এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > প্রতিবেশী দেশগুলিতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল ভারত, কিন্তু পাকিস্তান পেল কার সাহায্য?

প্রতিবেশী দেশগুলিতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল ভারত, কিন্তু পাকিস্তান পেল কার সাহায্য?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – প্রায় এক বছর করোনা আতঙ্কে কাটানোর মধ্যে, মানুষ একান্ত ভাবে অপেক্ষা করেছে ভ্যাকসিনের। নতুন বছরের শুরুতেই খুশির খবর নিয়ে এসেছে ভ্যাকসিন। ভারত, পৃথিবীর বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক দেশ। স্বভাবতই, বিশ্বের বহু দেশেই ভ্যাকসিনের জন্য ভারতের দিকেই তাকিয়ে আছে। বছরের প্রথম দিনই বৈঠকে বসেছিল কেন্দ্রীয় সাস্থ্য মন্ত্রকের তৈরি বিশেষজ্ঞ কমিটি। অবশেষে ৩ রা জানুয়ারি, ভারতের ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেলের তরফে অক্সফোর্ড এবং ভারত বায়োটেক এর ভ্যাকসিন জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন পায়ে এই দুই ভ্যাকসিন। বহু প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে গত ১৬ই জানুয়ারি থেকে ভারতে ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

বিশ্বের সর্ব বৃহৎ ভ্যাকসিন প্রস্তুকারকরা দেশ ভারত এবার সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল প্রতিবেশী দেশ গুলির দিকে। বাংলাদেশের সাস্থ্য মন্ত্রী জানিয়েছেন, ভারত উপহার হিসেবে বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন দিচ্ছে। গত ২০ সে জানুয়ারি, সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি ভ্যাকসিনের ২০ লক্ষ ডোজ পৌঁছে গেছে বাংলাদেশে, এবং এই ২০ লক্ষ ভ্যাকসিন বাংলাদেশকে দিলো ভারত উপহার হিসেবে।

অন্যদিকে, ভুটানকে ভারত ভ্যাকসিন দিতে চলেছে বিনামূল্যে বলে জানা গেছে। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, তাদের দেশ বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাবে ভারতের থেকে। ভুটানের সমস্ত ভ্যাকসিন পাওয়ার যোগ্য মানুষকেই একবারে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলেই তিনি জানিয়েছেন। সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন তারা পাবে বলেই তিনি জানিয়েছেন। গত ১৫ই জানুয়ারি নেপালের ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট একটি বিবৃতি দিয়ে, দেশে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি ভ্যাকসিন কোভিশিল্ডকে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়। গত ১৫ই জানুয়ারী অনুমোদন দেওয়া হয় কোভিশিল্ডকে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

ভারত তার প্রতিবেশী দেশ গুলির দিকে সাহায্যের হাত বাড়ালেও, প্রতিবেশী পাকিস্তানকে সাহায্যের কথা জানিয়েছে চীন। চীন তাদের দেশের তৈরি শিনোফার্ম ভ্যাকসিনের ৫ লক্ষ ডোজ উপহার হিসেবে দেওয়ার কথা জানিয়েছে পাকিস্তানকে। এই ৫ লক্ষ ভ্যাকসিন, ৩১সে জানুয়ারি এর মধ্যে পৌঁছে যাবে পাকিস্তান। তবে পাকিস্তান ইতিমধ্যেই অক্সফোর্ড – অস্ট্রাজেনেকার তৈরি ভ্যাকসিন, যা ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট ও তৈরি করছে, সেই ভ্যাকসিন অনুমোদন দিয়েছে।

ইতিমধ্যেই জানা গেছে, ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর থেকে ভ্যাকসিন কিনতে চলেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দক্ষিণ আফ্রিকা ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর থেকে ১৫ লক্ষ করোনা ভ্যাকসিন কিনতে চলেছে। এছাড়াও ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর তৈরি করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন কোভিশীল্ড কিনতে চলেছে মায়ানমার। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর থেকে ৩০ কোটি ভ্যাকসিন কেনার জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করেছে তারা। ব্রাজিল ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর থেকে ২০ লক্ষ ভ্যাকসিন কিনেছে। এছাড়াও, ভ্যাকসিন কেনার জন্য সিরাম ইনস্টিটিউট এর সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে বলিভিয়া। বলিভিয়া সরকার ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এর সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ৫০ লক্ষ ডোজ ভ্যাকসিন কেনার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!