এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > হাওড়ায় উন্নয়ন দেখালেন অনুব্রত, মুকুলকে সাইড-লাইনের প্লেয়ার করলেন ববি

হাওড়ায় উন্নয়ন দেখালেন অনুব্রত, মুকুলকে সাইড-লাইনের প্লেয়ার করলেন ববি



আসন্ন ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনে শেষদিনের প্রচার কার্যে আবারও ‘উন্নয়নের দাঁড়িয়ে থাকার’ তত্ত্বের কথা বললেন বীরভূম জেলার তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। এদিন তিনি হাওড়ার বাগনানে দলীয় প্রচারকার্যে উপস্থিত ছিলেন। তিনি ছাড়াও এদিনের সভায় দলের পক্ষে ছিলেন পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। এদিনের প্রচার সভা থেকে অনুব্রত বাবু বললেন, ” হাওড়ার মানুষ শপথ নিন যেন একটা পঞ্চায়েতেও বিরোধীরা জিততে না পারেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে রাজ্য জুড়ে যে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ চলছে তাকে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে হবে। বিরোধীরা উন্নয়ন চোখে দেখে না। তাই কুৎসা রটাচ্ছে। গ্রামে গ্রামে ঘুরলেই উন্নয়ন চোখে পড়বে। গ্রামে ঘুরলেই দেখতে পাবেন উন্নয়ন দাঁড়িয়ে আছে। সেটা না দেখে মিথ্যে বদনাম রটালে মানুষই বিরোধীদের উপযুক্ত দেবেন। ”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

একই মঞ্চ থেকে ফিরদাম হাকিম তাঁর ভাষণে বললেন, “বিরোধীরা পঞ্চায়েত ভোটকে ভেস্তে দিতে অনেক চেষ্টা করেছিল। কিন্তু আদালত তা হতে দেয়নি। বিরোধীদের থোঁতা মুখ ভোঁতা হয় গিয়েছে। বিরোধীদের কোনও জনসমর্থন নেই। অনেক জায়গাতেই প্রার্থী খুঁজে পায়নি।” এদিন নাম না করেই বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে বিদ্রুপ করে তিনি বললেন, “”আমাদের একজন সাইড লাইনের প্লেয়ারকে নিয়ে বিজেপি ভেবেছিল জিতে যাবে। অথচ সেই মীরজাফর নিজের ছেলেকেও সঙ্গে পাননি। সেখানে সাধারণ মানুষের সমর্থন আশা করেন কী করে!” তাঁর মতে এসবের জবাব সাধারণ মানুষই যোগ্য উপায়ে দেবে। অন্যদিকে হাওড়া জেলার অপর প্রান্তে বালির নিশ্চিন্দা কালীতলার মাঠে এদিনে সভা করলেন সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর ভাষণের শুরু থেকেই এদিন তিনি গেরুয়া শিবিরকে এক হাত দিলেন। তাঁর মতে মোদী সরকার কোনও প্রতিশ্রুতিই পালন করেনি উল্টে দেশজুড়ে ধর্মের নামে রাজনীতি করছে। তিবি বললেন, “নরেন্দ্র মোদীর সরকার কাজের কাজ কিছুই করতে পারেনি। বলেছিলেন ক্ষমতায় এলে পাঁচ বছরে ১৮-২৪ বছরের বেকার ছেলেমেয়েরা চাকরি পাবেন। কোথায় কী! যেটা করতে পেরেছে-ধর্মের নামে রাজনীতি।” একই সাথে তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করে বললেন ,” কথায় কথায় যে বিজেপি ‘জয় শ্রী রাম’ দেখায়, রাম কি ওদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি! সকলেই রামের পুজো করেন। নিজের ধর্মকে শ্রদ্ধা না করলে কোনও ধর্মকেই শ্রদ্ধা করা যায় না।” এমনটাই মনে করেন সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!