাপন করেছিলেন। কিন্তু তার কিছুদিন পরেই সেই মুকুল রায়ের পুত্র শুভ্রাংশু রায়কে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করতে দেখা যায়। এক্ষেত্রে অধিকারী পরিবারের শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগদান করার পর সেই পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের ওপর ভরসা ক্রমশ হারিয়ে ফেলতে শুরু করেছে তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব বলে দাবি একাংশের।

তবে কাঁথিতে সভা হলেও, সেখানে যদি শিশির অধিকারী থেকে শুরু করে দিব্যেন্দু অধিকারি বা সৌমেন্দু অধিকারীকে ডাকা না হয়, তাহলে তারা দলের বিরুদ্ধে সরব হয়ে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিতে পারেন। আর তাই ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে এখনও অধিকারী পরিবারের কাউকেই তেমনভাবে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না বলে দাবি করছেন একাংশ।

যার ফলে কাঁথিতে যে অধিকারী পরিবারকে বাদ দিয়ে কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয় না, সেখানে তৃণমূলের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠিত হচ্ছে সভা, অথচ ব্রাত্য রইল অধিকারী পরিবার। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনাকে হাতিয়ার করে দলের পক্ষ থেকে ডাক না পাওয়াকে কেন্দ্র করে শুভেন্দু অধিকারীর পিতা থেকে শুরু করে দুই ভ্রাতৃদ্বয় দলের মতো কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!