এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ফের দুই দলের মধ্যে রাজনৈতিক চাপানউতোর, পরিস্থিতির ওপর কড়া নজর প্রশাসনের

ফের দুই দলের মধ্যে রাজনৈতিক চাপানউতোর, পরিস্থিতির ওপর কড়া নজর প্রশাসনের



পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক জমিকে কেন্দ্র করে রাজ্যের রাজনৈতিক শিবিরগুলির মধ্যে প্রায় প্রতিনিয়তই দ্বন্দ্ব লেগে থাকে। কোন কোন সময় এই রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব পৌঁছে যায় রাজনৈতিক সংঘাতে। ফলস্বরূপ বেশকিছু মানুষ নিহত এবং আহত হয়। কিন্তু প্রাণের বলিদান হওয়া সত্ত্বেও এই রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব কোনোভাবেই মেটে না। এবার হুগলির আরামবাগে একটি রাজনৈতিক ইস্যুকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছে দুই দলের মধ্যে রাজনৈতিক টানাপোড়েন। সম্প্রতি আরামবাগের বিজেপি শিবির অভিযোগ জানিয়েছে, তাঁদের টাঙানো একটি ফ্লেক্সে অমিত শাহের মুখের ওপর কাদা লেপে দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের তীর ওঠে তৃণমূল শিবিরের দিকে।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সকালে আরামবাগ শহরে রাজনৈতিক টানাপোড়েন তুঙ্গে ওঠে। জানা যায়, শহরের বসন্তপুর এলাকায় অমিত শাহের একটি ফ্লেক্স লাগানো ছিল যার মধ্যে কাদা লেপে দেওয়া হয়েছে। এব্যাপারে তীব্র ক্ষোভ জানিয়ে বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগের আঙ্গুল তোলা হয় তৃণমূল শিবিরের দিকে। বিজেপি শিবির দাবি করে, তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরাই এধরনের কান্ড ঘটিয়েছে। ইচ্ছাকৃতভাবে এলাকার শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নষ্ট করার জন্যই এ ধরনের কান্ড ঘটানো হয়েছে।

অন্যদিকে, তৃণমূলের পক্ষ থেকে বিজেপির এই অভিযোগ সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করা হয়। তাঁরা পাল্টা জানায়, এই মুহূর্তে বিজেপির পায়ের তলায় রাজনৈতিক জমি রীতিমতো আলগা হয়ে পড়েছে। তাই পুর নির্বাচনের আগে পায়ের তলার মাটি ফিরে পেতে বিজেপি এই ধরনের কুৎসা রটাচ্ছে শাসকদলের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে জানা গেছে, বিজেপির পক্ষ থেকে আরামবাগ থানায় একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাটির তদন্তে নেমেছে বলে জানা গেছে।

ঘটনাটির বিবরণ পেতে স্থানীয় এলাকার লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে জানা যায়, শহরের 11 নম্বর ওয়ার্ডের বসন্তপুরে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে বিজেপির পক্ষ থেকে দলীয় ফ্লেক্স টাঙানো হয়। যেখানে অমিত শাহের ছবি ছিল। তবে এদিন সকালে দেখা যায়, ফ্লেক্সে অমিত শাহের ছবির উপর কাদা লেপে দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি আবিষ্কারও করেন এলাকার বাসিন্দারাই। এ প্রসঙ্গে বিজেপির আরামবাগ সাংগঠনিক জেলা সভাপতি বিমান ঘোষ জানিয়েছেন, ‘পুরসভা ভোটের আগে অশান্তি সৃষ্টির জন্য শাসক দলের লোকজন অত্যাচার চালাচ্ছে। যে কারণে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা রাতের অন্ধকারে আমাদের ফ্লেক্সে থাকা অমিত শাহের ছবিতে কাদা লেপে দিয়েছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে তৃণমূলের। তাই এধরনের কাজ করছে।’

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে বিজেপির অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে আরামবাগ পুরসভার চেয়ারম্যান তথা আরামবাগ ব্লক তৃণমূলের সভাপতি স্বপন নন্দী জানিয়েছেন, ‘আরামবাগবাসী ভালোভাবেই জানে, এধরনের নোংরা রাজনীতি তৃণমূল কখনই করে না। ভোটের আগে বিজেপির পায়ের তলার মাটি সরে গিয়েছে। যে কারণে এই ধরনের কাজ ওরা নিজেরাই করে আমাদের দলের বিরুদ্ধে মিথ্যা বদনাম দিচ্ছে। পুরসভা নির্বাচনের সময় সাধারণ মানুষ এর উত্তর দেবে।’

তবে সূত্রের খবর সপ্তাহ খানেক আগে বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, রাতের অন্ধকারে তাঁরা তৃণমূল এবং সিপিএম এর দুটি কার্যালয়ে হামলা চালায়। রাতের অন্ধকারে সে সময় দুটি কার্যালয়ের সামনে থাকা শহীদ বেদীগুলি ভেঙে ফেলে দুষ্কৃতীরা। সেই ঘটনার রেশ মেলাতে না মেলাতেই নতুন করে অমিত শাহের মুখে কাদা লাগানোর ঘটনায় শহরজুড়ে রাজনৈতিক চাঞ্চল্য শুরু হয়েছে। রাতের অন্ধকারে দলীয় কার্যালয়ে হামলার ঘটনায় সেসময় অভিযোগের তীর ওঠে বিজেপি শিবিরের দিকে।

তবে এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, যেকোনো নির্বাচনের সময় এ ধরনের রাজনৈতিক চাপানউতোর চলতেই থাকে। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ বহুবার এই রকম ঘটনার সাক্ষী হয়েছে। অন্যদিকে রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, পুরসভার নির্বাচনের আগে দুই দলের মধ্যে রাজনৈতিক চাপানউতোর এর ফলে এলাকার শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে। তবে জানা গেছে আরামবাগের ঘটনায় পুলিশ ইতিমধ্যে তদন্তে নেমেছে। তবে কাউকে এখনো পর্যন্ত তাঁরা কাউকে গ্রেপ্তার করে উঠতে পারেনি। আপাতত সম্পূর্ণ পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!